২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ন ১৪২৮, ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি
`
সর্বশেষ সাক্ষাৎকার

নোবেল জয়ী আবদুল রাজাক গুরনাহর

নোবেল জয়ী আবদুল রাজাক গুরনাহর -

[সাহিত্যে সারা বিশ্বে তিনটি পুরস্কার অত্যন্ত মর্যাদার : নোবেল, পুলিৎজার ও ম্যান বুকার। তবে নোবেল পুরস্কার নিয়ে সবচেয়ে বেশি হইচই হয় পাঠক ও সাধারণ মহলে। এ বছর (২০২১) সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার ঘোষণার ক্ষেত্রে কিছুটা চমক ছিল। চলতি বছর সাহিত্যে এ পুরস্কার দেয়ার ঘোষণা করা হয় তানজানিয়ার ঔপন্যাসিক আবদুল রাজাক গুরনাহকে।
সাহিত্যে ‘আপসহীন ও নিবিড়ভাবে’ ঔপনিবেশিকতার প্রভাব ও উপসাগরীয় অঞ্চলে শরণার্থীদের জীবন সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলার স্বীকৃতিস্বরূপ তাকে এ পুরস্কার দেয়া হয়। তিনি দশটি উপন্যাস লিখেন। সব ক’টি ইংরেজিতে। বিশ্বব্যাপী শরণার্থীদের অভিজ্ঞতাকে এবং তাদের দুর্বিষহ জীবনকে ফুটিয়ে তুলেছেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করেন। তার জনপ্রিয় উপন্যাস হচ্ছে ‘প্যারাডাইস’। এ উপন্যাসের জন্যই তিনি নোবেল পুরস্কার পান। ‘ডিসারশন’ ও ‘বাই দ্য সি’ তার উল্লেখযোগ্য উপন্যাস।
পুরস্কার ঘোষণার পর আফ্রিকার এ ঔপন্যাসিককে নিয়ে আফ্রিকা তথা তানজানিয়ায় তেমন কোনো আলোচনা নেই। কেননা তারা মনে করেন আবদুল রাজাক গুরনাহ ইংল্যান্ডের সাহিত্যিক এবং তাদের প্রতিনিধি। তিনি কোনোভাবেই ঔপনিবেশবিরোধী ও আফ্রিকা অঞ্চলের বঞ্চিত মানুষের সাহিত্যিক নন। তবে এ বিষয়ের বিতর্কের অবসান হতে বেশ কয়েক বছর লাগবে। বিশেষ করে তার কর্মের ওপর গবেষণাধর্মী বিশ্লেষণের মধ্য দিয়ে পরিষ্কার হবে তিনি কাদের প্রতিনিধিত্ব করছেন।
নোবেল পুরস্কার বিজয়ী হিসেবে তার নাম প্রকাশ পাওয়ার পর নোবেল প্রাইজ ওয়েবসাইট প্রতিনিধি এডাম স্মিথ তার একটি সাক্ষাৎকার নেন টেলিফোনে। সে সাক্ষাৎকারের হুবহু অনুবাদ এটি।]

আবদুল রাজাক গুরনাহ : হ্যালো!
এডাম স্মিথ : হ্যালো, আমি আবদুল রাজাক গুরনাহের সাথে কথা বলছি?
আবদুল রাজাক গুরনাহ : হ্যাঁ, আপনি ঠিক তার সাথেই কথা বলছেন, ঠিক তাই।
এডাম স্মিথ : হ্যালো, আমি হচ্ছি...
আবদুল রাজাক গুরনাহ : আমি আমার কম্পিউটারে বসে একটি ঘোষণা শোনছিলাম। আপনি কে বলছেন, প্লিজ?
এডাম স্মিথ : জি, অবশ্যই। আমি এডাম স্মিথ। আমি নোবেল প্রাইজ ওয়েবসাইটের পক্ষ থেকে আপনার সাথে কথা বলছি। আপনি কি এখন আমার সাথে কথা বলতে পারবেন? না আপনি এখন ঘোষণাটা দেখতে থাকবেন? আমি আপনাকে অহেতুক বিরক্ত করতে চাই না।
আবদুল রাজাক গুরনাহ : ভালো। না, ঠিক আছে বেশ শান্ত কিন্তু উত্তেজনাকর অবস্থায়। আপনি কী বিষয়ে কথা বলতে চান? আমি রিপোর্টারদের কাছে কিছু শুনিনি। আশা করি শিগগিরই শুনতে পাবো।
এডাম স্মিথ : নিশ্চয়ই আপনি পারবেন। আমি মনে করি এ সংবাদটা খুব দ্রুত আপনার জীবনকে পাল্টে দেবে। এটা একটা প্রলয়ের সৃষ্টি করবে। আপনি এ সম্ভাবনাকে কিভাবে অনুভব করছেন?
আবদুল রাজাক গুরনাহ : হ্যাঁ, আমি এটাকে বুঝে ওঠার চেষ্টা করছি। হ্যাঁ, ঠিক এটা একটা অনিবার্য...এটা এক ধরনের... এটা এক ধরনের বড় পুরস্কার নিঃসন্দেহে। ভালো, খুব ভালো, এটা আমাকে অগ্রসর করতে পারে।
এডাম স্মিথ : সংবাদটা আপনার কাছে কিভাবে পৌঁছল?
আবদুল রাজাক গুরনাহ : ওই যে তিনি ফোন করেছিলেন। কী জানি তার নাম? নোবেল কমিটির স্থায়ী সেক্রেটারি?
এডাম স্মিথ : ম্যাটস ম্যালম।
আবদুল রাজাক গুরনাহ : হ্যাঁ, তিনি আমাকে ফোন করেছিলেন ১০ মিনিট, না, না ১৫ মিনিট আগে। এবং আমি মনে করলাম হয়তো কেউ আমার সাথে ঠাট্টা করছে। সত্যি আমি তাই মনে করেছিলাম। কারণ আপনি জানেন কারা এবার পুরস্কার পেতে পারে তা বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরেই মুখে মুখে ভেসে বেড়াচ্ছিল। এমনকি কয়েক মাস আগে থেকেই। আপনি এটাও জানেন কারা এ দৌড়ে শেষ পর্যন্ত টিকে ছিল। এটাই তখন আমার মনে ঘুরছিল। আমি চিন্তা করছিলাম, ‘কে এ সৌভাগ্যবান ব্যক্তি!’
এডাম স্মিথ : নিশ্চয়, নিশ্চয়। এবং ঠিকই আছে। আপনি নিজেকে বোঝানোর চেষ্টা করছিলেন। শেষ পর্যন্ত নিজেকে কিভাবে বিশ্বাস করালেন?
আবদুল রাজাক গুরনাহ : আসলে তিনি খুব শান্ত ও ধীরভাবে কথা বলছিলেন, এবং আমি...এবং আমি...পরে তিনি আমাকে বললেন... ওয়েবসাইট, সুইডিশ অ্যাকাডেমি ওয়েবসাইট এবং আমি বললাম ঠিক আছে, ‘আমি ১ মিনিটে ওটা দেখে নেবো, কিন্তু এখন আপনি আমাকে কিছু বলুন।’ সুতরাং এরপর তিনি শান্তভাবে বলতে লাগলেন এবং আমার মনে হচ্ছে আমি শেষ পর্যন্ত ভাবছিলাম, ‘আমি অপেক্ষা করবো যতক্ষণ আমি এটা না দেখি বা শুনি।’ এবং এটাই আমি এখন বসে করছিলাম। অতএব, ...
এডাম স্মিথ : ভালো, সত্যি ওটা ওখানে আছে। এটাই সত্যি।
আবদুল রাজাক গুরনাহ : হ্যাঁ নিশ্চয়। হ্যাঁ, নিশ্চয় আছে।
এডাম স্মিথ : আপনি জানেন... আমি... নোবেল পুরস্কার...
আবদুল রাজাক গুরনাহ : আমি দুঃখিত, কেননা ক্রমাগত ফোন আসছেই...।
এডাম স্মিথ : নিশ্চয়, আসবেই। এ কারণে আমি চেষ্টা করছি খুব দ্রুত শেষ করতে। আমি আশা করি আপনি কিছু মনে করবেন না। আপনি যদি আমার সাথে মাত্র কয়েক মিনিট থাকেন তবে এটা সত্যি খুবই স্মরণীয় হতে পারে।
আবদুল রাজাক গুরনাহ : আমি কি এ ভদ্র লোকের ফোনটা একটু ধরতে পারি?
এডাম স্মিথ : নিশ্চয়, আপনি পারেন।
আবদুল রাজাক গুরনাহ : হ্যালো, আমি কি... আমি ধারণা করছি আপনি নিশ্চয় সংবাদটা শুনতে পেয়েছেন? আমি এখন সুইডিশ অ্যাকাডেমির মাথে কথা বলছি। আমাকে ৫ মিনিট পরে ফোন দিলে ভালো হয়। এখন রাখি। হ্যালো, আপনি কি আমাকে শুনতে পাচ্ছেন? আসলে ওটা বিবিসি ছিল।
এডাম স্মিথ : অবশ্যই, তারা নিশ্চয় আপনার সাথে কথা বলতে চাচ্ছে। যে বিষয়টা আমি জানতে চাচ্ছি আপনি মূলত ‘শরণার্থীদের ভাগ্য’ ও ‘উপসাগরীয় অঞ্চলের সংস্কৃতি ও অভিজ্ঞতা তুলে ধরেছেন’। এটা একটা সুনির্দিষ্ট মুহূর্ত- আমরা এখন সারা বিশ্বে শরণার্থী সমস্যার মধ্যে আছি। আপনি কি একটু বলবেন সংস্কৃতির এ পার্থক্যকে আপনি কিভাবে দেখছেন?
আবদুল রাজাক গুরনাহ : আমি মনে করি না এ সমস্যা স্থায়ী বা অসমাধানযোগ্য বা এ জাতীয় কিছু। অবশ্যই মানুষ পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আমি মনে করি, আমি ভাবি... সুনির্দিষ্ট কিছু বৈশিষ্ট্যপূর্ণ আফ্রিকান যারা ইউরোপে আসছে নিঃসন্দেহে তারা তাদের বিষয়ে অভিজ্ঞতা একেবারে নতুন। এবং অবশ্যই অন্যদের বেলাতেও... ইউরোপে মানুষের আগমন নতুন নয়। শতাব্দীর পর শতাব্দী আমরা আসছি। অতএব, এটা সত্যিই ইউরোপের জন্য বেশ অস্বস্তিকর। যখন অনেকে আসেন, তারা তাদের প্রাথমিক প্রয়োজন নিয়ে আসেন, এবং কারণ সত্যিকারার্থে তাদের অনেক কিছু থাকে দেয়ার মতো।
তারা কিন্তু... তারা কিন্তু খালি হাতে আসে না। তাদের অনেকেই অনেক মেধাবী, পরিশ্রমী যারা অনেক কিছু দিতে পারে। সুতরাং তাদের নিয়ে ভিন্নভাবে কিছু ভাবতে হবে। আপনি এদের যেভাবে দেখছেন সেভাবে নিতে পারবেন না। তারা কেবল দারিদ্র্য পীড়িত এটা ভাবা ঠিক হবে না।
এডাম স্মিথ : ধন্যবাদ, অবশ্যই। আরেকটি বিষয়...নোবেল পুরস্কার প্রতি বছর বিজ্ঞানী ও সাহিত্যিকদের সংযুক্ত করে থাকে অক্টোবরের ঘোষণার মধ্য দিয়ে। বিজ্ঞানীরা চেষ্টা করে তাদের কাজের একটা গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা উপস্থাপন করতে। আমি কী ভাবেন যখন আপনি কোনো একটা বিষয় নিয়ে লিখেন?
আবদুল রাজাক গুরনাহ : আমি খুবই আনন্দ অনুভব করি যখন কোনো লেখা শেষ করি। [হাসি দিলেন] কিন্তু এটাও সত্য কোনো সময় কিছু জিনিস বাধ্য করে কোনো কোনো লেখা শেষ করতে দশকের পর দশকও লেগে যায়। আপনি কোনো কিছু ভালোভাবে করতে পারবেন না, যদি আপনার সে কাজকে ঘৃণা করেন।
কিন্তু এটাই বাস্তবতা... এটা একাধারে আনন্দের কোনো কিছু সৃষ্টি করা কিন্তু এটা ভালো কোনো লক্ষ্য অতিক্রম করতে পারা।
এডাম স্মিথ : ধন্যবাদ আপনাকে। এটাই সত্য। আমি মনে করি আপনি বেশ সহায়ক ফলে সবাই সহজে আপনাকে বুঝতে পারে।
আবদুল রাজাক গুরনাহ : ঠিক আছে, ঠিক আছে। ধন্যবাদ, ধন্যবাদ আপনাকে।
এডাম স্মিথ : আপনার প্রতি শুভ কামনা থাকল।



আরো সংবাদ


ব্লু-ইকোনমির সুযোগ কাজে লাগানোর আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ১০ বছর ধরে শুধু ঘাস ও কাঠ খাচ্ছেন এক গরীব ভারতীয় মাইলসের সাথে গাইবেন না শাফিন আহমেদ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের অর্ধেকেরও বেশি পথচারী মাগুরার নৌকা ৮ সতন্ত্র প্রার্থী ৭টিতে বিজয়ী ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ এর মতো চলচ্চিত্র নির্মাণের আহ্বান রাষ্ট্রপতির পরকীয়া : গাজীপুরে স্ত্রীকে গলাকেটে খুন, স্বামী গ্রেফতার ত্রিপুরা নির্বাচনে গেরুয়া ঝড়, ৩৩৪ আসনের মধ্যে ৩২৯ টিতে জয়ী বিজেপি বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে চায় সৌদির ৩০ কোম্পানি জাপান সবসময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে গাজীপুরে বহিষ্কৃত মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে ১০০ কোটি টাকার মানহানি মামলা

সকল

ভারতের প্রতিরক্ষাপ্রধান রাওয়াতের মন্তব্য ঘিরে ক্ষুব্ধ চীন (১০৫০৬)কাতার বিশ্বকাপে থাকবে না ইতালি বা পর্তুগালের কোনো একটি দল (১০৫০১)বাংলাদেশ-পাকিস্তান দ্বিতীয় দিনের খেলার সময় পরিবর্তন (৮৫৩৬)স্ত্রী ও তিন সন্তান নিয়ে ইসলাম গ্রহণ করলেন যুবক (৭২২৯)ভূমিকম্প দিয়ে গেল সতর্কবার্তা (৬৮৩০)স্বীকৃতি দেয়ার জন্য সব শর্ত পূরণ করেছি : তালেবান (৬০৫০)ঘরে ঘরে জাহাঙ্গীর (৫৭৫৯)‘জরুরি অবস্থার মুখে দেশ’ কী বার্তা দিলেন ইসরাইল প্রধানমন্ত্রী (৫৬৮৪)‘হত্যাচেষ্টা ফাঁস হওয়ার ভয়ে খালেদা জিয়াকে বিদেশে যেতে দিচ্ছে না’ (৫০৮০)ইসরাইলের সাথে পানির বিনিময়ে জ্বালানি চুক্তির বিরুদ্ধে জর্ডানে বিক্ষোভ (৪২৯২)