১৫ এপ্রিল ২০২১
`
নারায়ণগঞ্জে লঞ্চডুবিতে প্রাণহানি

ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না কেন

-

গত রোববার শীতলক্ষ্যায় লঞ্চডুবিতে ৩৪ জন প্রাণ হারানোর ঘটনায় দুটো তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তারা দুর্ঘটনার কারণ ও দায় নিয়ে তাদের অনুসন্ধান চালাচ্ছেন। যতটুকু জানা যায়, ডুবে যাওয়া লঞ্চটি অতিরিক্ত যাত্রী বহন করেনি। নৌযানটি মেয়াদোত্তীর্ণও ছিল না। তার ফিটনেস সনদ হালনাগাদ ছিল। দুর্ঘটনার সময় উপস্থিত অভিজ্ঞ ব্যক্তি ও প্রত্যক্ষদর্শীর বিবরণ মতে, লঞ্চটিকে পেছন দিক থেকে ধাক্কা দেয় একটি কার্গো জাহাজ। এরপর লঞ্চটি ঘুরে কাত হয়ে যায়। তার উপর দিয়ে চলে যায় কার্গোটি। এ দুর্ঘটনার জন্য যতটুকু দেখা গেল, দায়ী হচ্ছে কার্গো জাহাজটি। বাংলাদেশে সড়ক ও নৌ দুর্ঘটনায় মেয়াদোত্তীর্ণ ও ফিটনেসবিহীন যানবাহন, চালকের কাণ্ডজ্ঞানহীন চালনা ছাড়াও অন্যতম প্রধান কারণ প্রভাবশালী মহলের পক্ষ থেকে দুর্ঘটনার বিচারে বাধা প্রদান। এমভি সাবিত আল হাসান নামের লঞ্চটি দুর্ঘটনার সময় যেখানে ছিল সেটি কিছুটা সরু নৌপথ। একটি সেতু নির্মাণের কারণে নৌপথটি অনেকটাই সঙ্কীর্ণ। এই অবস্থায় সেখানে নৌযানগুলো দুর্ঘটনা এড়ানোর জন্য যথেষ্ট সাবধানতার সাথে চলাচল করা প্রয়োজন। দুটো নৌযান পাশাপাশি অতিক্রম করা যতটা পারা যায় এড়িয়ে যাওয়াই উত্তম ছিল। অথচ এসকেএল-৩ নামের কার্গো জাহাজটি হুড়মুড় করে লঞ্চটির উপর হুমড়ি খেয়ে পড়ে। একপর্যায় ডুবন্ত লঞ্চটির অনেকটাই উপর দিয়ে সেটি চলে যায়। ফলে লঞ্চটির কাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে, সম্পূর্ণ ডুবে গিয়ে এতগুলো প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। লঞ্চটির যাত্রী ধারণক্ষমতা ছিল ৬৮ জন। দুর্ঘটনার সময় এতে ৪০ থেকে ৪৫ জন যাত্রী ছিল। এর মধ্যে ৩৪ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ছয় শিশু ও ১৪ জন নারী। লাশগুলো উদ্ধারের পর সেখানে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। মা-বাবাকে হারিয়ে শিশুসন্তান আহজারি করছে। শোকাতুর মানুষেরা এ ঘটনার জন্য কার্গো জাহাজটিকে দায়ী করছে।
এ দিকে লঞ্চডুবির ঘটনায় জেলা প্রশাসন ও অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটএ) পক্ষ থেকে পৃথক দু’টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে আহ্বায়ক করে সাত সদস্যের কমিটিকে পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অন্য দিকে বিআইডব্লিউটিএর একজন পরিচালকের নেতৃত্বে চার সদস্যের অন্য কমিটিকেও পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তদন্ত কমিটি তাদের কাজ চালাচ্ছেন। দুর্ঘটনার বিরুদ্ধে প্রতিকার হিসেবে করণীয় প্রাথমিক কাজগুলো এগিয়ে নিতে কোনো সমস্যা নেই। জানা গেছে, দুর্ঘটনার জন্য দায়ী জাহাজটিকে ‘আর পাওয়া যাচ্ছে না’। অথচ এত বড় একটি নৌযান নদী থেকে উধাও হয়ে যেতে পারে না। তা ছাড়া এ জাহাজটি ও তার মালিকের বিরুদ্ধে মামলা করা যাচ্ছে না। ডুবে যাওয়া লঞ্চের মালিকপক্ষ নারায়ণগঞ্জের নৌ থানা ও বন্দর থানায় বুধবার সারা দিন মামলা করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন। মালিকপক্ষের সাথে লঞ্চ মালিক সমিতির প্রতিনিধিরাও ছিলেন। থানার পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, একই ঘটনায় দু’টি মামলার বিধান নেই। অথচ বিআইডব্লিউটিএর করা মামলায় কারো নাম নেই।
জানা যাচ্ছে, ধাক্কা দেয়া এমভি এসকেএল-৩ কার্গোটির রেজিস্ট্রেশন নম্বর এম-০১-২৬৪৩। এর মালিক বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ শেখ তন্ময়ের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান এসকে লজিস্টিকস। এ দিকে লঞ্চের মালিক ও পরিবহন সংস্থার নেতারা অভিযোগ করছেন, কার্গো জাহাজটির মালিকপক্ষ প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের মামলা করতে দেয়া হচ্ছে না। আমরা সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে প্রতিকারের ক্ষেত্রে একই ধরনের প্রতিবন্ধকতা দেখেছি। সেখানে দেখা গিয়েছিল, আইন করার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা হচ্ছে। আইন প্রণয়ন করার পর সেটি বাস্তবায়নে বাধা দেয়া হয়েছে। শেষ পর্যন্ত সড়কে নৈরাজ্য বন্ধ করা যায়নি। নারায়ণগঞ্জের লঞ্চ দুর্ঘটনাটির কারণ বুঝতে পারা যাচ্ছে। কিন্তু এখানেও ঘটনার জন্য অভিযুক্তদেরকে বিচারের মুখোমুখি করার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না। এতগুলো মানুষ প্রাণ হারানোর পরও অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে যদি আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া না যায়, তাহলে সেটি উদ্বেগজনক। এ ধরনের অব্যবস্থাপনা দুর্ঘটনার আশঙ্কা আরো বাড়াবে।

 



আরো সংবাদ


কোহলিকে সরিয়ে শীর্ষে বাবর আজম খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনা করে জাপানের রাষ্ট্রদূত ও পাকিস্তান হাইকমিশনারের চিঠি করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত ৫০ লাখ দরিদ্র পরিবারকে আবারো ২৫০০ টাকা করে দেয়ার উদ্যোগ আলোচনা দীর্ঘায়িত করা ক্ষতিকর হবে : খামেনি বেঙ্গালুরুর টানা দ্বিতীয় জয় বাবর ধামাকায় পাকিস্তানের রেকর্ড গড়া জয় রাহুল গান্ধীর হুঁশিয়ারি : বিজেপি এলে পশ্চিমবঙ্গ জ্বলবে করোনায় মৃত্যুতে নতুন রেকর্ডে কঠোর লকডাউন শুরু গোবিন্দগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের ৩ জনসহ নিহত ৪ অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে অনৈতিক কাজের অভিযোগে কালিয়াকৈরে যুবক আটক দুর্নীতির অভিযোগে ৮ বছরের জন্য নিষিদ্ধ ক্রিকেটার হিথ স্ট্রিক

সকল