৩০ মে ২০২০

প্রণোদনায় বেসরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ অন্তর্ভুক্ত করার দাবি

-

নভেল করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯)-এর কারণে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত বেসরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজগুলোতে কর্মরত প্রায় ২ হাজার শিক্ষক-কর্মচারীদের জরুরি ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনায়অন্তর্ভুক্ত করার দাবি জানিয়েছে নবেসরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও ইন্টারন্যাশনাল এডুকেশন কলেজের অধ্যক্ষ ড. মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম খান।

এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, বিগত ২৭ বছর বেসরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজগুলো মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নের জন্য ১৪টি সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজের পাশাপাশি একই কোর্স-কারিকুলামে ৭৫% শিক্ষকদের বিএড ট্রেনিং দিয়ে আসছে। অথচ এই কলেজগুলো প্রতিষ্ঠার দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে সরকারের আর্থিক অনুদান প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত রয়েছে। আর্থিক সমস্যায় জর্জিরিত এসব কলেজের আয়ের একমাত্র উৎস প্রশিক্ষণার্থীদের প্রদত্ত সামান্য কোর্স ফি। করোনা ভাইরাসের কারণে প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় সে কোর্স ফি’ও আদায় করা যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী আগামী সেপ্টেম্বরের পূর্বে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সম্ভাবনা ক্ষীণ। এমতাবস্থায় কলেজগুলো বাড়ি ভাড়াসহ শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা দিতে চরম আর্থিক সঙ্কটে পড়েছে। যদি সরকারি সহযোগিতা না পাওয়া যায় তবে উদ্যোক্তাদের স্ব-অর্থায়নে পরিচালিত কলেজগুলো দীর্ঘমেয়াদি ঋণে জর্জরিত হবে এবং ক্ষেত্রবিশেষ প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হবে। তাই দেশের এই চরম সঙ্কটময় মুহূর্তে পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগেই বেসরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ শিক্ষক-কর্মচারীদেরকে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনার আওতায় অন্তর্ভুক্ত করার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি


আরো সংবাদ