২২ সেপ্টেম্বর ২০২০

অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে ব্ল্যাকমেইলের অভিযোগ পাপিয়ার বিরুদ্ধে

শামিমা নূর পাপিয়া - সংগৃহীত

যুব মহিলা লীগের নেত্রী (বহিষ্কৃত) শামিমা নূর পাপিয়ার টার্গেট ছিল প্রভাবশালী ও ধনাঢ্য ব্যবসায়ী। পাপিয়ার ডাকে সাড়া দিয়ে টার্গেটকৃত ব্যক্তি হোটেল ওয়েস্টিনে গেলে সেখানে সুন্দরী তরুণীদের সাথে অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে ব্ল্যাকমেইল করতেন পাপিয়া। কখনো ফ্ল্যাট, কখনো বা মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করতেন ব্যবসায়ী বা প্রভাবশালী ব্যক্তিদের কাছে। শুধু তা-ই নয়, এভাবে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে তিনি ও তার স্বামী মফিজুর বিভিন্ন ধরনের ফায়দা লুটে নিয়েছেন বলে তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। তাদের প্রতারণার শিকার অনেক ভুক্তভোগী এখন মুখ খুলছেন পুলিশের কাছে। এ দিকে পাপিয়ার অপকর্মের সিন্ডিকেটের কয়েকজনকে শিগগিরই জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। সে জন্য এমপিসহ বেশ কয়েকজন রাজনৈতিক নেতার ওপর নজরদারি করা হচ্ছে। এ ছাড়াও শতাধিক নেত্রীকে গোয়েন্দা নজরদারিতে রাখা হয়েছে। রাজনৈতিক ক্ষমতায় বেপরোয়া হয়ে ওঠা এসব নেত্রীর বিষয়ে গভীর অনুসন্ধান চলছে। এমনকি তারা যেন দেশ ত্যাগ করতে না পারেন সে ব্যাপারেও সতর্ক সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।
তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জিজ্ঞাসাবাদে পাপিয়া যাদের নাম প্রকাশ করেছেন এরই মধ্যে তাদের তালিকা তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। এ ছাড়া পাপিয়ার মোবাইল ফোনের কললিস্ট পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে নিশ্চিত হওয়া গেছে, তিনি সরকার দলের প্রভাবশালী নেতা-নেত্রীদের সাথে দিনের পর দিন কথা বলেছেন।

এ দিকে পাপিয়া-মফিজুর দম্পতির প্রতারণার শিকার ব্যবসায়ী, সাধারণ মানুষ ও অনৈতিক কাজে বাধ্য হওয়া মেয়েরা মুখ খুলতে শুরু করেছেন। র্যাবের হাতে গ্রেফতারের পর পাপিয়া দম্পতির প্রতারণার শিকার মেয়েরা পাপিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন। এরই মধ্যে বিমানবন্দর থানায় পাপিয়া দম্পতির বিরুদ্ধে মামলা করতে গিয়েছিলেন এক ব্যবসায়ী। তপন তালুকদার টুকু নামে ওই ব্যবসায়ী সাংবাদিকদের বলেন, পাঁচ মাস আগে আমি ঢাকা থেকে নরসিংদীতে এক অনুষ্ঠানে বন্ধুর বাড়িতে যাই। সেখানে পাপিয়ার সাথে দেখা হয়। অনুষ্ঠান শেষে পাপিয়া আমাকে তার বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে কম বয়সী চারজন সুন্দরী তরুণীকে তারা আমার সামনে নিয়ে আসে। এরপর জোর করে তাদের সাথে আমার অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে।

তিনি আরো বলেন, এরপর আমি চলে আসতে চাইলে পাপিয়ার স্বামী মফিজুর বলেন, এখন তো যাওয়া যাবে না। আপনি তো আমার মেয়েদের সাথে খারাপ কাজ করেছেন। এখন তারা আপনার বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে অভিযোগ করবে। এ কথা বলে তারা কোনো পুলিশকে যেন ফোন দিলেন। আসলে তারা পুলিশ ছিল না, তাদেরই সাজানো কোনো ব্যক্তি ছিল। ফোনের ওপাশ থেকে বলা হলো, আমি আসছি। তবে পুলিশের কেউ আসেনি।

টুকু বলেন, পাপিয়া ও তার স্বামী আমাকে হুমকি দিয়ে বলেন, এখান থেকে পার পেতে হলে, আপনাকে ১০ লাখ টাকা দিতে হবে। নইলে এই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল করে দেবো। ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেবো। আপনার নামে মানবপাচারের মামলা দেয়া হবে। পরে আমাকে মারধর করে তারা। মান-সম্মানের ভয়ে আমি তাৎক্ষণিকভাবে ২০ হাজার টাকা দেয়ার পরও তাদের মন গলেনি। এরপর আমাকে বাড়ির ছাদে তিন দিন আটকে রাখে। একপর্যায়ে ব্যাংকের মাধ্যমে দুই লাখ ৬০ হাজার টাকা দেয়ার পর তারা আমাকে ছেড়ে দেয়।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রাজধানীর বেশ কয়েকটি আবাসিক ও বাণিজ্যিক এলাকায় রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় এসব নেত্রী বিভিন্ন অপকর্ম করে আসছেন। এর পেছনে বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দলের প্রভাবশালী নেতাদের প্রচ্ছন্ন মদদ রয়েছে। অপরাধ জগতের খোঁজ করতেই বেশ কয়েকটি আস্তানার সন্ধান পাওয়া গেছে। এসব আস্তানা থেকে নানা অপকর্ম পরিচালনা করে আসছে শতাধিক পাপিয়া। এসব অবৈধ পন্থায় অর্জিত কাঁচা টাকা দিয়েই তারা বেপরোয়া জীবন যাপন করে আসছে। এর বাইরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কিছু কর্মকর্তা এসব নেত্রীর কাছ থেকে মাসোয়ারা নিয়ে থাকেন। এসব কাজ অবলীলায় করে আসার পেছনে তাদেরও প্রশ্নের মুখে পড়তে হচ্ছে।

জানা গেছে, এসব নেত্রীর কারণে অনেক তরুণীর সর্বনাশ হয়েছে। ভালো চাকরি বা সুযোগ-সুবিধা দেয়ার কথা বলে অনেককে পতিতাবৃত্তিতে নামতে বাধ্য করা হচ্ছে। অবৈধ পথে উপার্জন করা ব্যক্তিরাই তাদের নিয়মিত খদ্দের। অভিজাত ক্লায়েন্টের চাহিদা মেটাতে প্রায়ই এসব আস্তানায় বিদেশী মডেল-তরুণীদের আনা হয়। এসব জায়গায় কিছু দিন অবস্থান করে তারা আবার চলে যেত নিজ দেশে। ঢাকার অভিজাত মহলে উঠতি মডেলদের চাহিদাও ব্যাপক। এসব আস্তানা পরিচালনা করা নেত্রীরা শুধু মোটা অঙ্কের টাকাই হাতিয়ে নিচ্ছে না, তাদের এই ব্যবসা দিয়ে উঁচু মহলের ক্ষমতাশীল লোকদের মাধ্যমে হাতিয়ে নেন বিভিন্ন সুবিধা। এমনকি এই সুবিধা দিয়ে রাজনৈতিক পদ-পদবিও হাতিয়ে নিচ্ছেন। এ ছাড়াও সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে বদলি বা নিয়োগ বাণিজ্যও হয়ে আসছে এই নেত্রীদের হাত ধরে।
গত ২২ ফেব্রুয়ারি রোববার গোপনে দেশত্যাগের সময় নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সেক্রেটারি শামিমা নূর পাপিয়াকে বিমানবন্দর এলাকা থেকে তিন সহযোগীসহ গ্রেফতার করে র্যাব। গ্রেফতার অন্য তিনজন হলেন- পাপিয়ার স্বামী ও তার অবৈধ আয়ের হিসাবরক্ষক মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী ওরফে মতি সুমন, পাপিয়ার ব্যক্তিগত সহকারী শেখ তায়্যিবা ও সাব্বির খন্দকার। এই নেত্রীর প্রকাশ্য আয়ের উৎস গাড়ি বিক্রি ও সার্ভিসিংয়ের ব্যবসা। তবে এর আড়ালে জাল মুদ্রা সরবরাহ, বিদেশে অর্থপাচার এবং অবৈধ অস্ত্র রাখাসহ নানা অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। পাপিয়া গ্রেফতার হওয়ার পরই বেরিয়ে আসতে শুরু করে তার অন্ধকার জগতের চাঞ্চল্যকর কাহিনী।

এরপর গত ২৩ ফেব্রুয়ারি হোটেল ওয়েস্টিনের প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুট এবং ফার্মগেটের ২৮ নম্বর ইন্দিরা রোডের রওশনস ডমিনো রিলিভো নামের বিলাসবহুল ভবনে তাদের দু’টি ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ টাকা, আগ্নেয়াস্ত্র, বিদেশী মদসহ অনেক অবৈধ সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়। পরদিন ২৪ ফেব্রুয়ারি জাল টাকা উদ্ধার, অস্ত্র ও মাদকের পৃথক তিন মামলায় পাপিয়ার ১৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। তার স্বামী মফিজুর রহমানেরও ১৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা করা হয়। এ ছাড়া মামলার অপর দুই আসামি পাপিয়ার সহযোগী সাব্বির খন্দকার ও শেখ তায়্যিবাকেও রিমান্ডে নেয়া হয়। মামলাটি তদন্ত করছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।


আরো সংবাদ