৩০ মে ২০২০

১২৮ বছর বয়সের বৃদ্ধের আকুতি : ‘বাবা আমাকে বাঁচাও, ওরা আমারে খেতে দেয় না’

১২৮ বছর বয়সের বৃদ্ধের আকুতি ‘বাবা আমাকে বাঁচাও, ওরা আমারে খেতে দেয় না’ - ছবি : সংগৃহীত

দুই চোখে পানি টলমল। বয়সের ভারে ন্যুব্জ। বয়স পেরিয়েছে ১২৮ বছর। বন্দর আলী নামের এ বৃদ্ধ গতকাল মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে গুটিগুটি পায়ে লাঠি ভর দিয়ে এসেছেন নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানায়। সোনারগাঁও থানার চরভবনাথপুর গ্রামের বাসিন্দা তিনি। থানায় এসে খুঁজতে থাকেন দারোগা আবুল কালাম আজাদকে।
তাকে পেয়ে আবেগাপ্লুত প্রবীণ বন্দর আলী কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, বাবা, তুমি আমাকে বাঁচাও। আমার ছেলে ও ছেলেদের বউরা আমাকে খাবার দেয় না এবং কোনো খোঁজখবরও রাখে না। উল্টো আমাকে ওরা নির্যাতন করে। মারে। আমাকে খেতে দেয় না। 

অভিযোগ পেয়ে দারোগা আজাদ তাকে সাথে নিয়ে চরভবনাথপুর গ্রামে গিয়ে দেখেন প্রবীণ বন্দর আলীর জীবনের করুণ দৈন্যদশা। 
দারোগা আজাদ গতকাল রাতে নয়া দিগন্তকে জানান, চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা কঠিন হবে ১২৮ বছরের একজন প্রবীণ মানুষের শেষ জীবনের নিদারুণ কষ্টের দৃশ্য। একটি গোয়ালঘরের মতো ঘরে থাকেন বৃদ্ধ বন্দর আলী। পলিথিন দিয়ে ঘেরা ওই ঘরে তার কাটে দিনরাত। 

তিনি জানান, বন্দর আলীর চার ছেলে ও দুই মেয়ে। এর মধ্যে এক ছেলে মানসিকভাবে অসুস্থ। বাকি তিন ছেলে কর্মঠ। মধ্যবিত্ত বলা চলে। কিন্তু তারা তাদের বৃদ্ধ বাবা বন্দর আলীকে কোনো খাবার দেয় না। ছেলের বউরা তাকে মারধর করে এমন অভিযোগ বন্দর আলীর। 

তিনি জানান, বৃদ্ধের অভিযোগ পেয়ে দ্রুত আইনি ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)। আমি ফোর্সসহ বৃদ্ধ বাবাকে নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আশপাশের লোকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করি। ঘটনার সত্যতাও মিলে, কিন্তু তার ছেলেদের বাড়িতে না পাওয়ায় তাদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান চলছে। 
দারোগা আজাদ জানান, বন্দর আলীর ছেলে ও ছেলের বউদের কাছে বৃদ্ধ বাবা বোঝা হয়ে গেছেন। তবে আমিই বৃদ্ধ বাবাটির দায়িত্ব নিবো, যত দিন আল্লাহ তাকে বাঁচিয়ে রাখেন। একবার ভাবুনতো, আমরা কতটা অমানুষ হলে এমন বৃদ্ধ বাবাকে কষ্ট দিতে পারি? 

এ দিকে বন্দর আলীর প্রতি তার সন্তানদের নির্যাতনের বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এলে ইকবাল মাহমুদ মেম্বার নামের একজন ফেসবুকে লিখেন, এরা সন্তান নামের কলঙ্ক। এদের আইনের আওতায় এনে কঠিন বিচার করার দাবি করছি। 
বি এম সুজন লিখেন, এই বাবা যেন তার অধিকার ফিরে পায় আপনি সেই ব্যবস্থা নিবেন...পরে তার খোঁজখবর নিবেন তিনি কেমন আছেন... ১৭ কোটি মানুষের দোয়া আর ভালোবাসা থাকবে আপনার জন্য।

এইচ এম ফারুক জানান, এই বৃদ্ধ বাবার অধিকার যেন ১৭ কোটি মানুষের অধিকার থেকেও বেশি মূল্যবান হয় সেই কামনা করি। 
মো: রবিন বিপি জানান, আমার দেশ ও জাতি তো এগুলোই আশা করে, যেন আমাদের কাছ থেকে উপকৃত হয়। আপনাকে ধন্যবাদ স্যার, আমাদের পুলিশ বাহিনীর সম্মান বাড়ানোর জন্য।

দেলোয়ার হোসেন জানান, সন্তান নামের জানোয়ারগুলো কেন বুঝতে পারছে না যে, বাবা-মা এক মিনিটের জন্য বেঁচে থাকলে তা সন্তানদের জন্য মঙ্গল। তাই আমি এই বাবার পক্ষে আপনাদের কাছে বিচার চাই। যেন আর কোনো বাবা-মাকে সন্তানের হাতে লাঞ্ছিত ও অবহেলিত না হতে হয়। এর সঠিক বিচার আপনার মাধ্যমেই আমি মনে করি সম্ভব।


আরো সংবাদ