৩১ মে ২০২০

দেশে আরো দুজন করোনায় আক্রান্ত

দেশে আরো দুজন করোনা শনাক্ত, - সংগৃহীত

বাংলাদেশে আরো দু’জন করোনা আক্রান্ত পাওয়া গেছে আইইডিসিআর’র পরীক্ষায়। নতুন আক্রান্ত দুজনই পুরুষ। এদের একজন সৌদি আরব থেকে এসেছেন। আরেকজনের বিদেশে যাওয়ার ইতিহাস নেই। তিনি কোথা থেকে আক্রান্ত হয়েছেন তা অজানা। আইইডিসিআর’র অনুসন্ধানী দল তা বের করার চেষ্টা করছেন। গত ২৪ ঘন্টায় মোট ১৪০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে এর মধ্যে থেকে দু’জনের আক্রান্তের তথ্য পাওয়া গেছে। আক্রান্ত দু’জনই সুস্থ, শরীরের তেমন উপসর্গ নেই। তাদের মধ্যে কোনো জটিলতা নেই। তাদের হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ পর্যন্ত মোট এক হাজার ৬০২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৫১ জনকে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত পাওয়া গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেহে করোনার কোনো জীবাণু না পাওয়ায় আরো ছয়জন করোনা মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। এই ৬ জনের চারজন পুরুষ ও দুজন মহিলা। এদের এক জনের বয়স ৭০ বছর। চারজনের বয়স ৩০ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে এবং একজনের বয়স ৪০ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে। এদের একজন নার্স সুস্থ হয়ে গেছেন।

মঙ্গলবার নিয়মিত অনলাইন অনলাইন প্রেস বিফিংয়ে আইইডিসিআর’র পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেবিনা ফোরা। তার সাথে ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের এমআইএস’র পরিচালক ডা. মো: হাবিবুর রহমান।

ঢাকা ও ঢাকার বাইরের করোনা সন্দেহে মৃত্যু বিষয়ে জনগণের মধ্যে উদ্বেগ বেড়েছে। এ সংক্রান্ত বিষয়ে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় করোনা সেন্দহে যে মৃত্যু হয়েছে সেগুলোর নমুনা আমরা পরীক্ষা করেছি। যাদের নমুনা আমরা সংগ্রহ করতে পেরেছি তাদের কারো মধ্যে করোনা ভাইরাস পাওয়া যায়নি।

তিনি জানান, যারা সুস্থ হয়েছেন তাদের ১৪ দিন এবং এক মাসের মধ্যে আবার নমুনা পরীক্ষা করা হয় তাদের মধ্যে করোনা ভাইরাস পাওয়া যায় কি না তা দেখার জন্য। প্রেস ব্রিফিংয়ে ডা. হাবিবুর রহমান জানান, ইতোমধ্যে ঢাকায় ৭টি কেন্দ্রে এবং ঢাকার বাইরের ৩টি কেন্দ্রে কোভিড-১৯ এর নমুনা পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া আগামী ৫ এপ্রিলের মধ্যে ঢাকার মধ্যে ৩টি এবং ঢাকার বাইরে ৫টি কেন্দ্রে পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হবে। আবার আগামী ২০ এপ্রিলের মধ্যে ঢাকায় আরো ৪টি কেন্দ্রে এবং ঢাকার বাইরে ৬টি কেন্দ্রে করোনা ভাইরাস পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হবে। দেশে তখন সর্বমোট ২৮টি কেন্দ্র হবে করোনা ভাইরাস পরীক্ষার জন্য।

তিনি জানান, সরকারের কাছে ৯২ হাজার পিসিআর কিট মজুদ রয়েছে। ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে তিন লাখ ৩৪ হাজার ২৭০টি পিপিই বিতরণ করা হয়েছে। বর্তমানে সরকারের কাছে পর্যাপ্ত পিপিই মজুদ রয়েছে বলে তিনি জানান।

সেব্রিনা ফোরা বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুসারে আরো করোনা ভাইরাসের পরীক্ষা বৃদ্ধি করছি।


আরো সংবাদ