০৯ এপ্রিল ২০২০

পাটকল শ্রমিকদের গণঅনশনের প্রতি জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের সংহতি প্রকাশ

পাটকল শ্রমিকদের গণঅনশনের প্রতি জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের সংহতি প্রকাশ - ছবি : সংগ্রহ

পাটকল শ্রমিকদের ১১ দফা মেনে নেয়ার দাবি জানিয়ে তাদের গণঅনশনে সংহতি প্রকাশ করেছেন জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশন নেতৃবৃন্দ।
সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করে শ্রমিক ফেডারেশন এসংহতি জানায়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কামরূল আহসান। মজুরী কমিশনের রোয়েদাদ বাস্তবায়ন, শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি-ভাতা পরিশোধ, পিপিপি’র প্রকল্পে নয় সরকারি উদ্যোগে পাটকলের মেশিন পত্র আধুনিকিকরণ করা ও উৎপাদন বৃদ্ধি করা এবং শ্রমিকদের প্রভিডেন্ট ফান্ডের টাকা ফেরত দিয়ে শ্রমিক-কর্মচরিদের কল্যানে তা ব্যবহার, ছাটাইকৃত শ্রমিকদের কাজে পুনর্বহালসহ ১১ দফা দাবির সমর্থনে জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের উদ্যোগে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আমিরুল হক আমিন বলেন, পাটকল শ্রমিকদের ১২ সপ্তাহের বেতন-ভাতা বকেয়া পড়েছে। পাটকল কর্পোরেশনের খামখেয়ালীতে এই অবস্থা তৈরী হয়েছে। কর্মচারীদের ও প্রায় ৪ মাসের বেতন বাকী পড়েছে। পাটকল শ্রমিকরা দীর্ঘদিন ধরে রাজপথে আন্দোলন করেও কোনো সুরাহা হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে তারা গণ-অনশন কর্মসূচি যেতে বাধ্য হচ্ছেন। তিনি বলেন ২০১৫ সালে মজুরী কমিশনের রোয়েদাদ ঘোষণা করা হলেও তা আজও বাস্তবায়ন হয়নি।

সমাবেশে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড মোস্তফা আলমগীর রতন, তিনি বলেন এটা বিজয়ের মাস এই মাসে শ্রমিকরা তাদের পাওনা দাবীতে রাস্তায় থাকবেন তা জাতির জন্য দুর্ভাগ্যজনক।

সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন ফেডারেশনের সহ-সভাপতি জনাব আ.স.ম. জাকারিয়া, জনাব হিমাংশু সাহা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জনাব এম, দেলোয়ার হোসেন, প্রচার সম্পাদক জনাব আনোয়ার আলী, নারী বিষয়ক সম্পাদক শাহানা ফেরদৌসী লাকী দপ্তর সম্পাদক জনাব কামরুল হাসান প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তরা পাটকলগুলোকে আধুনিককরণের নামে ‘পিপিপি’ প্রকল্প বাতিল করে রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে পাটকলের যন্ত্রাংশ আধুনিকিকরণ ও উন্নয়ন ঘটিয়ে এই শিল্পের উৎপাদন বৃদ্ধি করার ব্যবস্থা নিতে হবে। বক্তারা পাটের সুদিন ফিরিয়ে আনার দাবি জানান। সমাবেশে শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল রাজপথ প্রদক্ষিণ করে।


আরো সংবাদ