২৬ নভেম্বর ২০২২, ১১ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

অবশেষে শাওনের মৃত্যুতে মুন্সীগঞ্জে মামলা

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের নেতাকর্মীরা। - ছবি : নয়া দিগন্ত

মুন্সিগঞ্জে ৫৯ পুলিশসহ ৩৫৯ জনের নামে মামলা আদালতে গৃহিত হয়েছে। গোপনে খুব শতর্কতার সাথে মুন্সীগঞ্জ আমলি আদালত-১ এ মামলাটি করা হয়েছে। মামলার অভিযোগ দাখিলের পরেও রাত ৮টা পর্যন্ত মামলা নাম্বার না পরায় হতবাক হয়ে অপেক্ষায় থাকে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের নেতাকর্মীরা।

মুন্সিগঞ্জের মুক্তারপুর এলাকায় পুলিশের সাথে সংঘর্ষে যুবদলকর্মী শহীদুল ইসলাম শাওন (২৩) নিহত হওয়ার ঘটনায় পুলিশ ও সরকারদলীয় ৩৫৯ জনকে আসামি করে আদালতে মামলা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৬ অক্টোবর) মুন্সিগঞ্জ আমলি আদালত-১ এ মামলাটি করেন কেন্দ্রীয় কৃষক দলের নির্বাহী সদস্য মো: সালাহ উদ্দিন খান।

মামলায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিনহাজ-উল-ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমন দেব, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তারিকুজ্জামান, এসআই ফরিদ উদ্দিন, আরিফুর রহমান, সুকান্ত বাউল, এএসআই নকুল চন্দ্র ধর, অজিত চন্দ্র বিশ্বাস, মন্টু বৈদ্য পুলিশের এই ৯ সদস্যের নাম উল্লেখসহ আরো ৫০ পুলিশ সদস্যকে আসামি করা হয়। পাশাপাশি অজ্ঞাত পরিচয় সাদা পোশাকের অস্ত্রধারী সরকারদলীয় ৩০০ কর্মীকে আসামি করা হয়েছে।

এ-সংক্রান্ত পরবর্তী আদেশের জন্য সোমবার (১০ অক্টোবর) দিন ধার্য করেছেন মুন্সিগঞ্জ আদালত-১-এর বিচারক সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোসাম্মৎ রহিমা আক্তার।

আদালতের পেশকার ইমরান হাওলাদার এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

দিনভর প্রশাসনের পক্ষ থেকে ও দলীয় বিভিন্ন নেতাদের মাঝে আলাপ-চারিতা করতে দেখা গেছে যে, মামলাটি খারিজ করে দেয়া হবে। আদালত মামলাটি খারিজ না করে মামলার নাম্বার ফেলার পরেই পুরো মুন্সিগঞ্জ জাতীয়তাবাদী নেতাকর্মী ও শাওনের পরিবারের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

এমনও গুঞ্জন শুনা যাচ্ছিল যে শাওনের পরিবারকে দিয়ে পুলিশ বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করবে। শাওনের পরিবারের সকল দায়-দায়িত্ব শক্তভাবে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা নেয়ায় বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলাটি হয়নি। অন্যথায় বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে শাওন হত্যার দায় চাপানো হতো বলে দাবি করছেন স্থানীয় বিএনপি নেতারা।


আরো সংবাদ


premium cement

সকল