০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ৪ জিলহজ ১৪৪৩
`

ছাত্রলীগ-ছাত্রদল সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ শ’ জনের বিরুদ্ধে মামলা

ছাত্রলীগ-ছাত্রদল সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ শ’ জনের বিরুদ্ধে মামলা। - ছবি : সংগৃহীত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মঙ্গলবার ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের মধ্যকার সংঘর্ষের ঘটনায় অজ্ঞাত ৩০০ থেকে ৪০০ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

মঙ্গলবার রাতে এ মামলা করা হয় বলে পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে জানানো হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী ও শাহবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মওদুত হাওলাদার নয়া দিগন্তকে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

বুধবার সন্ধ্যা ৭টায় প্রক্টর অফিসে মামলার বিষয়ে কথা বলেন ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী। এ সময় তিনি গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি নিয়মতান্ত্রিক শান্তিপূর্ণ নির্বাচন (সিনেট নির্বাচন) চলছিল। এমন একটি দিনে বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করার ঘটনা অপ্রত্যাশিত। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেকগুলো অপরাধ সংগঠিত হয়েছে। ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও প্রক্টরিয়াল টিমকে তথ্য সংগ্রহে পাঠানো হয়। আমি খবর পেলাম ৩০০ থেকে ৪০০ জন হাইকোর্ট ও ঢাকা মেডিক্যালের সামনে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ক্যাম্পাসের দিকে এসে আক্রমণ করেছে। ঘটনার পরে আমি নিজে গিয়ে ইটপাটকেল দেখেছি এবং তথ্য পেয়েছি।

প্রক্টর আরো বলেন, মঙ্গলবার সিনেট নির্বাচনকে বিঘ্ন করার প্রচেষ্টা করা হয়েছে। কার্জন হলে কর্তব্যরত বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তাকর্মীকে (দারোয়ান) আক্রমণ করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশের প্রতিষ্ঠান (পাওয়ার স্টেশন) ভাঙচুর করা হয়েছে। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারি মালিকানা শিক্ষার্থীদের দু’টি বাস ভাঙচুর করা হয়েছে। সর্বোপরি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার দায়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এই আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে। ঘটনার প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় ৩০০ থেকে ৪০০ জন অজ্ঞাতনামার বিরুদ্ধে এজাহার দায়ের করেছে। পুলিশ তাদের তদন্তের ভিত্তিতে আইনি ব্যবস্থা নেবে। অভিযোগ প্রমাণিতদের কেউ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনেও তাদের বিচার করা হবে।

মামলার বিষয়ে শাহবাগ থানার ওসি মওদূত হাওলাদার বলেন, মঙ্গলবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা নষ্ট করা, সরকারি কাজে বাধা দেয়া, নিরাপত্তা কর্মীদের মারধর, বাস ভাঙচুর করার অভিযোগে অজ্ঞাতনামায় ঢাবি কর্তৃপক্ষ একটি মামলা করেছে। এ ঘটনায় দু’জনকে আমরা আটক করে কোর্টে দিয়েছি।


আরো সংবাদ


premium cement