১৯ জুন ২০২১
`
গাজীপুর মহানগর সংবাদদাতা

ছুটি নিয়ে টঙ্গীতে পুলিশ-পোশাকশ্রমিক সংঘর্ষ, আহত অর্ধ শতাধিক

গুলিবিদ্ধ ১৩ শ্রমিককে ঢামেকে স্থানান্তর
ছুটি নিয়ে টঙ্গীতে পুলিশ-পোশাকশ্রমিক সংঘর্ষ, আহত অর্ধ শতাধিক - ছবি - নয়া দিগন্ত

ঈদে বর্ধিত ছুটির দাবিতে টঙ্গীতে হামীম শিল্প গ্রুপের ক্রিয়েটিভ কালেকশন লিমিটেড কারখানার আন্দোলনরত শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে।

সংঘর্ষে টঙ্গী শিল্প এলাকার মিল বাজার শহীদ সুন্দর আলী সড়কে ক্রিয়েটিভ কালেকশন লিমিটেড কারখানা ও আশপাশের এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এতে পাঁচ পুলিশ সদস্যসহ অর্ধ শতাধিক শ্রমিক আহত হয়েছেন।

পুলিশের গুলিতে গুরুতর আহত ১৩ শ্রমিককে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। তারা হলেন মামুন (২৭) পিতা রেহান উদ্দিন, রবি (২১) পিতা রমজান আলী, লতিফ (১৯) পিতা কামাল উদ্দিন, ইমরান (১৯) পিতা কবির হোসেন, রুবেল (২৪) পিতা নজরুল, রুবেল (২২) পিতা চাঁন মিয়া, রনি (২২) পিতা রমজান আলী, এহসানুল হক (৩৫) পিতা আবুল কাশেম, রাজীবুল (২৫) পিতা জাকির হোসেন, হাসান (২৫) পিতা মিন্টু মিয়া, হাসিনা (৪০) স্বামী মিজানুর রহমান, সাব্বির (২২) পিতা ছিরু মিয়া, ও সাবিনা (২৫) স্বামী হানিফ। সংঘর্ষে গুরুতর আহত পুলিশের সিটি এসবি শাখার এএসআই রুবেলকে (৩০) টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনালের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিরা উক্ত হাসপাতালসহ বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

আন্দোলনরত শ্রমিকরা জানান, তারা আরো আগে থেকেই ঈদুল ফিতর উপলেক্ষে দশ দিনের ছুটির দাবি জানিয়ে আসছিলেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ সর্বোচ্চ সাত দিনের ছুটি দিতে রাজি হয়। পরে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে শ্রমিকরা দশ দিনের ছুটি ভোগ করার জন্য বিগত দু’টি বন্ধের দিন কাজ করেন। ঈদের ছুটির মধ্যেই আরো একটি বন্ধের দিন পড়ায় শ্রমিকদের হিসেবে তারা মোট দশ দিনের ছুটি প্রাপ্ত হন। কিন্তু সোমবার সকালে শ্রমিকরা কাজে যোগদান করতে এসে জানতে পারেন, তাদেরকে সাত দিনেরই ছুটি দেয়া হচ্ছে। এতে ক্ষুব্দ হয়ে শ্রমিকরা কল বন্ধ রেখে দশ দিনের ছুটির দাবিতে কর্মবিরতি শুরু করেন।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের দক্ষিণ বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ ইলতুৎ মিশ জানান, অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কায় কারখানায় পুলিশ মোতায়েন করা হলে শ্রমিকরা পুলিশের সাথে উশৃঙ্খল আচরণ শুরু করে। একপর্যায়ে শ্রমিকরা পুলিশকে লক্ষ করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে পুলিশ শর্টগানের গুলি বর্ষণ করে। শ্রমিকদের হামলায় শিল্প পুলিশের একজন এএসপি-সহ পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

এদিকে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশের কাঁদানে গ্যাস, সাউন্ড গ্রেনেড ও রাবাল বুলেটের মুখে শ্রমিকরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। পরে বেলা পৌনে ১টার দিকে শ্রমিকরা একত্রিত হয়ে স্থানীয় মিলগেট বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ঢাকা-ময়নসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে। শ্রমিকদের মহাসড়ক থেকে হটাতে পুলিশও আরো শক্তি বৃদ্ধি করে। একপর্যায়ে বেলা সোয়া ১টায় কাঁদানে গ্যাস, সাউন্ড গ্রেনেড ও শর্টগানের গুলিবর্ষণ করে পুলিশ শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পরে পুলিশ প্রহরায় যানবাহন চলাচল শুরু হলে বেলা দেড়টার দিকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনালের হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার মাসুদ রানা জানান, পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষের ঘটনায় সোমবার বেলা দেড়টা পর্যন্ত ১৯ জনকে হাসপাতালে আনা হয়েছে। তাদের মধ্যে বুলেটবিদ্ধ ১৩ জন শ্রমিককে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। পুলিশের একজন অফিসারকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং বাকীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। আহত শ্রমিকদের অধিকাংশই গুলিবিদ্ধ (রাবার বুলেট) বলে তিনি জানান। এছাড়া আহত নারী শ্রমিকদের বেশির ভাগই কাঁদানে গ্যাসে অসুস্থ হয়ে পড়েন।

এদিকে ঈদ বোনাস, বকেয়া বেতন ও বর্ধিত ছুটির দাবীতে টঙ্গীর সাতাইশ এলাকার তামিশনা পোশাক কারখানায়ও শ্রমিক অসন্তোষ বিরাজ করছে। কারখানাটির আন্দোলনরত শ্রমিকরা সোমবার কর্মবিরতি পালন করে। পরে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সফল আলোচনার পর বিকেল ৩টায় তারা কাজে যোগ দেন।



আরো সংবাদ