১৬ জুন ২০২১
`

ফরিদপুরের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও কবি মাস্টার ইউনুস আলী মিয়াকে স্মরণ

মুহাম্মদ ইউনুস আলী - ছবি : নয়া দিগন্ত

মন ভালো নেই ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলাধীন দাদপুর ইউনিয়নবাসীর। গত বছর আজকের এই দিন ৮ মে তারা হারিয়েছে তাদের প্রিয় মানুষ মাস্টার মুহাম্মদ ইউনুস আলী মিয়াকে। এক বছর গত হলেও তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে ইউনিয়নবাসীর হৃদয়ে আবার যেন মৃত্যুশোক জেগে ওঠেছে, সবাই শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছে তাকে।

মাস্টার মুহাম্মদ ইউনুস আলী মিয়া দাদপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও রাঙ্গামুলারকান্দী হাজি আব্দুল্লাহ একাডেমীর সহকারী প্রধান শিক্ষক ছিলেন। রাজনীতিতে জড়িত থাকলেও দীর্ঘদিন শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত থাকায় স্থানীয় লোকজন তাকে ‘মাস্টার সাব’ সম্মোধন করতো। এজন্য তার বড় পরিচয় একজন আদর্শ শিক্ষক, সাবেক চেয়ারম্যান নয়। সমাজসেবা, শিক্ষা ও সাহিত্যচর্চায় তিনি নিজেকে অনন্য উচ্চতায় আরোহণ করিয়েছিলেন।

সাহিত্যে প্রত্যুৎপন্নমতিত্ব তার সবচেয়ে বড় গুণ ছিল। রাঙ্গামুলারকান্দি স্কুলের বিভিন্ন অনুষ্ঠান উপলক্ষে তিনি খুব সুন্দর সুন্দর গান- কবিতা রচনা করতেন। এবং নিজেই সুর করে মূল অনুষ্ঠানে ছাত্র-ছাত্রীদের দিয়ে ওই গান পরিবেশন করাতেন। তাঁর রচিত গানে আগত বড় বড় শিক্ষাবিদ অতিথিরাও মুগ্ধ হতেন। বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেতারেও তার লিখিত গান প্রচারিত হয়েছে। খ্যাতিমান কবি হিসেবে জাতীয় অঙ্গনসহ তিনি অসংখ্য পুরস্কার অর্জন করেছেন। এজন্য এলাকায় একজন আদর্শ গুণী মানুষ হিসেবে যথেষ্ট সমাদর ছিল তার।

কবি হিসেবে তার লেখায় অসাম্প্রদায়িক চেতনা ফুটে উঠতো। সেই থেকেই তিনি রচনা করেন কাব্যগ্রন্থ শ্মশান গোরস্থান। এছাড়াও বাংলা সাহিত্যে অবদানের সাক্ষী স্বরূপ তিনি একাধিক কাব্যগ্রন্থ রচনা করে গেছেন- এরমধ্যে শয়তানের ভাই, প্রেমাঞ্জলি, ফুলপাখি ও ভাগ্যরজনী উল্লেখযোগ্য।

মাস্টার ইউনুস আলী মিয়া নিজ গ্রামে কোন্দারদিয়া দাখিল মাদরাসার সহপ্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। প্রতিষ্ঠানটি এমপিওভুক্ত করাতে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। একইসঙ্গে শিশুদের শিক্ষার জন্য নিজের মায়ের নামে কোন্দারদিয়ায় প্রতিষ্ঠা করেন সবজান খাতুন কিন্ডারগার্টেন স্কুল। এছাড়াও এলাকার শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য তার অবদান অপরিসীম।

প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে মাস্টার মুহাম্মদ ইউনুস আলী মিয়ার স্মরণে আজ শনিবার পরিবারের পক্ষ থেকে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। বোয়ালমারী উপজেলার কোন্দারদিয়া গ্রামে তার নিজ বাসভবনে ইফতারের আগে কোরআনখানি ও বিশেষ দোয়াও অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এলাকাবাসীকে ইফতার মাহফিলে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন তার মেঝ ছেলে বিভাগদী শহীদস্মৃতি মহাবিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম। একইসাথে পিতার রুহের মাগফেরাত কামনায় দেশবাসীর কাছে দোয়াও চেয়েছেন তিনি।



আরো সংবাদ