২৫ অক্টোবর ২০২০

বালিয়াকান্দিতে হড়াই নদীর ও কানা বিলের অবৈধ বাঁধ অপসারণ

বালিয়াকান্দিতে হড়াই নদীর ও কানা বিলের অবৈধ বাঁধ অপসারণ - ছবি : নয়া দিগন্ত

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর ইউনিয়নের হড়াই নদী ও কানা বিলের উপর অবৈধ বাঁধ বৃহস্পতিবার দুপুরে অপসারণ করেছে উপজেলা প্রশাসন।

জানা গেছে, হড়াই নদী ও কানা বিলের উপর অবৈধ বাঁধ নির্মাণ করে মাছ ধরার কারণে আশেপাশের আবাদী জমিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় স্থানীয় জনগণ উপজেলা নির্বাহী অফিসার একেএম হেদায়েতুল ইসলামে নিকট অভিযোগ করেন। অভিযোগটির তদন্ত উপজেলা মৎস্য অফিসারকে প্রদান করলে তিনি সত্যতা আছে মর্মে প্রতিবেদন দাখিল করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার একেএম হেদায়েতুল ইসলামের নির্দেশে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট এসএম আবু দারদা উপজেলার বহরপুর ইউনিয়নের ডহর পাচুরিয়া গ্রামে সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে হড়াই নদী ও কানা বিলে বাঁশ দিয়ে নির্মিত দুইটি অবৈধ বাঁধ ও আশেপাশের জমিতে জলাবদ্ধতার বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেন। পরে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট এস এম আবু দারদার নেতৃত্বে অবৈধ বাঁধ স্থাপনা অপসারণের জন্য অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযানের সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো: শাহাদত ইসলাম, স্থানীয় ইউপি মেম্বর জিয়াউর রহমান, ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা আব্দুস সোবহানসহ স্থানীয় জনগণ উপস্থিত ছিলেন। অভিযানে সহযোগিতা করেন বালিয়াকান্দি থানা পুলিশের সদস্যবৃন্দ। অভিযানে শান্তিপূর্ণভাবে দুইটি বাঁধ সম্পূর্ণরূপে অপসারণ করা হয় এবং বাঁধ নির্মানকারীদের নিকট থেকে মুচলেকা নেয়া হয় যেন ভবিষ্যতে এধরণের কোন স্থাপনা পুনরায় নির্মাণ না করে।

অভিযানের বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করেছেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) এসএম আবু দারদা।

উল্লেখ্য, মোকছেদ শেখ, মোয়াজ্জেম দেওয়ান, আব্দুর রউফ মিয়া ও আকবর শেখ বাদী হয়ে বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট বংকুর গ্রামের মজিবর রহমান ওরফে মজিবর চৌকিদার, লোকমান মণ্ডল ও আটদাপুনিয়া গ্রামের বজলু মণ্ডল ও কাশেম মণ্ডলের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন।


আরো সংবাদ