১৭ এপ্রিল ২০২১
`
আ ফ্রি কার রূ প ক থা

রাজার জাদুর ড্রাম

-

চার.
রাজা কচ্ছপের হাত থেকে বাঁচার জন্য বলল- ‘আচ্ছা, তাই। খুব ভালো। ড্রামটি তুমি নিয়ে নাও।’ রাজা এর মন্দ দিক সম্পর্কে তাকে কিছুই বলল না। সে খুব খুশি হলো। আর এটিকে সে তার স্ত্রীর কাছে নিয়ে গেল। স্ত্রীকে বলল, ‘আমি এখন একজন ধনী ব্যক্তি। আর কাজ করব না। যখন আমি খাবার চাইব, ড্রামটি বাজার সঙ্গে সঙ্গে খাবার চলে আসবে। সেই সাথে অনেক কোমল পানীয় পাবো।’
তার স্ত্রী ও সন্তানরা এ কথা শুনে অনেক খুশি হলো। তারা বলল, ‘এখনি আমাদের জন্য খাবার আনো। আমরা সবাই অনেক ক্ষুধার্ত।’ কচ্ছপটি তাদের খুশি করতে চায়। তাদের ইচ্ছেও পূরণ করতে চায়। আর তার অর্জিত সম্পদের ক্ষমতাও দেখাতে চায়। সে নিজেও ছিল ক্ষুধার্ত। তাই তাড়াতাড়ি ড্রামটি বাজাল। রাজা যেভাবে খাবার চাইত সে-ও একই পদ্ধতি অনুসরণ করল। খাবার আসল প্রচুর পরিমাণে।
সবাই খেতে বসল। একটা বড় উৎসব হলো। কচ্ছপটি তিন দিন ধরে এরকম করল। সবকিছু ভালোই চলছিল। তার সব বাচ্চাগুলো মোটা হয়ে গেল। তারা যত পারল তত খেল। সে তার ড্রাম নিয়ে খুব গর্বিত। সে যে ধনী লোক এ কথা সে সবাইকে জানাবে। তাই সে ঐ রাজ্যের রাজা, মানুষ ও অন্যান্য পাখিদেরকে দাওয়াত দিলো; সবাইকে উৎসবে আসতে বলল। যখন মানুষ তার দাওয়াত পেল, হাসতে লাগল। সবাই জানত কচ্ছপটি খুব গরিব। তাই উক্ত ভোজ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিদের উপস্থিতি তেমন একটা হলো না। রাজা ঠিকই আসলেন। তিনি ড্রাম সম্পর্কে জানতেন। (চলবে)



আরো সংবাদ