১৩ মে ২০২১
`

‘ইউরোপের নাম আমাদের পাগল করেছে’


এভাবেই নিজের দুর্দশার কথা জানাচ্ছিলেন বসনিয়ায় আটকে পড়া এক বাংলাদেশী অভিবাসনপ্রত্যাশী৷ কেউ যেন এভাবে বিদেশ আসার চিন্তাও না করে, এমন আহ্বান বসনিয়ার উদ্বাস্তুদের।

বসনিয়া-ক্রোয়েশিয়া সীমান্তে আটকে পড়া শত শত বাংলাদেশী অভিবাসনপ্রত্যাশী উদ্বাস্তুরা তুলে ধরেছেন নিজেদের দুঃখের কথা৷

প্রায় প্রতিদিনই দালালদের মাধ্যমে বসনিয়া-ক্রোয়েশিয়া সীমান্ত পাড়ি দেয়ার জন্য দলে দলে রওয়ানা হন বসনিয়ায় থাকা বিভিন্ন দেশের উদ্বাস্তুরা৷ তারা একে বলেন, ‘গেম মারা’৷ কখনও পায়ে হেঁটে, কখনও বাসে চড়ে, কখনও ট্যাক্সিতে তাদেরকে দালালেরা সীমান্তের আশেপাশে নিয়ে নামিয়ে দেন৷ এরপর তাদের জঙ্গলের মধ্য দিয়ে মাইলের পর মাইল পায়ে হেঁটে সীমান্ত পাড়ি দিতে হয়৷

অলিউর রহমান ১৩ তম বারের মতো চেষ্টা করছেন সীমান্ত পাড়ি দেয়ার৷ বুশি নামের এক দালালের মাধ্যমে বাসে চড়ে তিনি যাবেন ক্রোয়েশিয়া সীমান্তের পাশে কোনো এক জায়গায়৷ সেখান থেকে দুই দিন হেঁটে তারপর তারা পৌঁছাবেন সীমান্তে৷ অলিউর জানান, এরই মধ্যে তিনি দুইবার ক্রোয়েশিয়া পেরিয়ে স্লোভেনিয়াতে পৌঁছালেও, সেখানে ধরা পড়ে আবার ফেরত এসেছেন৷ ফেরত আসার পথে তাকে শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি৷

কিন্তু তারপরও কেন আবার একই পথে সীমান্ত পাড়ি দেয়ার চেষ্টা করছেন, এমন প্রশ্নের জবাবে অলিউর বলেন,‘এই গেমের জন্য অনেক টাকা খরচ হয়ে গেছে, প্রায় চার লক্ষ টাকা৷ এজন্য যেতেই হবে৷’

সবার অবস্থা অবশ্য একরকম না৷ অনেকেই এখন ফেরত যাওয়ার ইচ্ছাও মনে মনে প্রকাশ করছেন৷ কিন্তু এরই মধ্যে প্রায় প্রত্যেকেরই খরচ হয়েছে বড় অঙ্কের টাকা৷

বসনিয়ার ভেলিকা ক্লাদুসাতে আটকেপড়াদের বেশিরভাগই বসনিয়া এসেছেন মধ্যপ্রাচ্য থেকে ইরান, তুরস্ক, গ্রিস, মেসিডোনিয়া, সার্বিয়া হয়ে৷ অনেকেরই এরই মধ্যে খরচ হয়ে গেছে ১৫-২০ লাখ টাকা৷ কেউ কেউ ভিটে-মাটি বিক্রি বা বন্ধক রেখেও টাকা এনেছেন৷ ফলে দেশে ফিরে এখন চাকরি বা ব্যবসা করে সে ঋণ শোধ করা সম্ভব না বলেও মনে করছেন তারা৷

সিলেটের ছাতক থেকে আসা সাইফুর রহমান জানান, তার বন্ধুরা এর আগে বেশ কয়েকবার ‘গেমে গিয়ে’ ব্যর্থ হয়েছেন, এবং বাজেভাবে আহত হয়ে এখন চিকিৎসা নিচ্ছেন৷ তিনি বলেন,‘ইউরোপের নামটাই আসলে আমাদের পাগল করেছে, তাই এই পর্যন্ত আসা৷’

এখন বাংলাদেশে ফেরত যাবেন কিনা, এমন প্রশ্নের উত্তরে সাইফুর বলেন,‘আমার এখন পর্যন্ত ১৫ লাখ টাকা খরচ হয়েছে৷ কেউ যদি আমাকে বলে ১০ লাখ টাকা দিয়ে আমার জায়গায় আসবে, আমি পাঁচ লাখ টাকা লস দিয়ে হলেও দেশে চলে যাবো৷’

যারা বাংলাদেশ বা অন্য যেকোন জায়গায় মোটামুটি পরিবার চালানোর মতো অর্থ উপার্জন করতে পারছেন, তারা যেন ভুলেও এই পথে ইউরোপ যাওয়ার জন্য না আসেন, সে অনুরোধও জানিয়েছেন সাইফুর৷ সূত্র : ডয়চে ভেলে



আরো সংবাদ


করোনাভাইরাস : ভারতে ভ্যাকসিনেশন অভিযান চরম সঙ্কটে, দিল্লিতে শতাধিক সেন্টার বন্ধ ঈদে কেনাকাটা করতে না পারায় ছাত্রীর আত্মহত্যা দুস্থদের মাঝে সাংবাদিক তৌহিদের ঈদ সামগ্রী বিতরণ প্রধানমন্ত্রী কাল জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সঙ্কট : সহিংসতা চরমে, যুদ্ধের আশঙ্কা ওসমানীনগরে বসত ঘরে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ ঈদের দিন সকালে জিয়ার মাজার জিয়ারত করবে স্থায়ী কমিটি ঈদযাত্রায় প্রাণ গেলো স্কুলশিক্ষিকার মসজিদে মসজিদে ইতিকাফকারীদের ঈদ সামগ্রী পৌঁছে দিলেন কাউন্সিলর খোরশেদ ভারতে হিসেবেই ধরা হচ্ছে না যেসব মৃত্যু সরকার সারাদেশে ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করেছে : মির্জা ফখরুল

সকল