১১ আগস্ট ২০২২
`

মিলিটারি ইঞ্জিনিয়ার সার্ভিসেসে ১৩৯ জন নিয়োগ

-

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন মিলিটারি ইঞ্জিনিয়ার সার্ভিসেসে (এমইএস) নিম্নবর্ণিত পদে নিয়োগের জন্য বাংলাদেশের যোগ্য নাগরিকদের কাছ থেকে দরখাস্ত আহ্বান করা হয়েছে। অনলাইনে আবেদনপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ : ১৬ মার্চ ২০২০। লিখেছেন মাহমুদ কবীর
পদের নাম : ইউডিএ।
পদের সংখ্যা : ৮টি।
আবেদনের যোগ্যতা : অন্যূন দ্বিতীয় শ্রেণী বা সমমানের সিজিপিএতে স্নাতক বা সমমানের ডিগ্রি। কম্পিউটারে ইংরেজি ও বাংলায় টাইপিংয়ে সর্বনিম্ন গতি প্রতি মিনিটে যথাক্রমে ৩০ ও ২৫ শব্দ।
বেতন স্কেল : ১০২০০-২৪৬৮০/-
পদের নাম : ড্রাফটসম্যান ক্লাস-‘সি’।
পদের সংখ্যা : ৮টি।
আবেদনের যোগ্যতা : এসএসসি/ সমমান। ডিপ্লোমা-ইন-ড্রাফটসম্যানশিপ।
বেতন স্কেল : ৯৭০০-২৩৪৯০/-
পদের নাম : অফিস সহকারী/অফিস সহকারী-কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক।
পদের সংখ্যা : ৪৩টি।
আবেদনের যোগ্যতা : এইচএসসি/ সমমান (ন্যূনতম দ্বিতীয় বিভাগ/জিপিএ-২.৫০)। কম্পিউটারে টাইপিংয়ে ইংরেজি ও বাংলায় সর্বনিম্ন গতি প্রতি মিনিটে যথাক্রমে ২০ ও ২০ শব্দ।
বেতন স্কেল : ৯৩০০-২২৪৯০/-
পদের নাম : স্টোরম্যান।
পদের সংখ্যা : ২৩টি।
আবেদনের যোগ্যতা : এইচএসসি/ সমমান।
বেতন স্কেল : ৯৩০০-২২৪৯০/-
পদের নাম : এমটিডি।
পদসংখ্যা : ১৯টি।
আবেদনের যোগ্যতা : অষ্টম শ্রেণী পাস। সরকারি পেশাগত ড্রাইভিং লাইসেন্সপ্রাপ্ত।
বেতন স্কেল : ৯৩০০-২২৪৯০/-
পদের নাম : ফটোকপি অপারেটর (পূর্বের ব্লুপ্রিন্টার)।
পদের সংখ্যা : ২টি।
আবেদনের যোগ্যতা : অষ্টম শ্রেণী পাস।
বেতন স্কেল : ৮৮০০-২১৩১০/-
পদের নাম : ফটোকপি অপারেটর (পূর্বের জি/অপারেটর)।
পদের সংখ্যা : ১টি।
আবেদনের যোগ্যতা : অষ্টম শ্রেণী পাস।
বেতন স্কেল : ৮৮০০-২১৩১০/-
উপরি উক্ত পদে যেসব জেলার প্রার্থীদের আবেদন করার প্রয়োজন নেই : নরসিংদী, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, টাঙ্গাইল, লক্ষ্মীপুর, নাটোর, যশোর, মাগুরা, নড়াইল, কুষ্টিয়া, বরিশাল, ঝালকাঠি জেলার প্রার্থীদের আবেদন করার প্রয়োজন নেই। এতিম ও শারীরিক প্রতিবন্ধী কোটায় সব জেলার প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন।
পদের নাম : অফিস সহায়ক।
পদের সংখ্যা : ১৭টি।
আবেদনের যোগ্যতা : এসএসসি/ সমমান।
বেতন স্কেল : ৮২৫০-২০০১০/-
পদের নাম : নিরাপত্তা প্রহরী (পূর্বের চৌকিদার)।
পদের সংখ্যা : ১৬টি।
আবেদনের যোগ্যতা : অষ্টম শ্রেণী পাস।
বেতন স্কেল : ৮২৫০-২০০১০/-
পদের নাম : পরিচ্ছন্নতা কর্মী।
পদের সংখ্যা : ২টি।
আবেদনের যোগ্যতা : অক্ষরজ্ঞানসম্পন্ন।
বেতন স্কেল : ৮২৫০-২০০১০/-
উপরি উক্ত পদে যে সব জেলার প্রার্থীদের আবেদন করার প্রয়োজন নেই : মানিকগঞ্জ, নরসিংদী, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, রাজবাড়ী, টাঙ্গাইল, কুমিল্লা, লক্ষ্মীপুর, নাটোর, রংপুর, গাইবান্ধা, নীলফামারী, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, খুলনা, যশোর, মাগুরা, নড়াইল, পিরোজপুর, জেলার প্রার্থীদের আবেদন করার প্রয়োজন নেই। এতিম ও শারীরিক প্রতিবন্ধী কোটায় সব জেলার প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন।
বয়সসীমা : আবেদনকারীর বয়স ১৬ মার্চ ২০২০ তারিখে ১৮ থেকে ৩০ বছর হতে হবে; তবে মুক্তিযোদ্ধা/শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের পুত্র-কন্যা ও শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থীর ক্ষেত্রে বয়সসীমা ১৮ থেকে ৩২ বছর হতে হবে। মুক্তিযোদ্ধা/ শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের পুত্র-কন্যার পুত্র-কন্যার জন্য বয়সসীমা ১৮ থেকে ৩০ বছর হতে হবে।
জরুরি তথ্য : সরকারি চাকরিতে কর্মরত প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষার সময় নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রদত্ত অনাপত্তিপত্রের মূলকপি জমা দিতে হবে।
আবেদনপত্র পূরণ করা : যঃঃঢ়://সবং. ঃবষবঃধষশ.পড়স.নফ/ওয়েবসাইটে লগ-ইন করলে একটি লিংকে পাওয়া যাবে। ওই লিংকে প্রবেশ করে নির্দেশনা মোতাবেক অনলাইনে আবেদনপত্র পূরণ করতে হবে।
অনলাইনে আবেদনপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ : ১৬ মার্চ ২০২০।
ওই সময়সীমার মধ্যে টংবৎ ওউ প্রাপ্ত প্রার্থীরা অনলাইনে আবেদনপত্র সাবমিটের সময় থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে এসএমএসের মাধ্যমে পরীক্ষার ফি জমা দিতে পারবেন। অনলাইন আবেদনপত্রে প্রার্থী তার স্বাক্ষর (দৈর্ঘ্য ৩০০দ্ধপ্রস্থ ৮০) ঢ়রীবষ, ঋরষব ঝরধুব ৬০ শন এবং রঙ্গিন ছবি (দৈর্ঘ্য ৩০০দ্ধ প্রস্থ ৩০০) ঢ়রীবষ, ঋরষব ংরুব ১০০ শন স্ক্যান করে নির্ধারিত স্থানে টঢ়ষড়ধফ করবেন। অনলাইনে পূরণকৃত আবেদনপত্রের একটি প্রিন্ট কপি পরীক্ষা সংক্রান্ত যেকোনো প্রয়োজনের সহায়ক হিসেবে সংরক্ষণ করবেন।
এসএমএস পাঠানো ও পরীক্ষার ফি জমা দেয়া : অনলাইনে আবেদনপত্র যথাযথভাবে পূরণ করে নির্দেশনামতো ছবি এবং ঝরমহধঃঁৎব ঁঢ়ষড়ধফ করে আবেদনপত্র সাবমিট করা সম্পন্ন হলে কম্পিউটারে ছবিসহ অঢ়ঢ়ষরপধঃরড়হ চৎবারবি দেখা যাবে। নির্ভুলভাবে আবেদনপত্র সাবমিট করার পর প্রার্থী একটি টংবৎ ওউ, ছবি এবং স্বাক্ষরযুক্ত একটি অঢ়ঢ়ষরপধঃরড়হ ঈড়ঢ়ু পাবেন। ওই অঢ়ঢ়ষরপধহঃ’ং ঈড়ঢ়ু প্রার্থী প্রিন্ট অথবা ডাউনলোড করে সংরক্ষণ করবেন। অঢ়ঢ়ষরপধহঃ’ং কপিতে একটি টংবৎ ওউ নম্বর দেয়া থাকবে এবং টংবৎ ওউ নম্বর ব্যবহার করে প্রার্থী যেকোনো টেলিটক প্রি-পেইড মোবাইল নম্বরের মাধ্যমে দু’টি এসএমএস করে পরীক্ষার ফি অনধিক ৭২ ঘণ্টার মধ্যে জমা দেবেন। বিজ্ঞপ্তিতে উল্লিখিত ক্রমিক ‘ক’ থেকে ‘ছ’ পর্যন্ত পদের জন্য ১১২ টাকা এবং ক্রমিক নম্বর ‘জ’ থেকে ‘ঞ’ পর্যন্ত পদের জন্য ৫৬ টাকা জমা দেবেন। অনলাইনে আবেদনপত্রের সব অংশ পূরণ করে সাবমিট করা হলেও পরীক্ষার ফি জমা না দেয়া পর্যন্ত অনলাইন আবেদনপত্র কোনো অবস্থাতেই গৃহীত হবে না।
প্রবেশপত্র প্রাপ্তি : প্রবেশপত্র প্রাপ্তির বিষয়টি যঃঃঢ়://সবং.ঃবষবঃধষশ.পড়স.নফ/ ওয়েবসাইটে এবং প্রার্থীর মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে (শুধু যোগ্য প্রার্থীদের) যথাসময়ে জানানো হবে। অনলাইন আবেদনপত্রে প্রার্থীর প্রদত্ত মোবাইল ফোনে পরীক্ষা সংক্রান্ত যাবতীয় যোগাযোগ সম্পন্ন করা হবে তাই ওই নম্বরটি সার্বক্ষণিক সচল রাখা, ঝগঝ জবধফ করা এবং প্রাপ্ত নির্দেশনা তাৎক্ষণিকভাবে অনুসরণ করা দরকার।
এসএমএসে পাঠানো টংবৎ ওউ এবং চধংংড়িৎফ ব্যবহার করে পরে রোল নম্বর, পদের নাম, ছবি, পরীক্ষার তারিখ, সময়, ভেন্যুর নাম ইত্যাদি তথ্যসংবলিত প্রবেশপত্র প্রার্থী ডাউনলোড পূর্বক প্রিন্ট করার মাধ্যমে সংগ্রহ করতে পারবেন। প্রার্থী এই প্রবেশপত্রটি লিখিত পরীক্ষার অংশগ্রহণের সময় এবং উত্তীর্ণ হলে মৌখিক পরীক্ষার সময় দেখাবেন। প্রবেশপত্র ডাউনলোডের তারিখ পরে এসএমএসের মাধ্যমে জানানো হবে।
মৌখিক পরীক্ষার সময় যেসব কাগজপত্র জমা দিতে হবে : মৌখিক পরীক্ষার সময় নিম্নে বর্ণিত কাগজপত্রের মূল কপি দেখানোপূর্বক প্রতিটির একটি করে সত্যায়িত ফটোকপি জমা দিতে হবে।
১। প্রার্থীর সব শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র;
২। জাতীয় পরিচয়পত্র ও সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের তিন কপি ছবি (প্রার্থীদের জাতীয় পরিচয়পত্র থাকতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকলে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রদত্ত জাতীয় পরিচয়পত্রের রশিদ থাকতে হবে);
৩। প্রার্থী যে ইউনিয়ন/পৌরসভা/সিটি করপোরেশনের বাসিন্দা সে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান/পৌরসভার মেয়র/ কাউন্সিলর/সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড কাউন্সিলর কর্তৃক প্রদত্ত নাগরিকত্বের সনদপত্র;
৪। প্রার্থীর পিতা/মাতা মুক্তিযোদ্ধা হলে এর প্রমাণস্বরূপ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রদত্ত সনদপত্র/সাময়িক সনদপত্র;
৫। মুক্তিযোদ্ধা/শহীদ মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যার পুত্র-কন্যা হিসেবে চাকরি প্রার্থীকে তার পিতার পিতা/পিতার মাতা /মাতার পিতা/মাতার মাতা (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) মুক্তিযোদ্ধা সনদপত্র (যা যথাযথভাবে উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ কর্তৃক স্বাক্ষরিত ও প্রতিস্বাক্ষরিত হতে হবে)। প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা/শহীদ মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যার পুত্র-কন্যা হলে এ মর্মে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান/ পৌরসভার মেয়র/সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড কাউন্সিলর কর্তৃক প্রদত্ত সনদপত্র;
৬। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী প্রার্থীর ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক কর্তৃক স্বাক্ষরিত ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী পরিচয় বিষয়ক সনদপত্র;
৭। এতিম এবং শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থীর ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রদত্ত সনদপত্র;
৮। জাত হরিজন প্রার্থীর ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান/ পৌরসভার মেয়র/সিটি করপোরেশনের সংশ্লিষ্ট কাউন্সিলর প্রদত্ত জাত হরিজন সনদপত্র;
৯. অনলাইনে পূরণকৃত আবেদনপত্রের কপি ও লিখিত পরীক্ষার প্রবেশপত্র।


আরো সংবাদ


premium cement
বাংলাদেশে ৩ লাখ মেট্রিক টন গম রফতানি করতে চায় রাশিয়া চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা শুরু ১৬ আগস্ট ২ ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে দোকান থেকে টাকা কেড়ে নেয়ার অভিযোগ এক বছরে অর্ধেক সম্পদ খুইয়েছেন এশিয়ার সবচেয়ে ধনী নারী! সুইস রাষ্ট্রদূত মিথ্যা বলেছেন : পররাষ্ট্রমন্ত্রী এক বছরে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২৬ হাজার কোটি টাকা পদ্মায় গোসলে নেমে শিশুর মৃত্যু কাবুলের একটি মাদরাসায় আত্মঘাতী বিস্ফোরণ, আফগান নারী শিক্ষার অগ্রদূত নিহত যার মধ্যে নৈতিকতা নেই সে প্রকৃত মানুষ হতে পারে না : প্রফেসর ড. চৌধুরী মাহমুদ হাসান মূল্যবৃদ্ধি ও দুর্নীতির প্রতিবাদে প্রেসিডেন্টের পদত্যাগ দাবিতে উত্তাল সিয়েরালিওন গাজায় ইসরাইলি হামলায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৭

সকল