২৫ অক্টোবর ২০২১, ৯ কার্তিক ১৪২৮, ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরি
`

বিএসএমএমসি হাসপাতালে আইসিইউর প্রথম শ্রেণির সবক’টি পদই শূন্য

বিএসএমএমসি হাসপাতালে আইসিইউর প্রথম শ্রেণির সবক’টি পদই শূন্য - ছবি - নয়া দিগন্ত

ফরিদপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ (বিএসএমএমসি) হাসপাতালের ১৬ শয্যার অত্যাধুনিক ইনসেনটিভ কেয়ার ইউনিট তথা আইসিইউ এর প্রথম শ্রেণির সবক’টি পদই শূন্য। ২০১৬ সালে স্থাপিত এই আইসিইউতে অদ্যাবদি কোন জনবল নিয়োগ দেয়া হয়নি। বর্তমানে ওই হাসপাতালের একজন সহকারী অধ্যাপক ও একজন রোস্টারের মাধ্যমে করোনা রোগীদের জন্য কোনোমতে ইউনিটটি চালু রাখা হয়েছে। নির্দিষ্ট জনবল না থাকায় এখানে চিকিৎসা কার্যক্রম মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। করোনা আক্রান্ত মুমূর্ষ জীবনের বিনিময়ে এর খেসারত দিতে হচ্ছে।

নিয়মানুযায়ী এই আইসিইউতে একজন সহকারী অধ্যাপক, দুইজন জুনিয়র কনসালটেন্ট, দুইজন সহকারী রেজিস্ট্রার ও দুইজন মেডিকেল অফিসার থাকার কথা। তবে প্রথম শ্রেণির এই সাতটি পদই এযাবত পর্যন্ত শূন্য রয়েছে। নির্ধারিত জনবল না থাকায় বর্তমানে বিএসএমএমসি হাসপাতালের অ্যানেসথেসিয়া বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. অনন্ত কুমার বিশ্বাস অতিরিক্ত দ্বায়িত্ব হিসেবে এই আইসিইউ বিভাগের ইনচার্জ হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বিএসএমএমসি হাসপাতালের এই আইসিইউ বিভাগটি অত্যাধুনিক মানের। এখানে সেন্টাল অক্সিজেন সাপ্লাই, ভেন্টিলেটর, হাই ফ্লো, নজেল ক্যানোলাসহ অত্যাধুনিক সুযোগ সুবিধা রয়েছে। দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের অন্য কোন হাসপাতালে এই অত্যাধুনিক সুবিধা না থাকায় পার্শবর্তী জেলা থেকেও গুরুতর রোগীদের এখানে প্রেরণ করা হচ্ছে। অত্রাঞ্চলের একমাত্র এই সম্বল আইসিইউতে রোগী সেবা পাওয়ায় বহু মানুষের জীবন রক্ষা পায়।

জানা গেছে, কোভিড-১৯ রোগের সংক্রমন বেড়ে যাওয়ায় ৫শ’ শয্যার এই বিএসএমএমসি হাসপাতালের পুরোটাই করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। প্রতিদিন এখানে ৫শ’ করোনা রোগীকে চিকিৎসা দেয়া হয়। এদের মধ্যে গুরুতর অসুস্থ্যদের এই আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। ১৬ শয্যার এই আইসিইউতে কখনো খালি শয্যা থাকেনা। একটি বেড খালি হলে সেখানে নতুন রোগী আসেন। জনবল না থাকলেও বিশেষায়িত এই সুবিধার চিকিৎসা নিতে সবসময়েই রোগীদের ভীড় লেগেই থাকে। এ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৬শ’ জন রোগী এই আইসিইউতে চিকিৎসা সেবা পেয়েছে। তার মধ্যে ২৭০ জন রোগী মারা গেছেন। আর আইসিইউতে বেড খালি না থাকায় ৪৮ জনকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়েছে।

ডা. অনন্ত কুমার বিশ্বাস জানান, সারাদেশে ৬ হাজার মেডিক্যাল অফিসার নিয়োগ হলে সরকার সম্প্রতি চারজন মেডিক্যাল অফিসারবে এখানে নিয়োগ দেন। আর সিভিল সার্জনের কার্যালয় হতে উপজেলা পর্যায়ের চারজন মেডিকেল অফিসার কাজ করেন। এখানে যারা ডিউটি করেন তাদের নিয়মানুযায়ী নির্দিষ্ট সময়ের পরে কোয়ারেন্টাইনে যেতে হয়। এজন্য ইনচার্জের বাইরে একজন মাত্র রোস্টার (মেডিকেল অফিসার) দিয়েই কাজ চালাতে হয়। ফলে অনেক সমস্যায় পড়তে হয় রোগী ও চিকিৎসকদের।

বিএসএমএমসি হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. সাইফুর রহমান বলেন, রোগীদের কথা বিবেচনা করে অ্যানেসথেসিয়া বিভাগের একজন সহকারী অধ্যাপককে দিয়ে হাসপাতালের আইসিইউ চালু রাখা হয়েছে। বর্তমানে হাসপাতালের সবক’টি আইসিইউ সচল রয়েছে। জনবল না থাকা সত্ত্বেও আমরা সীমিত জনবল দিয়ে জীবন বাজি রেখে সর্বোচ্চ সেবা দিচ্ছি। এই ক্রান্তিকালে জনবল পদায়ন হলে আরো বেশি সেবা দিয়ে জনগণের জীবন রক্ষা করা যেত। দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর তুলনায় এই আইসিইউ শয্যার সংখ্যা খুবই অপ্রতুল বলে উল্লেখ করে হাসপাতালের এই পরিচালক বলেন, আরো আইসিইউ এবং জনবল থাকলে বহু মানুষের উপকার হতো। এব্যাপারে সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করছি।



আরো সংবাদ


ফুলেল শ্রদ্ধায় সিক্ত নাট্যজন মাহমুদ সাজ্জাদ শাস্তি পেলেন লিটন `দোষারোপের সংস্কৃতির ফলে মূল অপরাধীরা পার পেয়ে যায়' রাষ্ট্রীয়ভাবে মিলাদুন্নবী পালিত হওয়ায় রাষ্ট্রের মর্যাদা বৃদ্ধি পেয়েছে : চসিক মেয়র ভোটার তালিকায় মৃত অর্জুন হাইকোর্টের আদেশে জীবিত, করবেন নির্বাচন পশ্চিম তীরে ১৩৫৫ বাড়ি নির্মাণ করবে ইসরাইল দারিদ্র্য বিমোচনে দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোর কাজ করা উচিত : প্রধানমন্ত্রী মানবসভ্যতার অবিচ্ছেদ্য অংশ হচ্ছে মিডিয়া : আবদুল্লাহ তাহের রবি’র শিক্ষার্থীদের চুল কাটার প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি আমরা আন্তরিকভাবেই নয়া দিগন্তের শুভাকাঙ্ক্ষী : মির্জা ফখরুল চলাচলের পথ বন্ধের প্রতিবাদ করায় সংঘর্ষে আমতলীতে নারীসহ আহত ১০

সকল