১৭ আগস্ট ২০২২
`
নি ত্যো প ন্যা স

অদ্ভুত অদল বদল

-

চার.
‘আর আমি যদি রোগা থেকে ভালো হতে পারতাম!’ গাভু হাঁড়িতে তবলা বাজায়।
‘তবলা বাজাচ্ছিস যে বড়! কোনো আইডিয়া মাথায় এসেছে নাকি?’ টাভু জিজ্ঞেস করে।
‘তবলার বোলে যদি আসে।’ গাভু সজোরে তবলায় চাটি দেয়।
টাভু হতবাক হয়ে তার দিকে তাকিয়ে থাকে।
‘শোন, আগের জীবনে তোর স্বাস্থ্য কেমন ছিল?’
‘লিকলিকে।
‘এখন তোর স্বাস্থ্য কেমন?’
‘বেদম মোটা।’
‘আর আমি ছিলাম পাহাড়ের মতো। লোকে আমাকে ডাকত কালাপাহাড় বলে।’
‘তুই এখন একদম চিমসে মেরে গেছিস। তোর পাহাড় হয়ে গেছে খ্যাংরাকাটি।’
‘আর তুই আঙুল ফুলে কলাগাছ।’
‘সে তো বুঝলাম। তুই তবলা বাজিয়ে কী বের করলি?’
‘ডাক্তার।’
‘মানে? ডাক্তার দিয়ে কী হবে?’
‘ডাক্তার আমাদের চিকিৎসা করবে?’
‘কিভাবে?
‘যেভাবে করে। তুই মোটা থেকে স্লিম হবি। আমি রোগা থেকে ভালো হবো।’
‘ডাক্তার কই পাবি? ভূতের ডাক্তার আছে নাকি?’
‘নেই। মানুষের ডাক্তার আছে।’
‘মানুষের ডাক্তার ভূতের চিকিৎসা করবে?’
‘উহু। আমরা মানুষের ডাক্তারের কাছে মানুষের মতোই যাবো?’
‘সেটা কিভাবে সম্ভব।’
‘ইচ্ছে থাকলে সম্ভব হয়।’
‘ভূতেরা ইচ্ছে করলে কি করতে পারে?’
টাভু তালের আঁটি মানে মাথা চুলকায়। ‘কি পারে?’ (চলবে)


আরো সংবাদ


premium cement