০৪ মার্চ ২০২১
`

স্ত্রীর পরকীয়া জেনে ফেলায় স্বামীকে খুন, ৪ বছর পর হত্যার রহস্য উন্মোচন

আব্দুল মালেককে গ্রেফতার করেছে পিবিআই - ছবি : নয়া দিগন্ত

গাজীপুরে স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমিক ও তার বন্ধুদের হাতে খুন হন আব্দুর রহিম নামে এক ব্যক্তি। গাজীপুর সিটি করপোরেশনের পোড়াবাড়ির এ ঘটনায় জড়িত এক যুবককে গ্রেফতারের মাধ্যমে ঘটনার প্রায় চার বছর পর এ হত্যার রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

বৃহস্পতিবার বিকেলে গাজীপুর পিবিআই’র পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাকছুদের রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।

গ্রেফতারকৃতের নাম আব্দুল মালেক। তিনি গাজীপুর সিটি করপোরেশনের দক্ষিণ সালনা এলাকার তমিজ উদ্দিনের ছেলে।

পিবিআই’র পুলিশ সুপার জানান, অটোরিক্শাচালক আব্দুর রহিমের স্ত্রী আমেনা বেগমের সাথে দক্ষিণ সালনা এলাকার মৃত চান মিয়ার ছেলে আলমগীরের পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে উঠে। বিষয়টি আব্দুর রহিম জেনে ফেলেন। আলমগীর স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী ব্যক্তি।

অবৈধ সম্পর্কের সংবাদটি প্রকাশ হলে প্রেমিকার স্বামীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন আলমগীর। পরিকল্পনানুযায়ী ২০১৭ সালের ১৩ এপ্রিল রাতে আলমগীর তার বন্ধু লিটনের মাধ্যমে কৌশলে রহিমকে ডেকে এনে আব্দুল মালেক ও নাসিরের সহযোগিতায় এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান। পরে স্বজনরা তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়।

পর দিন উন্নত চিকিৎসার জন্য রহিমকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী আমেনা বেগম অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে জয়দেবপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। জয়দেবপুর থানা ও জিএমপির সদর থানা পুলিশ প্রায় সোয়া দুই বছর তদন্ত শেষে আদালতে মামলার চূড়ান্ত রিপোর্ট দাখিল করে। পরে আদালত স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য পিবিআই’র গাজীপুর জেলাকে নির্দেশ দেন।

এর প্রেক্ষিতে মামলাটি তদন্তকালে সোমবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দক্ষিণ সালনা এলাকা থেকে আব্দুল মালেককে গ্রেফতার করে পিবিআই। গ্রেফতারকৃতকে মঙ্গলবার আদালতে হাজির করা হলে তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। এর আগে প্রেমিক আলমগীরকেও গ্রেফতার করা হয়।

ঘটনার প্রায় তিন বছর আট মাস পর চাঞ্চল্যকর আব্দুর রহিম হত্যার রহস্য উন্মোচন হয়েছে।



আরো সংবাদ