০২ জুলাই ২০২২
`

ফরিদপুরে বাড়িতে ঢুকে চেয়ারম্যানের শিশুসন্তানকে কুপিয়ে হত্যা, গুরুতর আহত স্ত্রী

অভিযুক্তের বাড়িতে উত্তেজিত জনতার আগুন

ফরিদপুরের সদরপুরে বাড়িতে ঢুকে ঢেউখালী ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বয়াতির ছেলে রাফসানকে (৮) কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

এ ঘটনায় অভিযুক্তের বাবা সানু মোল্যার বাড়িতে আগুন দিয়েছে উত্তেজিত জনতা।

এ সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত হয়েছেন রাফসানের মা দিলজাহান রত্না (৩৯)। তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুরের মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বুধবার দুপুর সাড়ে ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, ঢেউখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মিজানুর রহমান বয়াতি সদরপুর উপজেলা সদরে পোস্ট অফিসের পাশে তার নিজস্ব একটি বাসভবনে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন। আজ দুপুর পৌনে চারটার দিকে তার বাড়ির পাশের একজন মহিলা তার স্ত্রীর আর্ত চিৎকার শুনে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় কাতরাতে দেখেন। এ সময় তার চিৎকারে পাশের দোকানের ও লোকজনেরা ছুটে এসে পাশে রাফসানের রক্তাত্ত লাশ দেখতে পান। এ সময় স্থানীয়রা তাদেরকে দ্রুত সদরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়। সেখান থেকে রাফসান ও তার মাকে ফরিদপুর বিএসএমএমসি হাসপাতালে পাঠানো হয়।

আহত দিলজাহান রত্না বলেন, ঢেউখালীর সানু মোল্যার ছেলে এরশাদ মোল্যা (৩৫) এ হামলা করেছে। কেনো কি কারণে এ হামলা ও হত্যাকাণ্ড সে ব্যাপারে নিশ্চিত করে কিছু জানা যায়নি।

স্থানীয়রা জানান, তিনদিন আগে ঢেউখালী ইউপি পরিষদে একটি বিষয় নিয়ে সালিশ হয়। ওই সালিশে দোষি সাব্যস্ত হয়ে এ হামলা করে এরশাদ। বিস্তারিত এখনো জানা যায়নি।

খবর পেয়ে সদরপুর থানার এসআই রেজাউলের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে।

ঘটনার সময় ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বয়াতি ঢাকায় অবস্থান করছেন। তার বক্তব্য জানার জন্য মোবাইলে ফোন করলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। ঘটনার সময় তার স্ত্রী ও ছেলে ওই বাড়িতে ছিলেন। হামলাকারী তাদের দু’নকেই কুপিয়ে জখম করার পর শিশু রাফসান ঘটনাস্থলেই নিহত হয়।

সদরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুব্রত গোলদার জানান, এ ঘটনা নিয়েই ব্যস্ত রয়েছেন। শিশু রাফসানের নিহত এবং তার মায়ের আহত হওয়ার তথ্য নিশ্চিত করলেও বিস্তারিত কিছু জানাতে পারছি না।


আরো সংবাদ


premium cement