০২ এপ্রিল ২০২০
পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ

৭ ব্যাংকের ১,১৩৫ কোটি টাকার তহবিল গঠন

পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য এক হাজার ১৩৫ কোটি টাকার তহবিল গঠন করেছে সাত ব্যাংক। এর মধ্যে তিনটি সরকারি ও চারটি বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক রয়েছে। বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকের মধ্যে রয়েছে- সিটি, শাহজালাল, ইউসিবিএল ও ইসলামী ব্যাংক। আর সরকারি ব্যাংকের মধ্যে রয়েছে- সোনালী, রূপালী ও জনতা ব্যাংক।

ব্যাংকগুলো তহবিল গঠন করে ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংককে অবহিত করেছে। গত বৃহস্পতিবার ইসলামী ও জনতা ব্যাংক এবং এর আগে অপর পাঁচটি ব্যাংক তহবিল গঠন করে বাংলাদেশ ব্যাংককে অবহিত করে ছিল। বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা ছিল, ব্যাংকগুলো পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য ২০০ কোটি টাকা পর্যন্ত তহবিল গঠন করে বাংলাদেশ ব্যাংককে অবহিত করবে। আর এ ২০০ কোটি টাকার তহবিল প্রভিশনের আওতামুক্ত থাকবে। এমনকি ব্যাংক কোম্পানি আইন অনুযায়ী পুঁজিবাজারে বিনিয়োগসীমারও বাইরে থাকবে। অর্থাৎ একটি ব্যাংক তাদের মোট মূলধনের ২৫ শতাংশের বেশি শেয়ার ধারণ করতে পারবে না।

আর এ ২০০ কোটি টাকা ওই ২৫ শতাংশের আওতামুক্ত থাকবে। এ তহবিল গঠন করে ব্যাংকগুলোকে বাংলাদেশ ব্যাংককে অবহিত করতে বলা হয়। ব্যাংকগুলো ইচ্ছে করলে তাদের নিজস্ব উৎস থেকে তহবিল গঠন করতে পারে। আবার তাদের হাতে থাকা ট্রেজারি বিল ও বন্ড বন্ধক রেখে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে কম সুদে ধার নিতে পারবে। কেউ বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ধার নিলে সুদ পরিশোধ করতে হবে মাত্র ৫ শতাংশ হারে। আর এ তহবিল গঠন করতে পারবে দীর্ঘ পাঁচ বছরের জন্য। এ সময়ের মধ্যে এ তহবিলের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদ্যমান নীতিমালা প্রয়োগ করা হবে না।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রথমে পাঁচটি ব্যাংক তহবিল গঠন করে বাংলাদেশ ব্যাংককে অবহিত করেছিল। গত বৃহস্পতিবার নতুন করে আরো দু’টি ব্যাংক ২০০ কোটি টাকা করে ৪০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করে বাংলাদেশ ব্যাংককে অবহিত করে। এর মধ্যে ইসলামী ব্যাংক ২০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করে নিজস্ব উৎস থেকে। অপর দিকে জনতা ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমে তহবিল গঠন করে ২০০ কোটি টাকার। এর আগে সোনালী ব্যাংক নিজস্ব উৎস থেকে ২০০ কোটি টাকার, রূপালী ব্যাংক নিজস্ব উৎস থেকে ৮৫ কোটি টাকার, সিটি ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমে ৫০ কোটি টাকার, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক ও ইউসিবিএল ২০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করে বাংলাদেশ ব্যাংককে অবহিত করে।

এ বিষয়ে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের তহবিল ব্যবস্থাপক মো: জাফর ছাদেক গতকাল এ বিষয়ে নয়া দিগন্তকে জানিয়েছেন, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকই সর্বপ্রথম নিজস্ব উৎস থেকে এ তহবিল গঠন করে তাদের পরিচালনা পর্ষদের অনুমোদন নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংককে অবহিত করেছে। ইতোমধ্যে বিশেষ একটি বিও অ্যাকাউন্ট খুলে এ তহবিল থেকে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করা শুরু হয়েছে। তিনি মনে করেন এ তহবিল এক দিকে পুঁজিবাজারে তারল্য প্রবাহ বাড়াতে যেমন সহায়ক হবে, তেমনি একটি টেকসই পুঁজিবাজার গড়তে সহায়তা করবে।

তিনি বলেন, এ তহবিলের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো, এ তহবিল থেকে বিনিয়োগ করলে প্রভিশন সংরক্ষণ করতে হবে না, আওতামুক্ত থাকবে বিনিয়োগসীমার। সবমিলিয়ে ব্যাংকগুলোর জন্যও এ তহবিল থেকে পুঁজিবাজারে দীর্ঘ মেয়াদে বিনিয়োগে ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে।

প্রসঙ্গত, পুঁজিবাজারে তারল্য প্রবাহ বাড়াতে নানা পদক্ষেপ নিয়ে আসছে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে রেপোর মাধ্যমে ধার নিয়ে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এটা ব্যাংকগুলোর জন্য ইতিবাচক না হওয়ায় সর্বশেষ বিশেষ তহবিল গঠনের সুযোগ দেয়া হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র আশা করছে এর ফলে দেশের বিদ্যমান ব্যাংকগুলো প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন করতে পারবে। এতে দীর্ঘ মেয়াদে পুঁজিবাজারে তারল্য সঙ্কট কেটে যাবে।


আরো সংবাদ