১০ ডিসেম্বর ২০২২, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`
টিসিবির পণ্য কালোবাজারে

তা হলে কার্ডের গুরুত্ব কী?

-

সহযোগী একটি পত্রিকার সংবাদদাতা বগুড়া থেকে জানান, টিসিবির মাধ্যমে নিম্নআয়ের মানুষকে নিত্যপণ্য জোগানোর সরকারি শুভ উদ্যোগটি ব্যর্থ হতে চলেছে। ফ্যামিলি কার্ডে ভর্তুকিমূল্যে এই পণ্য দেয়ার কথা। তবে সেসব পণ্য কার্ডে নয়, কালোবাজারে এখন বিক্রি করা হচ্ছে। তাই কার্ডধারী নিম্নআয়ের মানুষ সে পণ্য পাচ্ছেন না। সারা দিন রোদে দাঁড়িয়ে অপেক্ষার পরও তাদের খালি হাতে ফিরতে হয়। অনেকেই টিসিবির পণ্যাদি ফ্যামিলি কার্ডে না পেয়ে ডিলারের বিক্রয়কেন্দ্রে কার্ডসহ বিক্ষোভ করেছেন। গরিব পরিবারের জন্য বরাদ্দের টিসিবি পণ্য নয়ছয়ের ঘটনায় তদন্ত করে দরকারি পদক্ষেপ নিতে জোর দাবি জানালেন তারা।
গত সোমবার দুপুরে বগুড়ার শেরপুরে শাহবন্দেগি ইউনিয়নে টিসিবি ডিলার তোতা মিয়ার খন্দকারটোলা মাজারগেট ও আউয়ালের হামছায়াপুর কাঁঠালতলা বিক্রয়কেন্দ্রের সামনে এ ঘটনা ঘটেছে।
কার্ড থাকা সত্ত্বেও ভর্তুকিমূল্যে পণ্য না পাওয়ায় জনপ্রতিনিধিরাও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। শাহবন্দেগি ইউপির একাধিক সদস্যসমেত চেয়ারম্যান অভিযোগ করেন, কয়েক মাস যাবৎ টিসিবির পণ্য বিক্রি চলছে। কিন্তু প্রতিটি বরাদ্দেই ডিলার অনিয়ম করছে। গরিবদের পণ্য তাদের না দিয়ে কালোবাজারে বেআইনিভাবে বেচে দেয়া হচ্ছে। এখনো টিসিবির পণ্য বণ্টনে আশ্রয় নেয়া হচ্ছে নানান অনিয়ম ও দুর্নীতির। মাস্টাররোলে বানোয়াট সই নিয়ে বেশির ভাগ নিত্যপণ্য বিক্রি করে দেয়া হয়। তাই অনেক ফ্যামিলি কার্ডধারীও ভর্তুকির পণ্য পান না। যেমন- হামছায়াপুর গ্রামের এক মহিলা তার নামের ফ্যামিলি কার্ড নিয়ে মাজারগেটের বিক্রয়কেন্দ্রে লাইনে দাঁড়ান। সকাল থেকে বিকেল অপেক্ষার পরও ডিলার জানান, এ মাসের পণ্য শেষ। তাই খালি হাতে ওই মহিলা বাড়ি ফেরেন। ২ নম্বর ওয়ার্ডের জনৈক দিনমজুর বলেন, ‘কার্ড থেকে কী লাভ? কারণ কার্ড থাকলেও পণ্য মেলে না। কার্ড ছাড়াই সে পণ্য কালোবাজারে। ফলে সুলভমূল্যে টিসিবি পণ্য পাওয়া যায় না।’ সর্বত্র একই চিত্র। অথচ কর্মকর্তাদের নজর নেই সে দিকে। এসব অনিয়মে তারাও জড়িত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে যদিও তারা তা অস্বীকার করেছেন। তবে স্বীকার করলেন, কেউ কেউ অন্য দায়িত্ব থাকায় বিক্রয়কেন্দ্রে যেতে পারেননি। অনিয়ম হলে ডিলারই দায়ী বলে তাদের বক্তব্য। তবে ‘অহেতুক’ কারো দোষ দেখা ঠিক নয় বলে তাদের অভিমত।


আরো সংবাদ


premium cement