১৩ আগস্ট ২০২২
`

এজবাস্টনে বুমরাহর আড়ালে দল পরিচালনা করেছেন কোহলি!

এজবাস্টনে বুমরাহর আড়ালে দল পরিচালনা করেছেন কোহলি! - ছবি : সংগৃহীত

বার্মিংহ্যামে ক্যাপ্টেন হিসেবে নিতান্ত অনভিজ্ঞ জসপ্রীতকে সময়ে সময়ে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দেন কোহলি।
ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট খেলছে ভারত। এই মুহূর্তে ভারত বেশ সুবিধাজনক অবস্থায় আছে। তবে আরেকটি কারণে ম্যাচটি বেশ সাড়া ফেলেছে। সেটা হলো বিরাট কোহলির ভূমিকা।

রোহিত শর্মা করোনা আক্রান্ত হওয়ায় মাঠে নামতে পারেননি। ভাইস ক্যাপ্টেন লোকেশ রাহুল আগেই ছিটকে গিয়েছেন সফর থেকে। এজবাস্টন টেস্টের ঠিক আগে বুমরাহ জানতে পারেন, প্রথমবার জাতীয় দলকে নেতৃত্ব দেবেন তিনি।

এর আগে কোনো পর্যায়েই কোনো দলের ক্যাপ্টেন্সি করেননি জসপ্রীত বুমরাহ। সুতরাং, ইংল্যান্ডের মাটিতে ইংল্যান্ডের মতো শক্তিশালী দলের বিরুদ্ধে সমস্যা জর্জরিত আধাশক্তির ভারতীয় দলকে নেতৃত্ব দেওয়া মোটেও সহজ কাজ নয়। তবে বুমরাহর কাজটা সহজ করে দেন বিরাট কোহলি।

ক্যাপ্টেন্সি ছাড়লেও নেতৃত্ব দেয়ার সহজাত গুণ ঝেড়ে ফেলেননি কোহলি। তাছাড়া ইংল্যান্ডের মাঠে ইংল্যান্ডকে কিভাবে বেকায়দায় ফেলা যায়, কোহলির থেকে ভালো আর কারই বা জানা থাকতে পারে। চলতি সিরিজে ভারত এগিয়ে রয়েছে তার দুর্দান্ত নেতৃত্বের জন্যই। গত বছর কোহলির অধিনায়কত্বেই সিরিজের চারটি টেস্টে মাঠে নামে ভারত। এখন কঠিন সময়ে বুমরাহর গাইড হয়ে দেখা দেন বিরাট।

এজবাস্টন টেস্টের দ্বিতীয় দিনে বুমরাহকে সময়ে সময়ে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিতে দেখা যায় কোহলিকে। কখনো স্লিপে দাঁড়িয়ে ফিল্ডিং পরিবর্তনের নির্দেশ দেন কোহলি। আবার কখনো টিম হাডলে সতীর্থদের উদ্দীপ্ত করতে দেখা যায় তাকে। মাঝে ক্যাপ্টেন সুলভ ভঙ্গিতে আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে অসন্তোষ প্রকাশও করেন বিরাট। উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো, বুমরাহকে বাধ্য ছাত্রের মতো কোহলির নির্দেশ পালন করতেও দেখা যায়।

বুমরা, শামিদের দাপটে কোণঠাসা ইংল্যান্ড

এজবাস্টনে প্রথম দিন ব্যাট হাতে ভারতের ঋষভ পন্থ ও রবীন্দ্র জাডেজার দাপট দেখা গিয়েছিল। শনিবার দ্বিতীয় দিনে দেখা গেল বল হাতে যশপ্রীত বুমরাদের দাপট। ভারতের থেকে ৩৩২ রানে পিছিয়ে ইংল্যান্ড। ভারত যেখানে প্রথম ইনিংসে করেছিল ৪১৬, সেখানে ইংল্যান্ডের সংগ্রহ মাত্র ৮৪। ইতিমধ্যেই সাজঘরে জো রুটসহ ৫ ইংরেজ ব্যাটার।

দ্বিতীয় দিনের শুরুটা হয়েছিল জাডেজার শতরান দিয়ে। বিদেশের মাটিতে প্রথম শতরান করলেন ভারতীয় অলরাউন্ডার। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান সৌরভ গাঙ্গুলি চেয়েছিলেন ভারতের প্রথম ইনিংসে ৩৭৫ রান হোক। জাডেজা সেই কাজটা করে মাঠ ছেড়েছিলেন। সেখান থেকে দলকে ৪১৬ রানে পৌঁছে দিলেন ব্যাটার বুমরা। ১৬ বলে ৩১ রান করেন তিনি। স্টুয়ার্ট ব্রডের এক ওভারে উঠল ৩৫ রান। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে এক ওভারে এটাই সব থেকে বেশি রান। সেই ওভারে ২৯ রান নিয়েছিলেন বুমরা। বাকি ৬ রান অতিরিক্ত দেন ব্রড। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে তার এক ওভারেই ৩৬ রান নিয়েছিলেন যুবরাজ সিংহ।

ভারতের ৪১৬ রানের বিশাল ইনিংসের উত্তর দিতে নেমে শুরু থেকেই উইকেট হারাতে শুরু করে ইংল্যান্ড। দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন বুমরা। ইংল্যান্ডের প্রথম তিন ব্যাটারকে ফিরিয়ে দেন তিনিই। মাত্র ৬ রান করে বোল্ড অ্যালেক্স লিজ। স্লিপে শুভমন গিলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন অন্য ওপেনার জ্যাক ক্রলি। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুরন্ত ছন্দে থাকা অলি পোপকেও ফিরিয়ে দেন বুমরা। শ্রেয়স আয়ারের হাতে ক্যাচ দিয়ে মাত্র ১০ রান করে মাঠ ছাড়েন ক্রলি।

জো রুট ও জনি বেয়ারস্টো কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু ভারতীয় বোলারদের দাপটে শেষ পর্যন্ত সফল হননি। রুটকে ফিরিয়ে দেন মোহাম্মদ সিরাজ। পন্থের হাতে ক্যাচ দেন ইংল্যান্ডের সাবেক টেস্ট অধিনায়ক। রাতপ্রহরী হিসাবে নামা জ্যাক লিচ ক্রিজে ছিলেন মাত্র পাঁচ বল। মোহাম্মদ শামির বলে শূন্য রানেই পন্থের হাতে ক্যাচ দেন লিচ।

বৃষ্টির জন্য শনিবার বার বার ম্যাচ বন্ধ রাখতে হয়। তৃতীয় সেশনে মাত্র এক ঘণ্টা খেলা হয়। সেই সেশনেই পর পর রুট এবং লিচকে ফিরিয়ে দিয়ে ম্যাচের রাশ নিজেদের হাতে নিয়ে নেয় ভারত। দিনের শেষে ক্রিজে রয়েছেন বেয়ারস্টো এবং ইংরেজ অধিনায়ক বেন স্টোকস। ৪৭ বলে ১২ রান করে অপরাজিত বেয়ারস্টো। স্টোকস খেলেছেন মাত্র চার বল। কোনো রান করেননি তিনি। তৃতীয় দিনে তাদের থেকে বড় রানের জুটি চাইবে ইংল্যান্ড। যদিও বুমরারা যে ছন্দ দেখিয়েছেন তাতে ইংরেজদের রাতের ঘুম উড়ে গেছে। তৃতীয় দিনের শুরুতে ভারতের লক্ষ্য থাকবে যত দ্রুত সম্ভব ইংল্যান্ডের বাকি ৫ উইকেট নেয়া। ৮৪ রানে ৫ উইকেট হারানো ইংল্যান্ডের ফলো-অন বাঁচাতে প্রয়োজন আরও ১৩২ রান।

সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস ও আনন্দবাজার পত্রিকা


আরো সংবাদ


premium cement