০৮ জুলাই ২০২০

কিশোরীকে ধর্ষণের পর ভিডিও ছড়িয়ে দিল যুবলীগ নেতা

মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলা যুবলীগ নেতা কামরুল হাসান কামালকে এক কিশোরীকে ধর্ষণ এবং ধর্ষণের ভিডিও ইন্টানেটে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগের মামলায় ঘিওর থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে। শনিবার কিশোরীর বাবা থানায় মামলা করার পর ওই রাতেই কামালকে গ্রেফতার করা হয়।

রোববার দুপুরে কামালকে কোর্টে হাজির করে ৫ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে। তবে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ায় তাকে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয়ার নির্দেশ দেন আদালত।

এদিকে ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি মামলায় আটক কামালকে ঘিওর উপজেলা যুবলীগ থেকে বহিস্কার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মাহবুবুর রহমান জনি।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, কিছুদিন আগে ঐ কিশোরীর বড় বোনকে বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে যায় কামাল। তার আন্তরিক ব্যবহারে কিশোরীর পরিবারের সাথে সুসম্পর্ক গড়ে উঠে। সেই সূত্রে ওই কিশোরীকে বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে নিয়ে যেত কামাল। দুই মাস আগে কামাল কিশোরীকে নিয়ে ঢাকায় বেড়াতে যায়। সেখানে একটি হোটেলে স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে ওঠে। হোটেল রুমে কামাল ভয় দেখিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের ছবি ভিডিও করে। পরে তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে নিয়মিত ধর্ষণ করতো।

অভিযোগে বলা হয়েছে, সেই ভিডিও লোক মারফৎ দেখতে পান কিশোরীর বাবা। শনিবার তিনি ঘিওর থানায় বাদি হয়ে মামলা করেন।

ঘিওর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশরাফুল ইসলাম জানান, শনিবার মামলা হওয়ার পর রাতেই কামালকে গ্রেফতার করা হয়। রোববার দুপুরে কামালকে কোর্টে হাজির করে ৫ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে। তবে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ায় তাকে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয়ার নির্দেশ দেন আদালত।


আরো সংবাদ