৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯, ৩ রবিউল আওয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

যেভাবে ঘটল উত্তরায় ক্রেন দুর্ঘটনা

যেভাবে ঘটল উত্তরায় ক্রেন দুর্ঘটনা। - ছবি : বিবিসি

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার ব্যস্ত একটি রাস্তায় নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের কংক্রিটের বিশাল গার্ডার ক্রেন দিয়ে বসানোর সময় চলন্ত গাড়ির ওপর পড়ে পাঁচজন নিহত হয়েছে।

নিহতদের সবাই একই পরিবারের সদস্য বলে জানা গেছে। গার্ডারের নিচে পিষ্ট হয়ে যাওয়া গাড়িটি থেকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে দু’জনকে। তারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

ঢাকায় একটি সমন্বিত গণ-পরিবহণ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে টঙ্গি থেকে বিমান বন্দর হয়ে প্রধান সড়কটির ওপর দিয়ে যে বাস র‍্যাপিড ট্রানজিট তৈরি করা হচ্ছে, জসীমউদ্দীন সড়কে সেই প্রকল্পের একটি নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের নিচে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

বাস র‍্যাপিড ট্রানজিট প্রকল্পের কাজ চলছে রাজধানী ঢাকার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং ব্যস্ত একটি সড়কের ওপর।

বাস র‍্যাপিড ট্রানজিটের ফ্লাইওভারের পিলারগুলোর ওপর বিরাট বিরাট কংক্রিটের গার্ডার বসানোর কাজ চলছে গত বেশ কিছুদিন ধরেই। বড় বড় ক্রেন দিয়ে এই গার্ডারগুলো পিলারের ওপর তোলা হয়।

ভবন তৈরির সময় যেরকম ছাদের ভার বহনের জন্য বিম বসাতে হয়, তেমনি ফ্লাইওভারের ক্ষেত্রে পিলারের ওপর বসানো হয় গার্ডার।

ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা জানান, সোমবার ক্রেন দিয়ে গার্ডার তোলার সময় ক্রেনটি হেলে যায়, এরপর গার্ডারটি পড়ে চলন্ত গাড়ির ওপর। এসময় ব্যস্ত রাস্তাটি দিয়ে অনেক গাড়ি চলাচল করছিল।

একটি ছবিতে দেখা যায়, গার্ডার বহনকারী ক্রেনটি একপাশে হেলে পড়েছে এবং গার্ডারটি আছড়ে পড়ে ওই প্রাইভেট কারের ডান পাশের একটি অংশকে সম্পূর্ণ পিষ্ট করে ফেলেছে।

গাড়ির ভেতর থেকে দু’জনকে টেনে বের করা গেলেও পাঁচজন চাপা পড়ে নিহত হয়েছে ঘটনাস্থলেই। এরা সবাই একই পরিবারের সদস্য বলে বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে দেয়া সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন আত্মীয়-স্বজনরা।

নিহতদের গাড়ির ভেতর থেকে বের করে আনতে সনাতন যন্ত্রপাতি দিয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিটকে বেশ বেগ পেতে হয়।

প্রাথমিকভাবে দমকল কর্মীরা গাড়ির দরজা ও ছাদ হাইড্রোলিক কাটার দিয়ে কেটে গাড়ির ভেতরে ঢুকে লাশগুলো উদ্ধারের চেষ্টা করেন। কিন্তু দুর্ঘটনার চার ঘণ্টা পরও তারা নিহতদের বের করে আনতে পারছিলেন না।

পরে একজন ক্রেন চালককে দিয়ে হেলে পড়া ক্রেনটি আবার সোজা করা হয়। এরপর ওই ক্রেন দিয়ে কংক্রিটের ভারী গার্ডারটি সরানো হয়। এরপর ভেতর থেকে পাঁচ জনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে ফায়ারসার্ভিস।

তাদের মধ্যে ২৫ থেকে ৩০ বছর বয়সী দুই নারী, চার বছর ও সাত বছর বয়সী দুই শিশু, এবং ৪৫ থেকে ৫০ বছর বয়সী এক পুরুষ ছিলেন। তারা সবাই একই পরিবারের সদস্য বলে জানা গিয়েছে।

তারা সবাই বৌভাতের অনুষ্ঠান থেকে ফিরছিলেন। ওই গাড়িতে থাকা নবদম্পতিকে জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।

এদিকে এই প্রকল্প সংশ্লিষ্ট দু’চীনা নাগরিকসহ চারজনকে ঘটনাস্থল থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করার কথা গণমাধ্যমকে জানিয়েছে পুলিশ।

এদিকে দুর্ঘটনার পর থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

ঘটনাস্থলে কৌতূহলী জনতার ভিড়ে ব্যাপক বেগ পেতে হয় উদ্ধার-কর্মীদের। সেইসাথে সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসায় টর্চ জ্বালিয়ে উদ্ধারকাজ পরিচালনা করতে দেখা গেছে ফায়ারসার্ভিস কর্মী।

এ ধরণের ভারী গার্ডার সরানোর কোনো যন্ত্র ফায়ারসার্ভিস কাছে নেই। এজন্য মেট্রোরেল প্রকল্পে ব্যবহৃত ১৫০ টনের রেকার আনার কথা থাকলেও সেটা ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পাঁচ ঘণ্টা পর।

ততোক্ষণে দুর্ঘটনা কবলিত ক্রেন দিয়ে গার্ডারটি তুলে রেকার দিয়ে পিষ্ট হওয়া গাড়িটি বের করে উদ্ধারকাজ সম্পন্ন হয়ে যায়। পরে মেট্রোরেলের রেকারটি দিয়ে গার্ডারটি রাস্তা থেকে সরানো হয়।

এদিকে যে ক্রেন দিয়ে এই গার্ডারটি সরানো হচ্ছিল সেটি এতো ভারী গার্ডার সরানোর মতো ধারণ ক্ষমতা রাখে কিনা সেটা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

ঘটনাস্থলে এসে এমআরটি এক প্রকল্প কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে জানান, একেকটি গার্ডারের ওজন ৪০ টনের বেশি হয়ে থাকে, সেগুলো এক স্থান থেকে আরেক স্থানে নিতে অন্তত ১০০ টন ধারণক্ষমতা সম্পন্ন ক্রেনের প্রয়োজন হয়। কিন্তু এখানে যে ক্রেন ব্যবহার করা হয়েছে সেটির ধারণক্ষমতা এর চেয়ে কম থাকতে পারে বা যান্ত্রিক ত্রুটিও হতে পারে।

সাধারণত কোনো উন্নয়নকাজে এ ধরণের গার্ডার বসানোর কাজ যখন চলে, তখন ওই সড়কটি বন্ধ রাখা হয় এবং সাময়িক চলাচলের আরেকটি বিকল্প পথ তৈরি করা হয়।

বিআরটি প্রকল্পে এমন দুর্ঘটনা আগেও ঘটেছে। গত বছরের ১৪ মার্চ ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে বিআরটি প্রকল্পের গার্ডার পড়ে চারজন আহত হন। তাদের মধ্যে দু’জন চীনের নাগরিক ছিলেন।

২০১২ সালের ২৪ নভেম্বর চট্টগ্রাম নগরীর বহদ্দারহাট এলাকায় নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে ১৩ জন প্রাণ হারান। ওই বছরের ২৬ নভেম্বর চান্দগাঁও থানায় ২৫ জনকে আসামি করে মামলা হলেও আজও শেষ হয়নি মামলার বিচার কাজ। সাক্ষীদের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ না হওয়ায় এখনো ঝুলে আছে।

সূত্র : বিবিসি


আরো সংবাদ


premium cement