০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ৪ জিলহজ ১৪৪৩
`

যুক্তরাষ্ট্রের আরোপ করা বিধি-নিষেধ প্রত্যাহারে বাংলাদেশের তৎপরতা

যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটনে অবস্থানরত মার্কিন নীতি বিশ্লেষক প্রশান্ত পরমেশ্বরণ বাংলাদেশের নিষেধাজ্ঞা এবং এটা প্রত্যাহারের ব্যাপারটি মার্কিন স্বার্থ ও ভূরাজনৈতিক জটিল সমীকরণের অংশ হিসেবে দেখছেন - ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশের র‍্যাব ও নিরাপত্তা বাহিনীর বর্তমান ও সাবেক কয়েকজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার সময় সাপেক্ষ ও জটিল হবে ধারণা করছেন মার্কিন পররাষ্ট্র নীতি বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, মানবাধিকার লঙ্ঘন ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে সামনে রেখে দেয়া এ বিধি-নিষেধ প্রত্যাহারে বাংলাদেশ সরকারের নানামুখী তৎপরতা চালাতে হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটনে অবস্থানরত মার্কিন নীতি বিশ্লেষক প্রশান্ত পরমেশ্বরণ বাংলাদেশের নিষেধাজ্ঞা এবং এটা প্রত্যাহারের ব্যাপারটি মার্কিন স্বার্থ ও ভূরাজনৈতিক জটিল সমীকরণের অংশ হিসেবে দেখছেন।

তিনি বলেন, ‘বিধি-নিষেধ আরোপ সহজ হলেও এটা প্রত্যাহার বেশ কঠিন - বিশেষ করে ট্রেজারি যখন সুনির্দিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে মনোনীত করে দেয়।’

পরমেশ্বর বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা আচরণের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার অর্থ - এটা মোকাবেলার জন্য নির্দিষ্ট কিছু পদক্ষেপ লাগবে। এছাড়া আমার সন্দেহ, যেহেতু আরো কিছু দেশের সাথে একসাথে এ নিষেধাজ্ঞা এসেছে, তাই এটা অন্যান্য দেশের সাথে একত্রে পর্যালোচনা করতে হবে। আমি মনে করি, এটা হলো বড় চ্যালেঞ্জ।’

নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে লবিস্ট নিয়োগ

মার্কিন নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি পুঁজি করে বাংলাদেশে সরকারবিরোধীরা জনমত গড়ে তুলতে চাইছে। অন্যদিকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে তৎপর হয়েছে সরকার।

নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহ্যারের পদক্ষেপ এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রকে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ। প্রয়োজনে সেখানে লবিস্ট নিয়োগেরও পরামর্শ দেয়ার খবর বেরিয়েছে।

সাবেক আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক প্রত্যাহার প্রক্রিয়া সম্পর্কে বলেন, ‘নিশ্চয়ই মার্কিন সরকারকে কনভিন্স করা হয়েছে। কাজেই যে তথ্যের ভিত্তিতে দিয়েছে ওই তথ্য যতটুকু আছে সেটা কতটুকু সত্য কতটুকু মিথ্যা বা সঠিক কি সঠিক না এ ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকে একটা বক্তব্য যাবে।’

‘এছাড়া আমেরিকাতে লবিস্ট নিয়োগের একটা কালচার আছে, ওই লবিস্ট নিয়োগ করে মার্কিন সরকারকে বুঝাতে হবে। আর ব্যক্তিদের ওপরে যে নিষেধাজ্ঞা তা প্রত্যাহার চেয়ে মার্কিন সরকারের কাছে আপিল করতে হবে।’

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন ও বিরোধীদলের রাজনীতির অনেক সমর্থক ও শুভাকাঙ্খী রয়েছে। উভয় দলের পক্ষে মার্কিন প্রশাসনকে প্রভাবিত করতে লবিস্ট নিয়োগের কথাও শোনা যায়। সরকার বিরোধীরা বক্তব্য দিচ্ছেন এরকম আরো নিষেধাজ্ঞা আসবে।

মার্কিন নিষেধাজ্ঞার আরোপ কিংবা প্রত্যাহার করতে লবিং কতটা কাজ করছে, তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করছেন যুক্তরাষ্ট্র অবস্থানরত বিশ্লেষক ড. সাঈদ ইফতেখার আহমেদ।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতি ও আন্তর্জাতিক নীতি নির্ধারণের বিষয়ে পর্যবেক্ষণ থেকে তিনি বলেন, যে আদর্শিক ও কৌশলগত অবস্থান থেকে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা এসেছে, সেখানে লবিস্ট নিয়োগ করে বাইডেন প্রশাসনকে প্রভাবিত করা কোনো পক্ষের জন্যই সহজ কাজ হবে না।


তার ভাষায়, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পররাষ্ট্রনীতি নিয়ে আমার যে দীর্ঘ অবজারভেশন সেখানে মনে হয়েছে লবিস্টদের বক্তব্যের ওপর ভিত্তি করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার পররাষ্ট্র নীতির সিদ্ধান্ত নেয়নি। বরং লবিস্টদের দ্বারা যে জিনিসটা হয়েছে যে আপনার যে কনসার্নটা এখানকার রাজনীতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক অবস্থাটা সম্পর্কে একটা ব্রিফ তাদের কাছে যাচ্ছে। এর বাইরে খুব বড় দাগে কোনো পরিবর্তন বা পরিবর্ধন হয় বা হবে বলে আমার কাছে কখনোই মনে হয়নি।’

বাংলাদেশের সামনের পথ কেমন হবে

এদিকে বাংলাদেশে যে ধরনের নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে তা প্রত্যাহারে করণীয় কী হবে - তা নিয়েও রয়েছে আগ্রহ।

এ অঞ্চলের ভূরাজনীতি ও বাইডেন প্রশাসনে নীতিগত অবস্থানের দিকটি তুলে ধরে প্রশান্ত পরমেশ্বরণ বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সহযোগিতা ও সম্পর্ক উন্নয়নই হবে একটা বড় উপায়।

‘বহুমুখী পন্থা কাজ করবে। প্রথমত যেহেতু সুনির্দিষ্ট আচরণকে তুলে ধরা হয়েছে, তার সংশোধন বা সামধান করতে হবে। একইভাবে বৃহত্তর কৌশলগত তাৎপর্যটি খতিয়ে দেখতে হবে যে কেন এটা করা হলো।’

তার মতে, ‘এশীয় প্রশান্ত অঞ্চলে বাইডেন প্রশাসনের পররাষ্ট্র নীতির অগ্রাধিকার কী - সেখানে বাংলাদেশকে ভূমিকা রাখতে হবে। বিশেষ করে চীনের ব্যাপারে। আঞ্চলিক সহযোগিতা, জলবায়ু পরিবর্তন, জ্বালানি খাতে সহযোগিতার মত বহু বিষয় বাইডেন প্রশাসন আলোচনার টেবিলে আছে যা নিয়ে বাংলাদেশের ইতিবাচক ভূমিকা রাখার ব্যাপার আছে।’

অন্যদিকে ড. সাঈদ ইফতেখার আহমেদ বলছেন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে এখন দক্ষ কূটনীতিই ভরসা।

তিনি বলেন, ‘স্ট্রিকট কোনো রুল নেই যে ঠিক এটা এটা করলে প্রত্যাহার হবে বা এটা হলে প্রত্যাহার হবে না। বিষয়টা অনেকটা সেরকম নয়। সুতরাং, নির্ভর করছে যে বাংলাদেশ কতটা কূটনীতিক তৎপরতা যুক্তরাষ্ট্রের সাথে চালাতে পারছে এবং বাংলাদেশ তার অবস্থান থেকে কতটা নেগোশিয়েট করতে পেরেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে ওই কূটনৈতিক তৎপরতার ওপর নির্ভর করছে আগামী দিনে এ ধরনের নিষেধাজ্ঞার ভবিষ্যৎ।

ইফতেখার আহমেদ বলেন, ‘আগামী দিনে নিষেধাজ্ঞা কি বলবৎ থাকে না সেটা পরিধি বৃদ্ধি পাবে না কমবে -তা পুরোটাই নির্ভর করছে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কূটনৈতিক দক্ষতার ওপর।’


মার্কিন নিষেধাজ্ঞার পর কথিত বন্দুকযুদ্ধে কেউ মারা যায়নি

বাংলাদেশে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা এসেছে বিশেষ বাহিনী র‍্যাব ও তার কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে। দেখা যাচ্ছে, মার্কিন নিষেধাজ্ঞার পর এক মাসে দেশে কেউ বন্দুকযুদ্ধে মরেনি।

মানবাধিকার পরিস্থিতি উন্নয়নকেও গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। এ বাস্তবতায় র‍্যাবের কার্যক্রমে একটা সংস্কারের সুযোগ আছে বলেও মনে করেন সাবেক আইজিপি শহীদুল হক। তিনি বলেন, ‘সংস্কার করতে হলে বেপরোয়াভাবে যেন কিছু না হয়। সবকিছু কন্ট্রোলের মধ্যে রাখতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘আপনি গুলি করবেন এনকাউন্টার, আপনি বিপদে পড়েছেন, দুস্কৃতিকারীরা আপনাকে হামলা করছে সেক্ষেত্রে ব্রাশ ফায়ার করে মানুষ মারতে থাকলে তো হবে না। আপনাকে বাঁচানোর জন্য যতটুকু করার দরকার অতটুকুই করতে হবে। এ সংস্কারটা আনতে হবে।’

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি বাংলাদেশের রাজনীতিকে প্রভাবিত করেছে।

অবিলম্বে এ সমস্যার সমাধানে সরকারের চেষ্টা থাকলেও তা কিভাবে সম্ভবপর হবে - সেদিকে এখন দৃষ্টি সবার।

সূত্র : বিবিসি


আরো সংবাদ


premium cement