০২ ডিসেম্বর ২০২০

ছেলেকে পেটানোর স্ত্রীর মামলায় স্বামী জেলে

ছেলেকে পেটানোর স্ত্রীর মামলায় স্বামী জেলে - ছবি : সংগ্রহ

ছেলেকে মারধরের জের ধরে মাদারীপুরের কালকিনিতে স্ত্রীর মামলায় সরোয়ার মুন্সী নামের এক স্বামীকে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে থানা পুলিশ। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকালে পুলিশ সূত্রে এ তথা নিশ্চিত করা হয়েছে।

জানাগেছে, উপজেলার ডাসার থানাধীন মধ্য ধূলগ্রাম গ্রামের মুজিবুর রহমান মুন্সী’র ছেলে সরোয়ার হোসেন মুন্সী ২৬ বছর আগে মাদারীপুর সদরের চরমুগুরিয়া এলাকার আব্দুল সত্তার চৌকিদারের ছোট মেয়ে নুরুন্নহারকে বিয়ে করেন। ওই বিয়েতে যৌতুক হিসেবে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার অন্যান্য জিনিসপত্র আনেন সরোয়ার। বিয়ের পর তাদের সংসারে এক ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই পুনরায় যৌতুকের জন্য নুরুন্নাহারকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন শুরু করা হয়।

এ নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচতে নিরুপায় হয়ে নুরুন্নাহার বাবার বাড়ি থেকে একাধিকবার টাকা এনে দিলেও বিন্দু মাত্র কমেনি নির্যাতনের মাত্রা। একপর্যায় সরোয়ার মুন্সী বিদেশ গমন করেন এবং বিদেশে যাওয়ার পর কোনো রকমের যোগাযোগ রাখেনি স্ত্রী ও সন্তানের সাথে। দীর্ঘ ১০ বছর প্রবাশে কাটিয়ে গত ৯ বছর আগে দেশে আসেন সরোয়ার। বিদেশ থেকে এসে আবারো স্ত্রীর উপর যৌতুকে জন্য নির্মম নির্যাতন চালাতে থাকেন তিনি।

এরই মধ্যে উপজেলার পার্শ্ববর্তী আগৈলঝাড়া উপজেলার মাগুরা গ্রামে গোপনে দ্বিতীয় বিয়ে করেন সরোয়ার। এ দ্বিতীয় বিয়ের পর প্রথম স্ত্রীর উপর নির্যাতনের মাত্রা আরো বাড়াতে থাকে। একপর্যায়ে সরোয়ার মুন্সী তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে পৈত্রিক ভিটায় বসবাস শুরু করেন। সরোয়ার হোসেন মুন্সীর প্রথম স্ত্রী ৩ বছর আগে মিনা নামের এক কন্যাকে লালন-পালনের জন্য আনেন। এর থেকে একমাত্র ছেলে আরাফাত মুন্সী ও পালিত মেয়ে মিনাকে নিয়ে বাধ্য হয়ে অন্যত্র বসবাস করে আসছিলেন নির্যাতিতা নুরুন্নাহার।

সম্প্রতি সরোয়ার মুন্সী নুরুন্নাহারের পালিত মেয়ে মিনাকে নিজের কাছে নিতে চাইলে গত ২৯ নভেম্বর শুক্রবার সকালে উপজেলার বালিগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদে এক সালিশ বৈঠকে ওই পরিষদের চেয়ারম্যান জাকির হোসেন খাঁনের উপস্থিতিতে অভিযুক্ত সরোয়ার মুন্সী নুরুন্নাহারকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মারধরের চেষ্টা করেন।

এ সময় নুরুন্নাহার বেগমের একমাত্র ছেলে আরাফাত মুন্সী (২০) তার বাবাকে থামানোর চেষ্টা চালায়। এসময় বাবা সরোয়ার তার সঙ্গীয় লোকজন নিয়ে ছেলে আরাফাতকে আঘাত করতে থাকে। আঘাতের একপর্যায় মাথা ফেটে যায় আরাফাতের। গুরুতর আহত অবস্থায় আরাফাতকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

এ সময় নুরুন্নাহারের পালিত কন্যা মিনাকে নিজের কাছে নিয়ে যান সরোয়ার। এ ঘটনায় আরাফাতের মা নুরুন্নাহার তিন জনকে আসামী করে ডাসার থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলা দায়েরে পর গত সোমবার সকালে মাদারীপুর র‌্যাব-৮ সরোয়ার মুন্সীকে তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। পরে তাকে ডাসার থানায় সোপর্দ করে। সোমবার বিকেলে গ্রেফতারকৃত সরোয়ার মুন্সীকে মাদারীপুর জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।

এ ব্যাপারে উপজেলার ডাসার থানার ওসি গোলাম কিবরিয়া বলেন, হামলা মামলার আসামি সরোয়ারকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।


আরো সংবাদ