১২ আগস্ট ২০২০

কিশোরগঞ্জে করোনায় পুলিশ সদস্যের মৃত্যু

-
24tkt

কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এক পুলিশ সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার বিকালে আইসোলেশনে থাকা অবস্থায় রাজারবাগ পুলিশ লাইনস হাসপাতালে তিনি মারা যান।

মৃত ওই পুলিশ সদস্যের নাম শফিকুল ইসলাম (৫১)। তিনি ভৈরব হাইওয়ে পুলিশে কনস্টেবল পদে কর্মরত ছিলেন। তার বাড়ি নরসিংদী জেলায়।

কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মোঃ মুজিবুর রহমান জানান, কর্মস্থলে থাকা অবস্থায় কনস্টেবল শফিকুল অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। পরে ১৮ জুন তার শরীরে কোভিড-১৯ ধরা পড়ে। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকার রাজারবাগ পুলিশ লাইনস হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। সেখানেই আইসোলেশনে থাকা অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

এদিকে কিশোরগঞ্জের সাত উপজেলায় নতুন করে ১১২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৯ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে বাজিতপুর উপজেলাতে সর্বোচ্চ শনাক্ত হয়েছেন সাতজন। শুক্রবার রাতে পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে এই ফল আসে। এ নিয়ে জেলায় কোভিড–১৯–এ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল এক হাজার ৭১৭ জনে। অন্যদিকে জেলার দুই উপজেলায় ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আটজন। এ নিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৩৬২ জন। পুলিশ সদস্যসহ মারা গেছেন ৩০ জন। শনিবার সকালে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলার সিভিল সার্জন ডা. মোঃ মুজিবুর রহমান।
নতুন শনাক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছেন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় একজন, হোসেনপুর উপজেলায় একজন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় চারজন, কুলিয়ারচর উপজেলায় দু’জন, ভৈরব উপজেলায় তিনজন, নিকলী উপজেলায় একজন ও বাজিতপুর উপজেলায় সাতজন। নতুন সুস্থ হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছেন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার পাঁচজন ও ভৈরব উপজেলায় তিনজন।

সিভিল সার্জন জানান, ৯ জুলাই হাসপাতাল ও উপজেলাগুলো থেকে সংগৃহীত ৯৪ জনের নমুনা কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়। অন্যদিকে ৮ ও ৯ জুলাই বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে সংগৃহীত ১৮ জনের নমুনা আইসিডিডিআরবিতে পরীক্ষা করা হয়। দুটি ল্যাবে মোট ১১২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

সিভিল সার্জন জানান, বর্তমানে অন্য জেলায় শনাক্তকৃত একজন করোনা পজেটিভসহ জেলায় মোট ৩২৬ জন করোনা রোগী এবং নয়জন সাসপেক্টটেড বিভিন্ন হাসপাতাল ও নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে রয়েছেন।


আরো সংবাদ