০৯ ডিসেম্বর ২০২১
`

সেনাবাহিনীতে চিকিৎসক হিসেবে মেজর পদে নিয়োগ

-

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক হিসেবে মেজর পদে ২৪তম ডিএসএসসি (স্পেশাল পারপাস)Ñ এএমসি পুরুষ/মহিলা নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।
আবেদনের শেষ তারিখ : ১ ফেব্রুয়ারি ২০২০। লিখেছেন মাহমুদ কবীর
যোগ্যতা : বয়স : আগ্রহী প্রার্থীদের বয়স ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে অনূর্ধ্ব ৪০ বছর হতে হবে (এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য নয়)।
শারীরিক যোগ্যতা : পুরুষ প্রার্থীদের উচ্চতা : ১.৬৩ মিটার (৫ ফুট ৪ ইঞ্চি), ওজন ৫৯ কেজি (১৩০ পাউন্ড)।
বুকের মাপ : স্বাভাবিক অবস্থায় ০.৭৬ মিটার (৩০ ইঞ্চি), প্রসারণ অবস্থায় ০.৮১ মিটার (৩২ ইঞ্চি) হতে হবে।
মহিলা প্রার্থীদের উচ্চতা : ১.৫৭ মিটার (৫ ফুট ২ ইঞ্চি), ওজন ৫২ কেজি (১১৪ পাউন্ড)।
বুকের মাপ : স্বাভাবিক অবস্থায় ০.৭১ মিটার (২৮ ইঞ্চি), প্রসারণ অবস্থায় ০.৭৬ মিটার (৩০ ইঞ্চি) হতে হবে।
শিক্ষাগত যোগ্যতা : প্রার্থীদের এফসিপিএস/ এফআরসিএস/ এমএস/এমডি বা সমমানের ডিগ্রি থাকতে হবে, যা বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল কর্তৃক স্বীকৃত।
বৈবাহিক অবস্থা : পুরুষ/মহিলা প্রার্থীদের বিবাহিত/ অবিবাহিত হতে হবে।
জাতীয়তা : জন্মসূত্রে বাংলাদেশী হতে হবে।
যেসব ক্যাটাগরিতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা আবেদন করতে পারবেন : নিচের ক্যাটাগরিতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা আবেদন করতে পারবেনÑ ১. কার্ডিওলজিস্ট, ২. নিউক্লিয়ার মেডিসিন,
৩. রেডিয়েশন অনকোলজিস্ট, ৪. মেডিক্যাল অনকোলজিস্ট, ৫. সার্জিক্যাল অনকোলজিস্ট, ৬.পালমোনোলজিস্ট, ৭. অর্থোপেডিক সার্জন, ৮. ইন্টারনাল মেডিসিন, ৯. গ্যাস্ট্রোএন্টেরোলজি, ১০. এন্ডোক্রিনলজি, ১১. ইনটেনসিভিস্ট, ১২, নিউরোসার্জন।
প্রার্থীর অযোগ্যতা : সেনা/নৌ/বিমানবাহিনী বা যেকোনো সরকারি চাকরি থেকে অপসারিত/ বরখাস্ত হলে। আইএসএসবি কর্তৃক দু’বার স্ক্রিন্ড আউট/প্রত্যাখ্যাত হলে তা প্রার্থীর অযোগ্যতা বলে বিবেচিত হবে (একবার স্ক্রিন্ড আউট ও একবার প্রত্যাখ্যাত হলে আবেদন করা যাবে)। তবে পাঁচ বছর আগে দু’বার স্ক্রিন্ড আউট/ প্রত্যাখ্যাত প্রার্থীরাও আবেদন করতে পারবেন। প্রতিটি চোখের দৃষ্টিক্ষীণতা ও দূরদৃষ্টি ২.৫ ডাইঅপ্টারের বেশি এবং বিষমদৃষ্টি ১.০ ডাইঅপ্টারের বেশি হলে সেক্ষেত্রে অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। সেনা/নৌ/ বিমানবাহিনীর আপিল মেডিক্যাল বোর্ড কর্তৃক অযোগ্য ঘোষিত হলে তা প্রার্থীর অযোগ্যতা বলে বিবেচিত হবে।
আবেদন করার পদ্ধতি :
যঃঃঢ়ং://লড়রহনধহমষধফবংযধৎসু.ধৎসু.সরষ.নফ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনলাইনে আবেদন করা যাবে। অনলাইনে আবেদনের জন্য ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে ঐড়সব চধমব-এর উপরে ডান কোনায় অচচখণ ঘঙড-তে ক্লিক করে ২৪ঃয উঝঝঈ (ঝঢ়বপরধষ চঁৎঢ়ড়ংব) অগঈ-তে অঢ়ঢ়ষু করতে হবে। আবেদনকারী প্রার্থীরা ঞৎঁংঃ ইধহশ ঃ-পধংয, ঠওঝঅ/গধংঃবৎ ঈধৎফ, বিকাশ, জড়পশবঃ ইত্যাদির মাধ্যমে আবেদন ফি বাবদ ১০০০ টাকা প্রদান করতে পারবেন। আবেদন প্রক্রিয়াতেই ওয়েবসাইটে বর্ণিত পদ্ধতি অনুসরণ করে আবেদন ফি দেয়া যাবে ও তাৎক্ষণিকভাবে প্রাথমিক সাক্ষাৎকারের জন্য কল-আপ লেটার পাওয়া যাবে। অনলাইনে আবেদন করতে যেকোনো অসুবিধা হলে ওয়েবসাইটে দেখানো কাস্টমার সাপোর্ট নম্বরে (+৮৮০১৮৮৫০২২০২২) সরাসরি যোগাযোগ করুন।
মৌখিক পরীক্ষা : আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে ডিজিএমএস অফিস, ঢাকা সেনানিবাসে মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। প্রার্থীরা আবেদন প্রক্রিয়া শেষ করে কল-আপ লেটার প্রিন্ট করে নেবেন এবং মৌখিক পরীক্ষার সময় কল-আপ লেটার সাথে আনবেন। মৌখিক পরীক্ষার সময় সব পরীক্ষার সার্টিফিকেট, মার্কশিট ও বিএমডিসির সার্টিফিকেটের মূলকপি দেখাতে হবে।
আইএসএসবি পরীক্ষা : তবে প্রার্থীদের আইএসএসবি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের প্রয়োজন নেই।
পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ : যঃঃঢ়ং://লড়রহনধহমষধফবংযধৎসু.ধৎসু.সরষ.নফ ওয়েবসাইটে পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হবে।
চূড়ান্ত নির্বাচন ও যোগদান নির্দেশিকা
প্রদান : উপরোক্ত সব পরীক্ষায় যোগ্যতা অর্জন সাপেক্ষে শূন্যাসনের অনুকূলে মেধাক্রম অনুযায়ী প্রার্থীদের সেনাবাহিনী সদর দফতর, অ্যাডজুটেন্ট জেনারেল শাখা, পার্সোনেল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন পরিদফতর কর্তৃক চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত ঘোষণা ও পরে যোগদান নির্দেশিকা প্রদান করা হবে।
বিএমএ প্রশিক্ষণ : প্রার্থীরা চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হওয়ার ট্রেইনি অফিসার হিসেবে বিএমএতে ১০ সপ্তাহ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করবেন।
কমিশন ও পশ্চাৎ প্রবীণতা : কৃতকার্যের সাথে প্রশিক্ষণ শেষের পর মেজর পদে কমিশন প্রদান এবং বিএমএতে যোগদানের তারিখ থেকে চার বছরের পশ্চাৎ প্রবীণতা প্রদান করা হবে।
বেতনভাতা : সরকার কর্তৃক নির্ধারিত অন্যান্য সুবিধাসহ সশস্ত্র বাহিনীর বেতনক্রম অনুযায়ী অফিসাররা বেতন-ভাতা প্রাপ্ত হবেন।
সুযোগ-সুবিধা : ব্যক্তিগত যোগ্যতার ভিত্তিতে উচ্চতর শিক্ষা ও বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ পাবেন, বাসস্থানপ্রাপ্তির সুযোগ, সামরিক হাসপাতালে উন্নতমানের চিকিৎসার সুযোগ এবং দুরারোগ্য ব্যাধিতে উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন হলে বিধি মোতাবেক অর্থ প্রদানসহ বিদেশে পাঠানোর ব্যবস্থা, নিজ সন্তানদের জন্য ক্যাডেট কলেজ, আর্মড ফোর্সেস মেডিক্যাল কলেজ, এমআইএসটি, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস ও সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে পরিচালিত স্কুল/কলেজে অধ্যয়নের সুযোগ পাবেন।
আবেদনের শেষ তারিখ : ১ ফেব্রুয়ারি ২০২০।
যোগাযোগ : পরিচালক, পার্সোনেল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন পরিদফতর, অ্যাডজুটেন্ট জেনারেল শাখা, সেনাবাহিনী সদর দফতর, ঢাকা সেনানিবাস।


আরো সংবাদ