০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ৪ জিলহজ ১৪৪৩
`

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নজরুল চর্চা

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নজরুল চর্চা -

[গত সংখ্যার পর]

১৯২১ সালের ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে মধ্য কলকাতার নিউমার্কেট সংলগ্ন ৩/৪সি তালতলা লেনের একটি বাড়িতে বসে কাঠ পেন্সিলে কবিতাটি লিখেন কাজী নজরুল ইসলাম।
প্রথম প্রকাশ প্রসঙ্গে তৎকালীন কবি খান মুহম্মদ মঈনুদ্দিন লিখেছেন, মনে আছে, সেদিন আমাদের তরুণ মনে কী আবেগ, উন্মাদনা জেগেছিল! সারা বাংলা যেন আনন্দে, উত্তেজনায় চঞ্চল হয়ে উঠেছিল। পথে, ঘাটে, রেস্তোরাঁয়, চায়ের বৈঠকে শুধু এ কবিতারই আলোচনা চলছিল।
তরুণ সমাজ তো বিদ্রোহীর ভাষায় বাক্যালাপ শুরু করে দিলো। যুবসমাজের আড্ডায় বা রাস্তায় একে অপরের সঙ্গে দেখা হলে কবিতার কোনো একটি লাইন আউড়ে সম্বোধন করছে। আমি চেঙ্গিস, আমি আপনারে ছাড়া করি না কাহারে কুর্নিশ। আরেকজন বলছে, আমি চির-বিদ্রোহী বীর, বিশ্ব ছাড়ায়ে উঠিয়াছি একা চির-উন্নত শির।
এই মহান পুরুষের জন্ম ১৮৯৯ সালের ২৫ মে, ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বর্ধমান জেলার চুরুলিয়া গ্রামে। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিশেষ প্রচেষ্টায় ১৯৭২ সালের ২৪ মে কবিকে পশ্চিমবঙ্গ থেকে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। সপরিবারে থাকার জন্য ধানমন্ডি আবাসিক এলাকার পুরনো ২৮ নং রোডের ৩৩০/বি বাড়িটি বরাদ্দ করা হয়। বাড়ির নামকরণ হয় ‘কবিভবন’।
১৯৭৬ সালের জানুয়ারি মাসে সরকারি ভাবে কাজী নজরুল ইসলামকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব প্রদান করা হয়। পরের মাসেই তিনি দেশের শ্রেষ্ঠ স্বর্ণপদক ‘একুশে পদক’ সম্মানে ভূষিত হন।

 


৭৭ বছর বয়সে ১৯৭৬ সালের ২৯ আগস্ট রোববার সকাল ১০টা ১০ মিনিটে ঢাকার পিজি হাসপাতালে কবি নজরুল শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। বাংলাদেশের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের উপস্থিতিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মসজিদ সংলগ্ন কবরে তাকে সমাহিত করা হয়। ইন্তেকালের পরের বছর ১৯৭৭ সালে তাকে বাংলাদেশের জাতীয় কবির সম্মান প্রদান করা হয়।
বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে দ্রোহী কবি নজরুল সম্পর্কে যে গবেষণা চলছে তার অনেক কিছু জমা হচ্ছে ব্রিটিশ মিউজিয়ামে। শিল্পকর্ম, প্রতœসামগ্রী ও কারুপণ্যের সংগ্রহ ও প্রদর্শনীর বিচারে বিশ্বের প্রধানতম সংগ্রহশালা হচ্ছে ব্রিটিশ মিউজিয়াম। কবি নজরুলকে বাঙালি সাহিত্যিক এবং বাংলাদেশের জাতীয় কবি হিসেবে সবচেয়ে বেশি স্মরণীয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে মিউজিয়ামের নিজস্ব ওয়েবসাইটে।
বিলেতে কবি নজরুল সেন্টার বেশ সমৃদ্ধ শিল্প ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। এটি ইস্ট লন্ডনে প্রবাসী বাংলাদেশীদের মিলনস্থল ব্রিকলেন স্পিটালফিল্ডে অবস্থিত। ১৯৮২ সাল থেকে এখানে নজরুল চর্চার পাশাপাশি নিয়মিত বাংলা শিল্পকলার প্রচার, পারফর্মিংও প্রদর্শনী হয়।
আমাদের জাতীয় কবিকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য লন্ডনে স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। নজরুল স্কুল জনমনে বিশেষ করে শিশুদের মাঝে কবি নজরুল সম্পর্কে আগ্রহ জন্মায়।
২০০২ সাল থেকে সংলাপ সাহিত্য-সংস্কৃতি ফ্রন্ট কবি নজরুলকে নিয়ে লন্ডনে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে দেশী-বিদেশী সাহিত্যিক-সাংবাদিকসহ সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অনেকে অংশগ্রহণ করেন। অনুভবে নজরুল শিরোনামে অনুষ্ঠানে বক্তারা কবির লেখা থেকে নিজেদের অনুভূতি প্রকাশ করেন। কবিকে ব্যাপকভাবে বিশ্বময় পৌঁছে দেয়ার ব্রত নিয়ে কাজ করছে সংলাপ ফ্রন্ট। গত ১৪ নভেম্বর ২০২১, রোববার পূর্ব লন্ডনের রিচ মিক্স সেন্টারে টিএস এলিয়টের ওয়েস্ট ল্যান্ড এবং কাজী নজরুল ইসলামের বিদ্রোহী মঞ্চস্থ হয়। বিশ শতকের দুটি কালজয়ী সাহিত্যকর্মের ওপর ভিত্তি করে দ্য রেবেল অ্যান্ড দ্য ওয়েস্ট ল্যান্ড নামক অনন্য নাট্য প্রযোজনা হাউসফুল দর্শকদের প্রশংসা কুড়িয়েছে।
টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল কর্তৃক FREEDOM AND INDEPENDENCE থিয়েটার উৎসবের অংশ হিসেবে যুক্তরাজ্যের একটি শীর্ষস্থানীয় বৈশ্বিক সাহিত্য ও সঙ্গীত প্ল্যাটফর্ম ‘সওধা সোসাইটি অব পোয়েট্রি অ্যান্ড ইন্ডিয়ান মিউজিক’ কর্তৃক আয়োজিত ও মঞ্চস্থ হয়। এশিয়া ও ইউরোপের শ্রোতাদের মিশ্রণে একাডেমিক এবং সাধারণ শিল্পপ্রেমীরা অংশগ্রহণ করেন। উপস্থিত দর্শকদের মতে, এটা অবশ্যই স্মরণীয় এবং সমানভাবে শিক্ষামূলক অভিজ্ঞতা। কেম্যান আইল্যান্ডের প্রাক্তন গভর্নর শীর্ষ ব্রিটিশ কূটনীতিক আনোয়ার চৌধুরী বলেন, এই প্রযোজনা দু’টি ভিন্ন অভিব্যক্তির মাধ্যমে শান্তির দু’টি বিস্ময়কর ব্যাখ্যা, যা আমার উপলব্ধিতে প্রশান্তি এনে দিয়েছে। প্রযোজনা পরিচালক ও সওধার প্রতিষ্ঠাতা কবি আহমদ কায়সার বলেন, আমরা যেভাবে দু’টি প্রধান কাজকে কাঠামোগত এবং দার্শনিকভাবে মিশ্রিত করেছি, তা দর্শকরা পছন্দ করেছেন। এটি এখন বাংলাদেশ, ভারত এবং ইউরোপের আরো কয়েকটি শহরে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি চলছে।

 


লন্ডনে সাহিত্য-সাংস্কৃতিক সংগঠন দ্য টেগোরিয়ান্স কবি নজরুলকে নিয়ে চমৎকার তথ্যচিত্র করেছে ২০১৭ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর। তারও আগে ১৯৯৯ সালে অত্যন্ত নান্দনিকতার সাথে নজরুলের জন্মশতবার্ষিকী পালন করেছে। তারা মূলত কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জীবনদর্শনে বিশ্বাসী এবং সাহিত্য, সঙ্গীত ও শিল্পের বিভিন্ন ক্ষেত্রে তার সৃজনশীলতা থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে কাজ করে। ১৯৬৫ সালে প্রয়াত তপন গুপ্ত এই সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেছেন।
খ্যাতিমান লেখক শ্রীময়ী ভট্টাচার্য কবি নজরুলকে নিয়ে দুই ঘণ্টার একটি ডকুমেন্টারি ফিল্ম বানিয়েছেন ২০১৪ সালে। ২০১৭ সালে এটির প্রথম প্রিমিয়ার শো অনুষ্ঠিত হয় লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ে। একই বছর তা কলকাতা ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে প্রদর্শিত হয়ে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে। শ্রীময়ী ভট্টাচার্য বলেন, নজরুলের প্রতিটি দিককে স্পর্শ করবে এমন কোনো তথ্যচিত্র ছিল না। ১৯৬৮ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকার সেলুলয়েড ‘নজরুল’ নিয়ে একটি চলচ্চিত্র তৈরি করেছিল, যা আর পাওয়া যায় না। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নিয়ে কাজ করার পর নজরুলের মতো বৈচিত্র্যময় ব্যক্তিত্বকে আরো ভালোভাবে জানার গুরুত্ব আমি উপলব্ধি করেছি। কবিতা, সঙ্গীত ও সাংবাদিকতার মাধ্যমে ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে নজরুলের অবদান অকল্পনীয়। কাজী নজরুল ইসলামকে আমরা ‘বিদ্রোহী কবি’ বলে থাকি। আমার ডকুমেন্টারির মাধ্যমে আমি সঙ্গীতের দৃশ্যপটে তার অবদানকেও স্পর্শ করেছি। তিনি গান লিখতেন। থিয়েটার, চলচ্চিত্র এমনকি প্রশিক্ষিত শিল্পীদের জন্য সুর তৈরি করতেন। অল ইন্ডিয়া রেডিওতে ‘হারমনি’ অনুষ্ঠানের জন্য তিনি পুরনো রাগগুলিকে পুনরুজ্জীবিত করেছিলেন। লন্ডনের সোয়াস বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশ গুরুত্বের সাথে নজরুল চর্চা হয়। বাংলার বিদ্রোহী কবি : নজরুল ইসলাম শিরোনামে অনেক তথ্যবহুল লেখা তাদের ওয়েবসাইটে রয়েছে। স্কুল অব ওরিয়েন্টাল অ্যান্ড আফ্রিকান স্টাডিজ এশিয়া, আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যের মানুষের অধ্যয়নের জন্য বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয়। এখানে MULOSIGE - Multilingual Locals and Significant Geographies নামে ইউরোপীয় রিসার্চ কাউন্সিলের অর্থায়নকৃত গবেষণা প্রকল্পের নেতৃত্বে রয়েছেন অধ্যাপক ফ্রান্সেসকা ওরসিনি। MULOSIGE প্রকল্পে বিশ্বসাহিত্যে নতুন দৃষ্টিভঙ্গির জন্য অসংখ্য লেখা অন্বেষণ করে বহুভাষিক সমাজের সামনে উপস্থাপন করা হয়। কবি নজরুলের লেখা এতে বিশেষ ভাবে স্থান পেয়েছে। এই প্রকল্পের অংশ হিসেবে বিশ্বসাহিত্যেরে উপাদান বিবেচনায় সুলেখক মরিয়ম ইরাজ নজরুল সম্পর্কে উর্দু সাহিত্যের অনেক মূল্যবান লেখা ইংরেজিতে অনুবাদ করেছেন।
বিশ্বের বিভিন্ন কবির কবিতা নিয়ে কাজ করে পয়েম হান্টার কবি নজরুলের অনেক কবিতা তারা ইংরেজিতে অনুবাদ করে পাঠকের হাতে তুলে দিয়েছে।
সুইডেনে কবি নজরুলকে নিয়ে অনুষ্ঠান ও লেখালেখি চোখে পড়ার মতো। বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের স্মৃতিচারণ তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য। এশিয়ান ট্রিবিউন থেকে নিয়ে এইচটি ডিজিটাল কন্টেন্ট সার্ভিসেস এটা প্রকাশ করেছে।

 


ইংরেজি সাহিত্যের কবি জর্জ গর্ডন লর্ড বায়রন ও আমাদের জাতীয় কবি নজরুল ইসলাম সম্পর্কে BYRON AND NAZRUL AS POET শিরোনামে ১৭ জুন ২০২১ তারিখে দৈনিক সান পত্রিকায় লেখাটি বেশ পাঠকপ্রিয়তা লাভ করেছে। এই লেখা ইউরোপের কয়েকটি অনলাইন মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে। ব্রিটানিয়া ইউনিভার্সিটির সাবেক ভিসি অধ্যাপক এম মতিউর রহমান লেখাটি সম্পর্কে বলেন, আমি যে শিরোনামে লিখেছি, তা দুই কবির মধ্যে তুলনামূলক বিশ্লেষণের একটি অংশ। সাধারণভাবে বলতে গেলে আমরা জানি, কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্যের কবি এবং জর্জ গর্ডন লর্ড বায়রন ইংরেজি সাহিত্যের কবি। নিখুঁত বিশ্লেষণের জন্য কবি হিসেবে তাদের মধ্যে মিল এবং অমিলগুলো তুলে ধরতে চেষ্টা করেছি।
ইউরোপিয়ান আমেরিকান জার্নালে কাজী নজরুল ইসলাম এবং তার বিদ্রোহী কবিতার ওপর একটি গবেষণা রয়েছে। THE COMPULSIVE VOICE OF DECOLONIZATION : A STUDY ON KAZI NAZRUL ISLAM AND HIS REBELLIOUS POEMS শিরোনামে লেখাটি পাঠক মহলে বেশ সাড়া জাগিয়েছে। লেখক তানজিন সুলতানার মতে, অন্য দেশ দ্বারা দখল ও নিয়ন্ত্রিত একটি দেশের স্বাধীনতা পুনরুদ্ধার করা ও নিজস্ব সংস্কৃতি গড়ে তোলা সহজ নয়। আফ্রিকা এবং এশিয়ার ইউরোপীয় উপনিবেশগুলোকে মুক্ত করার সঙ্কল্প বিংশ শতাব্দীতে একটি উল্লেখযোগ্য ঐতিহাসিক প্রক্রিয়া। ব্রিটিশ উপনিবেশের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার জন্য ভারতীয় উপমহাদেশে বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের নাম বেশ প্রাসঙ্গিক। তার কবিতা ও সাংবাদিকতার সবচেয়ে অসামান্য দিক হলো অগ্নিস্ফুলিঙ্গ। তিনি জানেন ঔপনিবেশিকদের শোষণ বন্ধ করতে হলে সাম্রাজ্যবাদের শক্তিকে উৎখাত করতে হবে। নিপীড়িত জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। বিদ্রোহী কবিতার মাধ্যমে তিনি পশ্চিমা উপনিবেশ থেকে নিজের ভূখণ্ড, সংস্কৃতি এবং মানুষের মন-স্বাধীন করতে চেয়েছেন।
যুক্তরাজ্যের DISABILITY ARTS ONLINE নজরুল সম্পর্কে লেখাসমূহ গুরুত্বের সাথে প্রচার করে। এই লিংকে সংযুক্ত লেখায় দেবযানী চ্যাটার্জি একজন কবি হিসেবে তার জীবন এবং কর্মজীবনে নজরুলের কবিতার প্রভাবের বিবরণ দিয়েছেন, যা দু’টি মহাদেশের মধ্যে সেতুবন্ধ তৈরি করে। তার মতে, কাজী নজরুল ইসলাম ছিলেন একজন বাঙালি বহুভাষী লেখক, সঙ্গীতজ্ঞ এবং বিপ্লবী। ‘নজরুল’ নামে জনপ্রিয়, তার কবিতা ও সঙ্গীত ফ্যাসিবাদ ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে ইন্দো-ইসলামিক নবজাগরণ এবং তীব্র আধ্যাত্মিকতায় পূর্ণ। নজরুল হলেন একজন মহান সাহিত্যিক, কবি, নাট্যকার, প্রাবন্ধিক, ঔপন্যাসিক, সাংবাদিক, গায়ক, অভিনেতা, সৈনিক এবং বিপ্লবী। তিনি ছিলেন বিশ্বের সবচেয়ে প্রসিদ্ধ গীতিকার-সুরকার। তার সবচেয়ে ফলপ্রসূ কিছু বছর অল ইন্ডিয়া রেডিওতে কাজ করেছেন। তিনি নারী, যুবক, প্রতিবন্ধী, দরিদ্র এবং নির্যাতিত সকলের জন্য হিন্দু-মুসলিম সংহতি এবং সমতাকে চ্যাম্পিয়ন করেছেন।
[চলবে]

 


আরো সংবাদ


premium cement