০৭ আগস্ট ২০২০

করোনা সন্দেহে কাছে আসেনি কেউ, লাশ পড়ে রইল রাস্তায়

করোনা সন্দেহে কাছে আসেনি কেউ, লাশ পড়ে রইল রাস্তায় - ছবি : নয়া দিগন্ত
24tkt

কয়েকদিন ধরে ঠাণ্ডা-জ্বরে ভুগছিলেন টাঙ্গাইলের কালিহাতী পৌরসভার উত্তর চামুরিয়া এলাকার বৃদ্ধ অমল শীল (৬৫)। শুক্রবার সকালে অটোরিকশাযোগে তার স্ত্রী পবন রানী শীল তাকে নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যাচ্ছিলেন। কিন্তু পথেই অমল শীলের মৃত্যু ঘটে। আর বিপত্তি ঘটে তখনই।

করোনা সন্দেহে অটোরিকশার চালক রাস্তায় তার লাশ ফেলে চলে যান। করোনায় সংক্রমিত হওয়ার ভয়ে স্বজনরাও কাছে আসেনি। দীর্ঘ সময় পবন রানী একাই তার স্বামীর লাশ আকড়ে ধরে রাস্তায় বসেছিলেন। অবশেষে বিকেলে প্রশাসনের সহযোগিতায় লাশের সৎকার সম্পন্ন করা হয়।

পবন রানী বলেন, আমার স্বামীকে কয়েকদিন আগে হাসপাতালে ভর্তি করেছিলাম। বাড়িতে নিয়ে আসার পর ঠাণ্ডা-জ্বর ও কাশি বেড়ে যায়। সকালে হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান। করোনা সন্দেহে স্বজনেরা কেউ কাছে আসেনি বলে আক্ষেপ প্রকাশ করেন তিনি।

স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর এনামুল হক বলেন, যখন জানতে পারলাম করোনার ভয়ে গ্রামের কেউ সৎকারে এগিয়ে আসছে না, তখন পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় লাশ সৎকারের ব্যবস্থা করা হয়।

কালিহাতী থানার ওসি হাসান আল মামুন বলেন, করোনা সন্দেহে ভয়ে অমল শীলের লাশের সৎকার করতে তার আত্মীয়-স্বজনেরা কেউ এগিয়ে আসছেন না, এমন খবর পেয়ে সাথে সাথে এসআই হেলাল মাহমুদকে সেখানে পাঠাই। পরে স্থানীয় লোকজন এবং ইসলামী ফাউন্ডেশনের উপজেলা কমিটির সহযোগিতায় লাশ দাহ করা হয়।

করোনাভাইরাসে মৃত ব্যক্তিদের দাফন সংক্রান্ত ইসলামীক ফাউন্ডেশনের কালিহাতী কমিটির প্রধান মওলানা মোহাম্মদ আবু হানিফ বলেন, দীর্ঘ সময় তার লাশটি রাস্তায় পড়েছিল। পুলিশ ও আমরা সেখানে উপস্থিত হলে স্থানীয় কিছু হিন্দু লোকজন এগিয়ে আসেন। তারপর শ্মশানঘাটে লাশটি দাহ করার ব্যবস্থা করি।

কালিহাতী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: সাইদুর রহমান বলেন, মৃত ব্যক্তির করোনা হয়েছিল কিনা তা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। রিপোর্ট পেলেই বিষয়টি জানা যাবে।


আরো সংবাদ