০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

মধুভল্লুক নৈশবিহারী

মধুভল্লুক নৈশবিহারী -

মধুভল্লুকের কথা বলছি। এরা আসলে ভল্লুক নয় - প্রোসিওনিডি পরিবারের একধরনের বৃক্ষবাসী স্তন্যপায়ী প্রাণী। মধু খাওয়ার জন্য এরা প্রায়ই মৌচাকে হানা দেয়। এ কারণেই এদের মধুভল্লুক বলা হয়। এদের আরেকটি নাম কিংকাপু। মধ্য ও দক্ষিণ আমেরিকার গ্রীষ্মম-লীয় বনে এরা বসবাস করে।
মধুভল্লুক আকারে খুব বেশি বড় নয়। দেহের দৈর্ঘ্য মাত্র ১৬ থেকে ২২ ইঞ্চি। ওজন প্রায় তিন কেজি। এদের দেহ বাদামি লোমে ঢাকা থাকে।
মধুভল্লুকের লেজ ১৫ থেকে ২২ ইঞ্চি লম্বা। লেজকে এরা পঞ্চম হাত হিসেবে ব্যবহার করে। লেজ দিয়ে প্যাঁচ দিয়ে এরা গাছের ডালে ঝুলতে পারে। এ ছাড়া লেজ দিয়ে এরা দেহের ভারসাম্যও রক্ষা করে। এদের জিহ্বা পাঁচ ইঞ্চি লম্বা। এ লম্বা জিহ্বা এরা মৌচাক থেকে মধু খাওয়ার সময় ব্যবহার করে।
মধুভল্লুক সারা রাত বনের মধ্যে ঘুরে বেড়ায়। আর সকাল হলে নির্দিষ্ট গাছের গর্তে ঘুমাতে আসে। যেন এরা বনের নৈশপ্রহরী। এদের এ বৈশিষ্ট্যের কারণে বেলিজে এদের নৈশবিহারী বলা হয়। রাতেই এরা খাবার সংগ্রহ করে। ফুল, ফল, বিভিন্ন পতঙ্গ ও মধু এদের প্রধান খাবার।
মধুভল্লুক এদের বসবাসের অঞ্চল এবং গমনপথ বিশেষ একধরনের ঘ্রাণ দিয়ে চিহ্নিত করে রাখে। এ ঘ্রাণ বুক ও পেটের গ্রন্থি থেকে নিঃসৃত হয়। এদের একাকী, কখনো ছোট দলে চলাচল করতে দেখা যায়। শিয়াল, জাগুয়ার, অসিলট এদের প্রধান শত্রু।
মধুভল্লুকের গর্ভধারণ সময় ১১২ থেকে ১১৪ দিন। বসন্ত অথবা গ্রীষ্মকালে একটি অথবা দু’টি বাচ্চা প্রসব করে। এরা খুব দ্রুত বৃদ্ধি পায়। দুই মাস বয়স হলেই এরা লেজের সাহায্যে গাছের ডালে ঝুলতে পারে।

 


আরো সংবাদ


premium cement
বগুড়ায় বিএনপির মিছিলে পুলিশের বাধা পুলিশ দিয়ে জনগণের ন্যায্য অধিকার আদায়ের আন্দোলন স্তব্ধ করা যাবে না : আবদুল হালিম দিনমজুরের তোষকের নিচ থেকে কোটি টাকার হেরোইন উদ্ধার জটিল রোগে আক্রান্ত হাফেজ তরিকুলের বাবা বাঁচতে চান কিশোরগঞ্জ থেকে ঢাকার গণসমাবেশে যোগ দেবে বিএনপির ৫০ হাজার নেতাকর্মী ভালুকায় বিএনপির ৪ নেতাকর্মী গ্রেফতার গফরগাঁওয়ে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা হান্সি ফ্লিকই থাকছেন জার্মানদের কোচ অগ্নিসন্ত্রাসীদের আর ক্ষমতায় আসতে দেয়া হবে না : প্রধানমন্ত্রী রাবিতে ১২ প্যাকেট গাঁজাসহ ৪ শিক্ষার্থী আটক অনলাইন জুয়ায় ৩ হাজার কোটি টাকা পাচার, মাস্টার এজেন্টসহ গ্রেফতার ৯

সকল