১৮ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১, ১১ মহররম ১৪৪৬
`

নয়াদিল্লিতে জি-২০ সম্মেলন : বিশ্ব নেতাদের সাথে যোগ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা - সংগৃহীত

নয়াদিল্লির প্রগতি ময়দানে ভারত মন্ডপম কনভেনশন সেন্টারে অনুষ্ঠিতব্য জি-২০ সম্মেলনে বিশ্ব নেতাদের সাথে যোগ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছলে তাকে স্বাগত জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

মিশর, মরিশাস, নেদারল্যান্ডস, নাইজেরিয়া, ওমান, সিঙ্গাপুর, স্পেন ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের নেতাদের সাথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

জি-২০ সংস্থাটিতে ১৯টি দেশ রয়েছে- আর্জেন্টিনা, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, কানাডা, চীন, ফ্রান্স, জার্মানি, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, ইতালি, জাপান, কোরিয়া প্রজাতন্ত্র, মেক্সিকো, রাশিয়া, সৌদি আরব, দক্ষিণ আফ্রিকা, তুর্কিয়ে, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

জি-২০ সদস্যরা বিশ্বব্যাপী জিডিপির প্রায় ৮৫ শতাংশ, যা বিশ্ব বাণিজ্যের ৭৫ শতাংশের বেশি এবং বিশ্বের দুই-তৃতীয়াংশ জনসংখ্যার প্রায় প্রতিনিধিত্ব করে।

১৯৯৯ সালে এশিয়ান আর্থিক সঙ্কটের পরে অর্থমন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নরদের বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ও আর্থিক সমস্যা নিয়ে আলোচনার জন্য জি-২০ নামে একটি ফোরাম হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

ভারতের জি-২০ প্রেসিডেন্সির প্রতিপাদ্য হলো- ‘বসুধৈব কুটুম্বকাম’ বা ‘এক পৃথিবী, একটি পরিবার, একটি ভবিষ্যত’। এটি নেয়া হয়েছে মহা উপনিষদের প্রাচীন সংস্কৃত পাঠ থেকে। মূলত, প্রতিপাদ্যটি সমস্ত জীবনের মূল্য- পৃথিবী গ্রহে মানুষ, প্রাণী, উদ্ভিদ, অণুজীব এবং বৃহত্তর মহাবিশ্বে তাদের আন্তঃসংযুক্ততাকে নিশ্চিত করে।

ধারণাটি জীবন (পরিবেশের জন্য জীবনধারা) -এর সাথে সম্পর্কিত, পরিবেশগতভাবে টেকসই এবং দায়িত্বশীল পছন্দগুলোকেও পৃথক জীবনধারার পাশাপাশি জাতীয় উন্নয়ন ও উভয় স্তরেই তুলে ধরেছে। যা বিশ্বব্যাপী রূপান্তরমূলক কর্মের দিকে পরিচালিত করে। যার ফলে একটি পরিষ্কার, সবুজ ও নীল ভবিষ্যত নিশ্চিত হয়।

জি-২০ হলো আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক সহযোগিতার প্রধান ফোরাম এবং এটি সমস্ত প্রধান আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক ইস্যুতে বৈশ্বিক স্থাপত্য এবং শাসন গঠন ও শক্তিশালীকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

১৯টি সদস্য দেশ তাই সর্বোচ্চ চারটি দেশ নিয়ে পাঁচটি গ্রুপে বিভক্ত। বেশিরভাগ গোষ্ঠী একটি আঞ্চলিক ভিত্তিতে গঠিত হয়, অর্থাৎ একই অঞ্চলের দেশগুলোকে সাধারণত একই গ্রুপে রাখা হয়। শুধুমাত্র গ্রুপ -১ (অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, সৌদি আরব এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) এবং গ্রুপ-২ (ভারত, রাশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং তুর্কিয়ে) এই কাঠামো অনুসরণ করে না।

গ্রুপ-৩ তে রয়েছে আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল এবং মেক্সিকো; গ্রুপ-৪ এর মধ্যে রয়েছে ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি এবং যুক্তরাজ্য; এবং গ্রুপ-৫ -এ রয়েছে চীন, ইন্দোনেশিয়া, জাপান এবং কোরিয়া প্রজাতন্ত্র।

২০তম সদস্য ইইউ এই আঞ্চলিক গোষ্ঠীগুলোর কোনো সদস্য নয়।

প্রতি বছর একটি ভিন্ন গ্রুপ থেকে অন্য দেশ জি-২০ প্রেসিডেন্সি গ্রহণ করে। যদিও একটি গ্রুপের দেশগুলো তাদের গ্রুপের পালা হলে প্রেসিডেন্সি গ্রহণের সমানভাবে অধিকারী।

ভারত, গ্রুপ-২ থেকে ২০২২ সালের ১ ডিসেম্বর থেকে ২০২৩ সালের ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত জি-২০-এর বর্তমান প্রেসিডেন্সি ধরে রেখেছে।

জি-২০ প্রেসিডেন্সি অন্যান্য সদস্যদের সাথে পরামর্শ করে এবং বৈশ্বিক অর্থনীতির উন্নয়নের প্রতিক্রিয়া হিসাবে জি-২০ এজেন্ডা একত্রিত করার জন্য দায়বদ্ধ। ধারাবাহিকতা নিশ্চিত করার জন্য বর্তমান প্রেসিডেন্সি সদ্য অতীত এবং পরবর্তী আয়োজক দেশগুলোর সমন্বয়ে গঠিত একটি ‘ট্রোইকা’ সমর্থিত।

ভারতের প্রেসিডেন্সির সময় জি-২০ ট্রোইকার সদস্যরা হলো- ইন্দোনেশিয়া, ভারত ও ব্রাজিল।

সদস্য দেশগুলো ছাড়াও, প্রতিটি জি-২০ প্রেসিডেন্সি অন্যান্য অতিথি দেশ এবং আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোকে (আইওএস) জি-২০ বৈঠক এবং শীর্ষ সম্মেলনে অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানায়।

জি-২০ তে ভারত আমন্ত্রণ জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংস্থা (জাতিসঙ্ঘ, আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা, বিশ্ব শ্রম সংগঠন, এফএসবি ও ওইসিডি) এবং আঞ্চলিক সংস্থাগুলোর মধ্যে (এইউ, এইউডিএ-এনইপিএডি এবং আশিয়ান চেয়ার ছাড়াও আইএসএ, সিডিআরআই এবং এডিবি-কে আমন্ত্রণ জানিয়েছে।

শীর্ষ সম্মেলনে জি-২০ নেতারা অন্যগুলোর মধ্যে ডিজিটাল রূপান্তর, জলবায়ু অর্থায়ন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি), খাদ্য নিরাপত্তা, বহুপক্ষীয় উন্নয়ন ব্যাংক, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের অর্থনৈতিক ও সামাজিক প্রভাব এবং সক্ষমতা বৃদ্ধিসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশ্বিক সমস্যা নিয়ে আলোচনা ও সমাধান খুঁজে বের করবেন।

নয়াদিল্লিতে এই অনুষ্ঠানে যোগদানকারী বিশ্ব নেতারা হলেন- মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্র, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইউন সুক ইওল, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান, আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ, নাইজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট বোলা টিনুবু, চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কিয়াং, ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক, অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যান্থনি অ্যালবানিজ, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো, জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ স্কোলজ, জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা, সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান, দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা প্রমুখ।

সামিটের ফাঁকে শেখ হাসিনা সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স ও প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন সালমান বিন আবদুল আজিজ, সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) প্রেসিডেন্ট শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ান, রিপাবলিক কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইউন সুক ইওল এবং আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো অ্যাঞ্জেল ফার্নান্দেজের সাথে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের সময়সূচিও রেখেছেন।
সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ



premium cement
‘যুদ্ধ শুরু হলে নিশ্চিতভাবে লেবানন হবে ইসরাইলের জন্য দোযখ’ ট্রাম্পকে হত্যাচেষ্টার ছবি যেভাবে নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে পারে? ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান ইরানের কোটাবিরোধী আন্দোলনে রক্তাক্ত সহিংসতায় চট্টগ্রামে ৪ মামলা শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার আহবান পুলিশ সদর দফতরের কোটা আন্দোলনকারী ৬ শিক্ষার্থী হত্যার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম খাগড়াছড়িতে গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে শিশু নিহত, আহত মা ক্যাম্পাসে রাজনীতি নিষিদ্ধসহ শিক্ষার্থীদের ৬ দফা দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাস জবি প্রশাসনের ছাত্রলীগ ও প্রশাসনের সাঁড়াশি অভিযান, ছাত্রশিবিরের তীব্র নিন্দা জাফর ইকবালের বই পুড়িয়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ কোটা আন্দোলনে নিহতদের নাম বুকে লিখে তাজিয়ার আদলে প্রতিবাদী মিছিল

সকল