০৬ এপ্রিল ২০২০

মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতি ও তুরস্ক-ইরান সম্পর্ক

-

মধ্যপ্রাচ্যে সম্প্রতি ইরান-যুক্তরাষ্ট্র সঙ্ঘাতের কারণে ইরানের প্রতিবেশীদের মধ্যে অত্যন্ত উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে। তুরস্কও অস্বস্তির মধ্য দিয়ে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে। এ পর্যন্ত অবশ্য বড় ধরনের সঙ্ঘাত এড়ানো গেছে। তুরস্কসহ ইরানের প্রতিবেশীরা এতে কিছুটা হলেও উদ্বেগমুক্ত হয়েছে। কারণ এ অঞ্চলে কেউ আরেকটি যুদ্ধ দেখতে চায় না। ২০০৩ সালে ইরাকে মার্কিন আগ্রাসনের পর থেকে ভূরাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বিতার কারণে আঙ্কারা ও তেহরানের মধ্যে পরিপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠে এবং উভয় দেশ ভালোভাবে কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বজায় রেখেছে। ইরান-যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধ বা সঙ্ঘাত ওই অঞ্চলে তুরস্কের স্বার্থকে হুমকির মুখে ফেলে দিতে পারে। অবশ্য এতে তুরস্ক একটি আঞ্চলিক সংলাপে নেতৃত্ব দেয়ার সুযোগ পেতে পারে।
ইরান-যুক্তরাষ্ট্র সঙ্ঘাতে তুরস্কের জন্য বিপদ এবং সুযোগ-সুবিধা লাভ উভয় ধরনের পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা থাকার প্রেক্ষাপটে ইরান-তুরস্ক সম্পর্কের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটের দিকে দৃষ্টি নিবন্ধ করার জন্য একটু পেছনের দিকে ফিরে তাকানো যাক।
শত শত বছর ধরে যদিও বারবার মধ্যপ্রাচ্যের রাজনৈতিক মানচিত্র পরিবর্তিত হয়েছে, তবুও গত ৪০০ বছর ধরে এই দুই দেশের সীমান্ত অপরিবর্তিত রয়েছে। উভয় দেশের মধ্যে ঐতিহাসিকভাবে তুর্কি-ইরানি প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকা সত্ত্বে¡ও উভয় দেশ ১৬৩৯ সালের কাসর-শিরিন চুক্তির প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকে। ওই চুক্তির মাধ্যমে অটোমান এবং পারস্য সাম্রাজ্যের মধ্যে ১৫০ বছরের সঙ্ঘাতের অবসান ঘটে। অনেক বিশ্লেষক বিশেষ করে পশ্চিমা বিশ্লেষকরা এই দীর্ঘ ইতিহাস বুঝতে পারেননি। তারা তুর্কি ও ইরানের মধ্যে বন্ধুত্ব অথবা শত্রুতার ভিত্তিতেই দুই দেশকে মূল্যায়ন করে থাকেন। কিন্তু প্রকৃত ব্যাপার হলোÑ ইরান-তুরস্ক সম্পর্ক সবসময় জটিল এবং বহু দিক দিয়ে এবং বিভিন্ন বিবেচনায় প্রভাবিত হয়ে থাকে। গত ২০ বছরে ইরান-তুরস্ক সম্পর্ক বিভিন্ন আঞ্চলিক ঘটনায় প্রভাবিত হয়েছে। ১৯৯০-এর দশকব্যাপী তুরস্কের ধর্মনিরপেক্ষ প্রশাসন তুরস্কে রাজনৈতিক ইসলামের উত্থানকে ইরান সরকার কর্তৃক রফতানি করা বলে চিহ্নিত করেছে।
২০০৩ সালে ইরাকে মার্কিন আগ্রাসনের ব্যাপারে তুরস্ক তীব্র বিরোধিতা করে এবং ইরাকে হামলা চালানোর জন্য তুরস্কে প্রবেশের অনুমতি দানে অস্বীকৃতি জানায়। ইরাক ও ইরানে হামলা চালাতে তুর্কি ভূখণ্ড ব্যবহারের জন্য আমেরিকা অনুমতি চাইলে তুরস্ক নাকচ করে দেয়। তুরস্কের এই মনোবৃত্তিকে ইরান আন্তরিকভাবে স্বাগত জানায়। আবার আমেরিকা সাদ্দাম হোসেনকে ক্ষমতাচ্যুত করলে তুরস্ক তার একটি বন্ধুভাবাপন্ন সরকারকে হারায়। কারণ সাদ্দাম সরকার কুুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টির (পিকেকে) বিরুদ্ধে সীমান্তবর্তী এলাকায় হামলা চালানোর জন্য তুরস্ককে অনুমতি দিয়েছিল। অপর দিকে সাদ্দামকে আমেরিকা ক্ষমতাচ্যুত করলে ইরান খুশি হয়। কারণ একটি গুলি খরচ না করেও তেহরান তার পুরনো শত্রুর বিরুদ্ধে জয়লাভে সক্ষম হয়।
ইরাকে মার্কিন হামলার পর ইরাকের উত্তরাঞ্চলে একটি স্বাধীন কুর্দিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সম্ভাবনার ব্যাপারে তুরস্ক উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠে। এ সময় ইরাকি সুন্নিদের ভাগ্য নিয়েও তুরস্ক উদ্বেগ প্রকাশ করে। কারণ তেহরান বাগদাদের ক্ষমতায় শিয়াপন্থীদের বসানোর ব্যাপারে তৎপর হয়ে ওঠে এবং শিয়াদের ক্ষমতার ভিত্তি সুদৃঢ় করার জন্য দেশটিতে রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা উপস্থিতি জোরদার করে।
উভয় দেশের মধ্যে নতুন করে ওই প্রতিদ্বন্দ্বিতার কারণে কিন্তু তাদের মধ্যে কূটনৈতিক ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা সৃষ্টি হয়নি। প্রকৃতপক্ষে ইরাকে মার্কিন আগ্রাসনের সাত বছর পর তুরস্ক-ইরান সম্পর্ক সর্বোচ্চ পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছে। ২০২০ সালে আঙ্কারা তেহরানকে একটি পরমাণু চুক্তি স্বাক্ষরের ব্যাপারে বুঝাতে সক্ষম হয়। ওই চুক্তি অনুযায়ী ইরানি কর্তৃপক্ষ তুরস্কের কাছে ইউরেনিয়াম পাঠাতে সম্মত হয়। আর তুরস্ক এর বিনিময়ে নিউকিয়ার ফুয়েল রড সরবরাহ করতে রাজি হয়। ইরানের রিচার্স রিঅ্যাক্টরে গবেষণার জন্য তুরস্ক এই রড সরবরাহ করে। তুরস্কের সাথে এই চুক্তি করার কারণে ওবামা প্রশাসন তেহরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরওপ করে। পরমাণু চুক্তির কারণে বিপর্যয় ছাড়াও ২০১০ সালে অন্য দু’টি কারণে দুই দেশের সম্পর্কে টানাপড়েন সৃষ্টি হয়। তেহরান ও ওয়াশিংটনের আশীর্বাদপুষ্ট হয়ে নুরী আল মালিকি দ্বিতীয়বার ইরাকের প্রধানমন্ত্রী পদে মনোনয়ন লাভ করা এবং আরববসন্তের সূচনা হওয়ার কারণে।
ইরাকি প্রধানমন্ত্রী নুরী আল মালিকি তার প্রথম মেয়াদে ইরানের ব্যাপক সমর্থন পেয়ে দেশটিতে ক্রমবর্ধমানভাবে গোষ্ঠীগত তথা শিয়াপন্থী নীতি গ্রহণ করেন এবং তাতে সুন্নি মুসলমানদের সাথে দ্বন্দ্ব-সঙ্ঘাতের সৃষ্টি হয়। ফলে সুন্নি সম্প্রদায় মালিকি প্রশাসনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়ে ওঠে। বাগদাদে আঙ্কারার মিত্র হিসেবে পরিচিত ইরাকি ভাইস প্রেসিডেন্ট তারিক আল হাশিমির পর মালিকি ক্ষমতায় আসেন। এতেও আঙ্কারার সাথে তেহরানের দূরত্ব সৃষ্টি হয়। এ ছাড়া আরববসন্তের কারণেও দুই দেশের মধ্যে বৈরিতার সৃষ্টি হয়। আরববসন্তকে তুরস্ক স্বাগত জানালেও ইরান তার বিরোধিতা করে। ইরান গণতন্ত্রপন্থী প্রতিবাদ বিক্ষোভকে হুমকি হিসেবে বিবেচনা করে। আঙ্কারা আরব দেশগুলোতে গণঅভ্যুত্থানকে মধ্যপ্রাচ্যে তার প্রভাব বাড়ানোর সুযোগ হিসেবে দেখলেও তেহরান বিশেষভাবে ইরাক, সিরিয়া ও ফিলিস্তিনে প্রতিবাদ বিক্ষোভের রাশ টেনে ধরার প্রচেষ্টা চালায়। ইরান সিরিয়া যুদ্ধে সৈন্য প্রেরণ করে সেখানকার আরববসন্ত রোধ করতে সশস্ত্র যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। গত আট বছরে সিরিয়ার যুদ্ধে তেহরান ও আঙ্কারা সমর্থিত সশস্ত্র গ্রুপগুলো একে অপরের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত হয়। উভয় দেশের নেতারা সিরিয়া যুদ্ধের একটি সমাধান খুঁজে বের করার জন্য আসতানা, তেহরান এবং ইস্তাম্বুলে বারবার বৈঠকে মিলিত হয়।
সম্প্রতি মার্কিন হামলায় ইরানি শীর্ষ জেনারেল সোলাইমানির মৃত্যুর পর ইরাক সিরিয়া ও ইয়েমেনে ইরানের প্রক্সি যুদ্ধ দুর্বল হয়ে পড়বে বলে বিশ্লেষকরা মনে করেন। আঙ্কারার দৃষ্টিকোণ থেকে সিরিয়া এবং ইরাকের স্থিতিশীলতা আঙ্কারায় নিজের নিরাপত্তা এবং ভূরাজনৈতিক স্বার্থে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। উভয় দেশের অবনতিশীল পরিস্থিতির জন্য ইরানকে বড় ফ্যাক্টর বলে মনে করে তুরস্ক। তাই ইরানের প্রক্সি নেটওয়ার্ক দুর্বল হয়ে পড়লে সেটা তুরস্কের জন্য ইতিবাচক বলে আঙ্কারা মনে করে। সোলাইমানির মৃত্যু তুরস্ক-ইরান সম্পর্কে এবং কূটনৈতিক ক্ষেত্রে নতুন করে গতি সঞ্চার করতে পারে বলে বিশ্লেষকরা মনে করেন। উল্লেখ্য, তুরস্ক হচ্ছে ইরান সীমান্তবর্তী একমাত্র প্রভাবশালী ও স্থিতিশীল একটি ন্যাটো সদস্য দেশ।
ইরানি নেতৃত্ব যদি কৌশলগতভাবে অগ্রসর হয়ে পশ্চিমা বিশ্বের সাথে সম্পর্ক প্রতিষ্ঠায় আগ্রহী হয় তা হলে এ ক্ষেত্রে আঙ্কারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারবে। ২০১০ সালে তুরস্ক ইরানি পরমাণু ইস্যু সমাধানের ব্যাপারে একটি বিশ্বাসযোগ্য ভূমিকা পালন করে তা প্রমাণ করেছিল। মার্কিন চাপ অগ্রাহ্য করেই তুরস্ক এ ব্যাপারে সফলতা অর্জন করেছিল।
তাই এ ধরনের চিন্তা করলে ইরানকে সিরিয়া ও ইরাকে তার নীতি পুনর্বিবেচনা করতে হবে এবং তাদের পাল্টা প্রক্সি কৌশল নিয়ে পুনরায় চিন্তাভাবনা করতে হবে। কিন্তু এখন দুর্ভাগ্যজনকভাবে কট্টরপন্থীরা তেহরানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় সক্রিয় রয়েছেন এবং দেশকে সঙ্ঘাতের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন। এটা স্পষ্ট যে,্ ইরান-যুক্তরাষ্ট্র সঙ্ঘাতে জড়ালে তুরস্ক-আমেরিকার পক্ষে নয়, ইরানের পক্ষে থাকবে। ইরাককে কেন্দ্র করে আমেরিকা-ইরান সঙ্ঘাতে জড়ালে শুধু তুরস্ক নয় সব দেশই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই তুরস্ক চায় যুক্তরাষ্ট্র-ইরান শুধু পরমাণু ইস্যু নয়Ñ ইরাক নিয়েও আলোচনায় বসে সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ গ্রহণ করুক।

 


আরো সংবাদ

হাওরবাসীর জীবন-জীবিকা এখন হোমকোয়ারেন্টাইনে সিলেটে স্বামীর মোটরসাইকেল থেকে পড়ে স্কুল শিক্ষিকার মৃত্যু সব আদালতে সাধারণ ছুটি বাড়ল ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত ‘গার্মেন্ট মালিকরা দেড় কোটি ঢাকাবাসীকে হুমকির মুখে ফেলেছে’ প্রণোদনা প্রদানের উদ্দেশ্য যেন দূর্নীতির কারণে ব্যাহত না হয় : জাসদ করোনাভাইরাসে মারা যাওয়া দুদক পরিচালকের দাফন সম্পন্ন দলীয়করণ-দুর্নীতির ঊর্ধ্বে উঠে প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নের আহবান জামায়াতের জাপানে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা টাঙ্গাইলে অর্ধশত নমুনার মধ্যে ২২ জনের ফলাফল নেগেটিভ `করোনা থেকে দেশকে রক্ষা করতে ১৪৪ ধারার বিকল্প নেই' মসজিদের মাইকে ঘরে নামাজ পড়ার আহবান

সকল