১৩ জুলাই ২০২০

বেসরকারি টিভিগুলো কি করোনাভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে?

বেসরকারি টিভিগুলো কি করোনাভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে? - ছবি : সংগৃহীত

বেসরকারি টেলিভিশন গুরো কি করোনাভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে, মনিটরিং করবে তথ্যমন্ত্রণালয়

করোনাভাইরাস নিয়ে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে ‘অপপ্রচার কিংবা গুজব’ ছড়ানো হচ্ছে কি-না, তা মনিটর করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয় ১৫ জন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দিয়েছে। এদের প্রত্যেককে আলাদা আলাদাভাবে বেসরকারি টেলিভিশন পর্যবেক্ষণের সুনির্দিষ্ট দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

এ সংক্রান্ত সরকারি আদেশে বলা হয়েছে, দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণ কোন বেসরকারি টিভি চ্যানেলে করোনাভাইরাস সম্পর্কে অপপ্রচার কিংবা গুজব প্রচার হচ্ছে মর্মে চিহ্নিত করলে তা বন্ধ করার জন্য সাথে সাথে মন্ত্রণালয়ের কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে হবে।

মঙ্গলবারে কোভিড-১৯ সংক্রমণ প্রতিহতকরণে প্রচার প্রচারণা সংক্রান্ত কমিটির প্রথম সভায় ওই কর্মকর্তাদের দায়িত্ব দেয়া হয়। তথ্য মন্ত্রণালয় সচিব কামরুন নাহার জানিয়েছেন, মানুষ যাতে সঠিক খবর পায় এজন্যই টেলিভিশন চ্যানেল মনিটর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

এটিকে নেতিবাচকভাবে নেয়ার কিছু নেই বলে তিনি মনে করেন।

যাদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে, তাদের একজন জানিয়েছেন যে গুজব বা অপপ্রচার হচ্ছে এমনটি দেখা গেলে সংশ্লিষ্ট টেলিভিশনকে সঠিক সংবাদ প্রচার করার পরামর্শ দেয়া হবে।

একেকজন কর্মকর্তাকে দুটো করে বেসরকারি টেলিভিশন মনিটর করার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তারা এসব টেলিভিশনে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত যে তথ্য প্রচার করা হয়, সেদিকে নজর রাখবেন।

সরকারি সূত্র থেকে জানা গেছে, দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তারা এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছেন। বাংলাদেশে করোনাভাইরাস নিয়ে প্রতিদিনই সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউট বা আইইডিসিআর প্রেস ব্রিফিং করা হয়। এ সময় শনাক্ত ও মৃতের সংখ্যাসহ বিভিন্ন তথ্য জানানো হয়।

এছাড়া মোট কত মানুষের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হচ্ছে তাও জানা যাচ্ছে এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে।

এক নজরে বাংলাদেশে করোনাভাইরাস: (২৬শে মার্চ পর্যন্ত)
২৬শে মার্চ নতুন করে শনাক্ত হয়েছে পাঁচজন

মোট করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত ৪৪ জন

২৪ ঘন্টায় ১২৬ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা

সর্বমোট পরীক্ষার সংখ্যা ৯২০ জন

মোট সুস্থ হয়েছেন ১১ জন

আইইডিসিআর-এর যোগাযোগের জন্য ০১৯৪৪৩৩৩২২২ অথবা ১০৬৫৫ নম্বরে যোগাযোগের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এখান থেকে হান্টিং নম্বরের মাধ্যমে অন্যান্য নম্বরে টেলিফোনটি চলে যাবে। এছাড়া ১৬২৬৩ নম্বরেও যোগাযোগ করা যাবে। সূত্র : বিবিসি


আরো সংবাদ