০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯, ১১ রজব ১৪৪৪
ads
`

বাংলাদেশের সামনে পাহাড়সম রানের লক্ষ্য দিল ভারত

বাংলাদেশের সামনে পাহাড়সম রানের লক্ষ্য দিল ভারত। - ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ রানের সংগ্রহ নিয়েই থামল ভারত। নির্ধারিত ওভার শেষে ৮ উইকেটে ৪০৯ রানে থামল ভারতের ইনিংস। জয়ের জন্য বাংলাদেশকে টপকাতে হবে পাহাড়সম ৪১০ রান। অবশ্য শুরুটা দারুণ করেছিল বাংলাদেশ। টস জিতে বোলিং নিয়ে প্রথম উইকেটের দেখা পেতে বেশি সময় লাগেনি বাংলাদেশের। দলীয় পঞ্চম ওভারেই মেহেদী মিরাজ ফিরিয়ে দেন শিখর ধাওয়ানকে। তবে এরপরই জমে উঠে কিশান-কোহলির জুটি।

বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে ক্রিকেটে সর্বোচ্চ ২৯০ রানের জুটি ভেঙে ইশান কিশান যখন ফিরলেন, নামের পাশে তখন অজস্র রেকর্ড। ফেরার আগে তার ব্যাটে এসেছে ২৪ চার আর ১০ ছক্কায় ১৩১ বলে ২১০ রান। ক্যারিয়ারের প্রথম শতকটাকেই দ্বিশতকে রূপান্তর করেন কিশান। ৮৫ বলে প্রথম ১০০ সংগ্রহের পর ইশান দ্বিতীয় ১০০ সংগ্রহ করেন মাত্র ৪১ বলে। ফলে ১২৬ বলে ইতিহাসের দ্রুততম দ্বি-শতকের রেকর্ড গড়েন ইশান কিশান। ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসের সপ্তম ক্রিকেটার হিসেবে ৯ম দ্বি-শতক করেছেন এই তরুণ তুর্কি।

এদিকে মাত্র ১ রানে লিটনের হাতে জীবন পাওয়া কোহলিও ছুটেছেন ইশানের সাথে পাল্লা দিয়ে। অবশ্য শুরুর দিকে ব্যাকরণ সম্মত ব্যাটিংয়েই মনযোগী ছিলেন কোহলি। তবে সময়ের সাথে সাথে রানের গতি বাড়িয়েছেন তিনি। পেয়ে যান ক্যারিয়ারের ৭২তম শতকের দেখাও। ৫৪ বলে অর্ধশতক ছোঁয়া কোহলি শতক স্পর্শ করেন মাত্র ৮৫ বলে। প্রায় সাড়ে তিন বছর পর ওয়ানডেতে শতকের দেখা পেয়েছেন কোহলি। তবে শতকের পরপরই সাকিবের শিকার হয়ে ফিরেছেন কোহলি।

ইশান কিশানের পর বিরাট কোহলির আউট হবার আগে আরো দুটি উইকেট শিকার করেছে বাংলাদেশ। ফিরিয়েছে শ্রেয়াস আইয়ার ও লোকেশ রাহুলকে। দু'জনকেই ফিরিয়েছেন ইবাদত। আয়ার ৩ ও রাহুল করেন ৮ রান। দ্রুত ৪ উইকেট হারানোয় ৪৪.১ ওভারে ভারতের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৫ উইকেটে ৩৪৪ রান। ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে ৩৭ বলে আরো ৪৬ রান যোগ করেন অক্ষর প্যাটেল ও ওয়াশিংটন সুন্দর। ১৭ বলে ২০ করে তাসকিনের দ্বিতীয় শিকার জন অক্ষর। সাকিবের দ্বিতীয় শিকার হবার আগে ওয়াশিংটন সুন্দর করেন ৩৭ রান।

বোলিং ইনিংসটা যত দ্রুত সম্ভব ভুলে যেতে চাইবে বাংলাদেশ। দলের সেরা বোলার সাকিব আল হাসান। ২ উইকেটের সাথে ইকোনমিও তার ৭ এর নিচে। ৭ নিচে ইকোনমি ছিল মুস্তাফিজেরও, তবে তার শিকার ১ উইকেট। তাসকিন ও ইবাদত দুটি করে উইকেট পেলেও রান দিয়েছেন অকাতরে। ৯ ওভারে ৮৯ রান দিয়েছেন তাসকিন, সমান সংখ্যক ওভারে ইবাদত দিয়েছেন ৮০ রান। ৭৬ রান দিয়ে ১ উইকেট নিয়েছেন মিরাজ।

‘‘‘‘‘‘‘‘‘‘‘‘‘‘‘‘‘

টঙ্গীতে জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে ট্রেনে হামলা, যাত্রীদের সর্বস্ব লুট
গাজীপুর মহানগর প্রতিনিধি

ঢাকামুখী ট্রেনযাত্রীদের ওপর বিভিন্ন স্টেশনে হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার রাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-ময়মনসিংহ রুটের টঙ্গী জংশনসহ বিভিন্ন স্টেশনে এসব ঘটনা ঘটে। এ সময় যাত্রীদের মোবাইল মানিব্যাগ লুটে নিয়েছে সরকার দলীয় লোকজন। ট্রেন থেকে নামিয়ে দেয়া হয় যাত্রীদের। ফলে শুক্রবার রাতে ও শনিবার সকাল থেকে ঢাকামুখী সকল ট্রেন ছিল অনেকটা ফাঁকা। এমনকি ঢাকামুখী ট্রেনের টিকিট বিক্রিও বন্ধ করে দেয় স্টেশনগুলো।

এদিকে ভোর থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ ও সরকার দলীয় লোকজনকে তৎপর দেখা গেছে। সকাল থেকেই মহাসড়কে কোনো বাস চলাচল করতে দেখা যায়নি। মহাসড়ক ছিল রিকশা, অটোরিকশা ও ইজিবাইকসহ বিভিন্ন ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র যানবাহনের দখলে। পুলিশের চেকপোস্টের পাশাপাশি সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে ঢাকামুখী মোটরবাইক ও ক্ষুদ্র পরিবহনের যাত্রীদের তল্লাশির নামে হয়রানি করে বলে অভিযোগ করেন যাত্রীরা। মহাসড়কে খণ্ড খণ্ড মিছিলও বের করে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

ট্রেন যাত্রীরা অভিযোগ করে জানান, শনিবার ভোর সাড়ে ৪টায় টঙ্গী জংশনে নোয়াখালী এক্সপ্রেস (এলিভেন আপ) ট্রেনে লাঠি সোটা নিয়ে জয় বাংলা স্লোগানে হামলা চালিয়ে যাত্রীদের সর্বস্ব লুটে নেয় একদল যুবক। এ সময় যাত্রীদের পিটিয়ে ট্রেন থেকে জোরপূর্বক নামিয়ে দেয়া হয়। প্রায় ৬ ঘণ্টা ট্রেনটিকে টঙ্গী জংশনে আটকে রাখা হয়।

তবে কর্তব্যরত স্টেশন মাস্টার রাকিবুর রহমান এসব অভিযোগ অস্বীকার করে করে বলেন, ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। নোয়াখালী এক্সপ্রেস ভোর ৪টা ২০মিনিটে টঙ্গী জংশনে প্রবেশ করে, কমলাপুরের উদ্দেশে ছেড়ে যায় ১০টা ১০মিনিটে।

এদিকে সকাল সাড়ে ৯টায় টঙ্গী জংশনে গিয়ে দেখা গেছে, স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা নোয়াখালী এক্সপ্রেস ট্রেনটির বগিগুলো ফাঁকা, কয়েকজন মহিলা ও অসুস্থ যাত্রী বিভিন্ন সিটে গুমাচ্ছেন। এমনকি ট্রেনের গার্ডকেও গুমাতে দেখা গেছে।

নোয়াখালীর সোনাপুর স্টেশন থেকে আসা যাত্রী নুসরাত বেগম জানান, তিনি ঢাকায় বাসা বাড়িতে কাজ করেন। তেজগাঁও যাওয়ার উদ্দেশে শুক্রবার রাত ৭টায় ট্রেনে উঠেন। ভোর সাড়ে ৪টার দিকে টঙ্গী স্টেশনে ট্রেন থামলে পুরুষ যাত্রীদেরকে মারধর করে নামিয়ে দেয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, আমার কাছে যে টাকা ছিল তা খরচ হয়ে গেছে, এখন এই ট্রেন ছাড়া বিকল্প পথে যাওয়ারও কোনো সুযোগ নেই।

একই স্টেশন থেকে আসা যাত্রী মাহবুব বলেন, টঙ্গী স্টেশনে আসার পর পুলিশ ও সরকারী দলের লোকজন যাত্রীদের তল্লাশির নামে মোবাইল ও মানিব্যাগ ছিনিয়ে নিয়েছে এবং যাত্রীদের মারধর করে ট্রেন থেকে নামিয়ে দিয়েছে। সকল যাত্রী চলে গেলেও পায়ে ব্যথার কারণে তিনি যেতে পারেননি।

তিনি আরো বলেন, আমার কাছে এই ট্রেনের টিকিট, তাই অন্য ট্রেনে যেতে পারছি না। দেশের যে অবস্থা তাতে সঠিকভাবেই চলা যায় না। আবার বেঠিকভাবে চললে তো উপায় নেই মন্তব্য করে তিনি বলেন, সাথে অন্য ট্রেনের টিকিট পেলে হয়রানির শিকার হতে হবে এই ভয়ে ট্রেনটি ছাড়ার অপেক্ষায় এখানেই দীর্র্ঘক্ষণ বসে আছি। পথে আরো একাধিক স্টেশনে যাত্রীদের ওপর হামলা চালিয়ে ট্রেন থেকে নামিয়ে দেয়া হয়েছে। ট্রেন ছাড়ার মূহুর্তে অনেকে দৌঁড়ে এসে লাফিয়ে ট্রেনে উঠেছেন।

এই দেশ বসবাসের অযোগ্য হয়ে গেছে মন্তব্য করে অসুস্থ এই ট্রেনযাত্রী আরো বলেন, সব চোর-চুট্টাদের হাতে দেশের ক্ষমতা চলে গেছে। সব খারাপ লোকগুলো আওয়ামী লীগে ঢুকেছে।

নোয়াখালীর সোনাইমুরি স্টেশন থেকে আসা বৃদ্ধ যাত্রী শরিফ উল্লাহ বলেন, টঙ্গী স্টেশনে থামার পরই ৩০ থেকে ৪০ জন বখাটে ধরনের তরুণ লাঠি সোটা নিয়ে ট্রেনের ওপর চড়াও হয়। প্রথমেই তারা লাঠি দিয়ে বগির দরজা জানালায় বারি দিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। এরপর ট্রেনের ভেতর ঢুকে যাত্রীদের মারধর করে বের করে দেয় এবং নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। এ সময় পুলিশও তাদের সাথে যোগ দেয়।

ট্রেনচালক ইব্রাহিম বলেন, পেছনে কী হয়েছে আমরা বলতে পারবো না। কী কারণে ভোর সাড়ে ৪টার পর থেকে ট্রেনটিকে স্টেশনে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে তাও তিনি জানেন না।

স্টেশন মাস্টার রাকিবুর রহমান বলেন, কয়েকটি আন্তঃনগর ট্রেন স্টেশন অতিক্রম করায় নোয়াখালী এক্সপ্রেস ট্রেন এখনো লাইন ক্লিয়ার পাচ্ছে না। তাছাড়া বিষয়টি কন্ট্রোল থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হয়। এখানে আমাদের কোনো হাত নেই।

এদিকে ঢাকায় বিএনপির বিভাগীয় মহাসমাবেশে লোক সমাগম ঠেকাতে রাজধানীর প্রবেশমুখ টঙ্গীতে দফায় দফায় খণ্ড খণ্ড মিছিল করছে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল কাইয়ুম সরকারের উদ্যোগে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের চেরাগআলী এলাকায় মিছিল-টহলে অংশগ্রহণকারী নেতাকর্মীদের মাঝে খিচুরি বিতরণ করা হয়। মহাসড়কের চান্দনা চৌরাস্তা এলাকায় মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক কামরুল আহসান সরকার রাসেলের নেতৃত্বে দফায় দফায় মিছিল করছে যুবলীগ নেতাকর্মীরা।


আরো সংবাদ


premium cement
সোনারগাঁওয়ে স্ত্রীকে হাতুড়ি পেটা করে হত্যা, স্বামী পলাতক রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে আটক ৩৯ জাবিতে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় আহত শিক্ষার্থী লাইফ সাপোর্টে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকে তুলে নেয়ার অভিযোগ ফখরুলের সাংবাদিক মাজহারের পিতার অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী আজ যুক্তরাষ্ট্রের আকাশে চীনের রহস্যময় নজরদারি বেলুন : পেন্টাগন রাজশাহীতে চুরির অভিযোগে দুই নির্মাণ শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যা ঈশ্বরগঞ্জে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নারী সদস্যকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ এক সপ্তাহে ১০ হাজার কোটি ডলার খোয়ালেন আদানি কক্সবাজারে বাসা থেকে নারী এনজিও কর্মীর লাশ উদ্ধার ধর্মঘটে বিধ্বস্ত ব্রিটেন, জনপ্রিয়তা কমছে ঋষির

সকল