০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯, ১৫ রজব ১৪৪৪
ads
`

বিপিডিবি’র আর্থিক ক্ষতি দুই-তৃতীয়াংশ বেড়ে ৪৮ হাজার কোটি টাকা

-

রাষ্ট্রায়ত্ত বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (বিপিডিবি) আর্থিক ক্ষতি এক বছরে ১৮ হাজার ৯৪ কোটি টাকা বাড়তে পারে। এতে মোট ক্ষতি ৪৮ হাজার কোটি টাকা অতিক্রম করবে।

বিপিডিবি’র সর্বশেষ নিজস্ব হিসাব অনুযায়ী, আর্থিক ক্ষতি ২০২১-২০২২ অর্থবছরে ২৯ হাজার ৯১৫ কোটি টাকা থেকে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে ৪৮ হাজার কোটি টাকা অতিক্রম করবে, যা শতকরা হিসাবে ৬৭ শতাংশ।

প্রতিষ্ঠানটির সূত্র থেকে জানা যায়, নিরীক্ষিত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বিপিডিবির অর্থ বিভাগ এই হিসাব তৈরি করেছে।

বিপিডিবির অর্থ বিভাগের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা জানান, সম্প্রতি পাইকারি বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির ফলে আনুমানিক আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ মাত্র পাঁচ হাজার কোটি টাকা কমে যেতে পারে।

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা শুধুমাত্র সাত মাসের জন্য কিছু অতিরিক্ত রাজস্ব পেয়েছি। কারণ নতুন পাইকারি মূল্য ১৯ দশমিক ৯২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, যা এই বছরের ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হবে।’ প্রতিটি অর্থবছর ১ জুলাই থেকে পরবর্তী বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত হিসাব করা হয়।

পিডিবি বর্তমানে প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য ৫ দশমিক ২১ টাকা ধার্য করেছে, যা ইউনিট প্রতি ১ দশমিক ৩ টাকা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

হিসাব অনুযায়ী, আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ অত্যধিক বেড়েছে মূলত দুটি কারণে—প্রাথমিক জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধি এবং স্থানীয় মুদ্রার অবমূল্যায়ন।

বিপিডিবির একজন শীর্ষ কর্মকর্তা ইউএনবিকে বলেন, ‘এই দুই কারণের মধ্যে স্থানীয় মুদ্রার অবমূল্যায়ন প্রধান কারণ হিসেবে দেখা দিয়েছে।’

তিনি জানান, শুধুমাত্র মার্কিন ডলারের উচ্চমূল্যের কারণে বিপিডিবি প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকার লোকসান গুনতে যাচ্ছে।

সংবেদনশীলতার কারণে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি সূত্র জানিয়েছে যে বেসরকারি পাওয়ার প্ল্যান্ট অপারেটরদের অর্থ পরিশোধ ও যন্ত্রপাতি আমদানিতে ব্যাংকে লেটার অব ক্রেডিট (এলসি) বা প্রত্যয়পত্র খোলার ক্ষেত্রে বর্তমানে ১০৭ টাকায় মার্কিন ডলারের বিনিময় হার গণনা করতে হচ্ছে।

উক্ত কর্মকর্তা জানান যে কিছুদিন আগেও বিপিডিবি মার্কিন ডলারের বিনিময় হার ৮৫ টাকায় হিসাব করেছে। এখন ১০৭ টাকার বিনিময় হার মানে প্রতি ডলার দিতে ২২ টাকা অতিরিক্ত।

বিপিডিবির বিপুল সংখ্যক বেসরকারি বিদ্যুৎ উৎপাদন কোম্পানির সাথে তাদের বিদ্যুৎ কেনার জন্য বিদ্যুৎ ক্রয় চুক্তি (পিপিএ) রয়েছে।

পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, বর্তমানে দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২৫ হাজার ৫০০ মেগাওয়াটের বেশি এবং ৫০ শতাংশের বেশি বিদ্যুৎ বেসরকারি খাতে স্বাধীন বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী (আইপিপি), ভাড়া ও দ্রুত ভাড়ার পাওয়ার প্ল্যান্টের মাধ্যমে উৎপাদিত হয়।

ভারত থেকে বিদ্যুতের আমদানিও বেসরকারি খাতের উৎপাদন হিসেবে গণনা করা হয়।

বেসরকারি খাতের অপারেটররা মূলত ফার্নেস অয়েল, প্রাকৃতিক গ্যাস ও ডিজেল ব্যবহার করে। এর মধ্যে ফার্নেস অয়েল ব্যবহার করে ৪ হাজার ৭০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয়।

টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (স্রেডা) অনুসারে, মোট ২৫ হাজার ৫৮৫ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতার মধ্যে সরকারি ও বেসরকারি উভয় ক্ষেত্রের প্ল্যান্ট রয়েছে এক হাজার ৭৬৮ মেগাওয়াট (৬ দশমিক ৯১ শতাংশ) কয়লাভিত্তিক, ১১ হাজার ৩৩০ মেগাওয়াট (৪৪ দশমিক ২৮ শতাংশ) গ্যাসভিত্তিক, ৬ হাজার ২৩৮ মেগাওয়াট (২৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ) ফার্নেস অয়েলভিত্তিক, ১ হাজার ৩৪১ মেগাওয়াট (৫ দশমিক ২৪ শতাংশ) ডিজেলভিত্তিক, আমদানি ১ হাজার ১৬০ মেগাওয়াট (৪ দশমিক ৫৩ শতাংশ), নবায়নযোগ্য ৯৪৮ দশমিক ১২ মেগাওয়াট (৩ দশমিক ৭১ শতাংশ) ও ক্যাপটিভ ২ হাজার ৮০০ মেগাওয়াট (১০ দশমিক ৯৪ শতাংশ)।

বিপিডিবির কর্মকর্তারা জানান, প্রতিষ্ঠানটিকে ২০২১-২০২২ সালে ৪ দশমিক ৮ মিলিয়ন মেট্রিক টন তরল জ্বালানি আমদানির জন্য ৩১ হাজার ২৪৫ কোটি টাকা ব্যয় করতে হয়, প্রধানত ফার্নেস অয়েল।

চলতি অর্থবছরে বিপিডিবি ৩ দশমিক ৬ মেট্রিক টন ফার্নেস অয়েল আমদানি করবে বলে নির্ধারণ করেছে, যা ১ দশমিক ২ মিলিয়ন মেট্রিক টন কম। কারণ অত্যধিক দামের কারণে সরকার ইতোমধ্যে ডিজেলভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোর কার্যক্রম স্থগিত করেছে।

বিপিডিবির কর্মকর্তা বলেন, কম পরিমাণ ফার্নেস অয়েল আমদানি করতে সরকারকে ২০২২-২০২৩ সালের চলতি অর্থবছরে ২৮ হাজার ৪৪১ কোটি টাকা ব্যয় করতে হবে।

যদিও ফার্নেস অয়েলের পরিমাণ উল্লেখযোগ্যভাবে ১ দশমিক ২ মিলিয়ন মেট্রিক টন কমে যাচ্ছে, বিপিডিবিকে আগের বছরের তুলনায় অনেক বেশি দামে তরল জ্বালানি আমদানি করতে হবে বলে খরচ উল্লেখযোগ্যভাবে কমেনি।

আগের অর্থবছরে প্রতি লিটার ফার্নেস অয়েলের মূল্য ছিল ৬৫ টাকা। দাম নির্ধারণের কাজে জড়িত বিপিডিবির আরেক কর্মকর্তা জানান, চলতি বছরে এর দাম বেড়েছে হয়েছে ৮৫ টাকা প্রতি লিটারে।

তিনি বলেন, ফার্নেস অয়েলের দাম ২০ টাকা বাড়লে শেষ পর্যন্ত প্রায় ২ হাজার ৫০০ কোটি টাকার অতিরিক্ত বোঝা তৈরি হবে। স্থানীয় বিদ্যুৎ উৎপাদনে কয়লার উচ্চমূল্য ও বিদ্যুতের আমদানিও বিপিডিবির সামগ্রিক ব্যয় বৃদ্ধিতে প্রভাব ফেলবে।

সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ


premium cement