৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০

দুই গোয়েন্দার অভিযান

-

পঞ্চাশ.

রেজা, সুজা, দু’জনেই হাসতে লাগল। ঝোপের ভিতর লুকাল কেন নেড, জানতে চাইল সুজা। নেড জানাল, ‘শব্দ শুনলাম। মনে হলো কেউ আসছে। শরীরটা এত দুর্বল লাগছিল, লাঠি দিয়ে কাউকে বাড়ি দেয়ার ক্ষমতাও ছিল না। তাড়াতাড়ি ঝোপের মধ্যে লুকিয়ে পড়েছিলাম। তোদের আসার শব্দ শুনেছি জানলে লুকাতাম না।’
‘হুঁ। চল, যাই,’ সুজা বলল।
ফিরে চলল ওরা। নেডদের বাড়িতে এসে দেখল, আমন্ত্রিতরা সবাই চলে গেছে, ইরিনা ছাড়া। বাজপাখির খাঁচাটার কাছে বসে আছে সে, শীলা আর নেডের বাবা-মা’র সঙ্গে। দামী পাখিটাকে পাহারা দিচ্ছে।
নেডদের দেখে ছুটে এলো সবাই। নেডের বাবা মি. ব্রাউন জিজ্ঞেস করলেন, ‘কী হয়েছিল?’
‘ও কিছু না। মাথায় সামান্য বাড়ি খেয়েছি,’ নেড জবাব দিলো। ‘ভরপেট খেয়ে রাতে একটা ভালো ঘুম দিলেই সেরে যাবে।’
‘ঠিক,’ ঘটনাটাকে হালকা করার জন্য নেডের সঙ্গে সুর মেলাল রেজা। ইরিনার দিকে তাকাল। ‘মাছের কাবাবের কিছু অবশিষ্ট আছে?’
‘ভিতরে চলো,’ শীলা বলল।
খেতে খেতে বনের ভিতরের বিচিত্র সাইনবোর্ডগুলোর কথা জানাল রেজারা। মি. ব্রাউন বললেন, মিস্টার গানারের কাছে খোঁজ নিতে হবে তিনি লাগিয়েছেন কিনা। কেন লাগিয়েছেন।
‘আগামীকাল আমরা এমনিতেও যাচ্ছি তদন্ত করতে,’ সুজা জানাল।
ওদেরকে সাবধান থাকতে বলল শীলা, ইরিনা আর নেডের আব্বা-আম্মা।
পরদিন খুব ঠাণ্ডা পড়ল। আগস্ট মাসের তুলনায় অতিরিক্তই বলা চলে। নাস্তার পর রেজা বলল, সে সুস্থ বোধ করছে। নেডদের বাড়ির কাছে বনের মধ্যে তদন্ত চালাতে যেতে পারবে। ‘আজ হাশিমকে নিয়ে গেলে কেমন হয়?’ (চলবে)


আরো সংবাদ

সুবিধাজনক অবস্থায় আজারবাইজান, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির শিকার আর্মেনিয়রা (১৯২৯১)আর্মেনিয়ান রেজিমেন্ট ধ্বংস করলো আজারবাইজান, শীর্ষ কমান্ডারের মৃত্যু (১৪১০৪)আর্মেনিয়া-আজারবাইজান তুমুল যুদ্ধ, নিহত বেড়ে ৯৫ (১৩০২৮)আজারবাইজানের সাথে যুদ্ধ : ইরান দিয়ে আর্মেনিয়ার অস্ত্র বহনের অভিযোগ সম্পর্কে যা বলছে তেহরান (৭৪২৯)স্বামীকে খুঁজতে এসে সন্তানের সামনে ধর্ষণের শিকার মা (৭২৯২)আজারবাইজান-আর্মেনিয়ার যুদ্ধের মর্টার এসে পড়লো ইরানে (৭২১৭)এমসি কলেজে গণধর্ষণ : স্বামীর কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে ধর্ষকরা (৬৪১৯)এমসি কলেজে গণধর্ষণ : সাইফুরের যত অপকর্ম (৫৯৮৯)‘তুরস্ককে আবার আর্মেনীয়দের ওপর গণহত্যা চালাতে দেয়া হবে না’ (৫৬২১)আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান দ্বন্দ্ব: কোন দেশের সামরিক শক্তি কেমন? (৫৪৩৫)