০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯, ৭ জিলহজ ১৪৪৩
`

আইপিইএফ নিয়ে ঢাকার সাথে যোগাযোগ করছে ওয়াশিংটন : মার্কিন মুখপাত্র

আইপিইএফ নিয়ে ঢাকার সাথে যোগাযোগ করছে ওয়াশিংটন : মার্কিন মুখপাত্র -

সদ্য আত্মপ্রকাশ করা অর্থনৈতিক জোট ইন্দো-প্যাসিফিক ইকোনমিক ফ্রেমওয়ার্ক (আইপিইএফ) নিয়ে বাংলাদেশের সাথে মতবিনিময় অব্যাহত রাখতে উন্মুখ বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

সোমবার মার্কিন দূতাবাসের ভারপ্রাপ্ত মুখপাত্র ব্রায়ান শিলার গণমাধ্যমকে বলেছেন, বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক অংশীদার।

শিলার বলেন, মার্চে অংশীদারিত্ব সংলাপের পর থেকে ঢাকা ও ওয়াশিংটনে নিয়মিত বিরতিতে আইপিইএফ সম্পর্কে বাংলাদেশের সাথে যোগাযোগ করছে।

তিনি জানান, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ডিজিটাল অর্থনীতি, ক্লিন এনার্জি ট্রানজিশন এবং সাপ্লাই চেইন স্থিতিস্থাপকতাসহ ২১ শতকের অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে চায়।

অর্থনীতিকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সোমবার ১২টি ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশের সাথে একটি নতুন অর্থনৈতিক চুক্তি করেছেন।

বাইডেনের ইন্দো-প্যাসিফিক ইকোনমিক ফ্রেমওয়ার্ক একটি নতুন বাণিজ্য চুক্তি। যা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে মার্কিন উপস্থিতির জানান দেয়ার জন্য এবং মহামারী ও রাশিয়ার ইউক্রেন আক্রমণের কারণে সৃষ্ট বাণিজ্যিক অস্থিতিশীলতা মোকাবেলায় তার প্রশাসনের পক্ষ থেকে সম্পাদন করা হয়েছে।

ইন্দো-প্যাসিফিক ইকোনমিক ফ্রেমওয়ার্কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে যোগদানকারী দেশগুলো হলো- অস্ট্রেলিয়া, ব্রুনাই, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, মালয়েশিয়া, নিউজিল্যান্ড, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনাম। বাইডেন সরকারের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত এ জোটের হাতে থাকছে বিশ্বের ৪০ শতাংশ জিডিপি।

দেশগুলো একটি যৌথ বিবৃতিতে বলেছে, করোনাভাইরাস মহামারী এবং ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের কারণে সৃষ্ট অস্থিতিশীলতার পরে এই চুক্তিটি সম্মিলিতভাবে তাদের ‘অর্থনীতিকে ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুত করতে’ সাহায্য করবে।
সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ


premium cement