০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ৪ জিলহজ ১৪৪৩
`

বৃষ্টি বাগড়ার দিনে শক্ত অবস্থানে শ্রীলঙ্কা

মিরপুর টেস্টের তৃতীয় দিনে খেলা শেষে শক্ত অবস্থানেই শ্রীলঙ্কা। - ছবি : সংগৃহীত

প্রথম সেশনটা খেলা হলো। দ্বিতীয় সেশন ভেসে গেল বৃষ্টিতে। বিকেল ৪টায় শুরু আবার খেলা। সব মিলিয়ে মিরপুর টেস্টের তৃতীয় দিনে খেলা হলো ৫১ ওভার। তাতে শক্ত অবস্থানেই শ্রীলঙ্কা। প্রথম ইনিংসে দলটির সংগ্রহ ৫ উইকেটে ২৮২। বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে করেছিল ৩৬৫ রান। শ্রীলঙ্কা এখনো ৮৩ রানে পিছিয়ে।

আগের দিনের ২ উইকেটে ১৪৩ রান নিয়ে বুধবার মাঠে নামে শ্রীলঙ্কা। দিনের দ্বিতীয় বলেই সাফল্য পায় বাংলাদেশ। নাইটওয়াচম্যান কাসুন রাজিথাকে ফেরান ইবাদত হোসেন। অফ স্টাম্পের ওপর লেংথ বলের লাইন মিস করেন রাজিথা, ফলাফল বোল্ড। বল হাতে ৫ উইকেট শিকারি রাজিথা ব্যাট হাতে ১২ বল খেলেও রানের খাতা খুলতে পারেননি।

সেঞ্চুরির পথে হাঁটছিলেন তখন দিমুথ করুনারত্নে। সাকিবের দারুণ ডেলিভারিতে বোল্ড হন লঙ্কান অধিনায়ক। ৫৬তম ওভারের শেষ বলটি রাউন্ড দা উইকেট থেকে করেন সাকিব। অফ স্টাম্পের ওপর ঝুলিয়ে দেয়া বল এক পা এগিয়ে খেলেন করুনারত্নে। কিন্তু শেষ মুহূর্ত বল ড্রিফট করায় ব্যাটে খেলতে পারেননি তিনি। মিস করে ফেলেন বলের লাইন, হয়ে যান বোল্ড। আর তাতে ভাঙে করুনারত্নের প্রতিরোধ। ৯ চারে ১৫৫ বলে ৮০ রান করেন বাঁ-হাতি এই ওপেনার।

অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের সাথে উইকেটে নতুন ব্যাটসম্যান ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। এই জুটিতেই প্রথম সেশন শেষ করে দলটি। ২৫ রানে ম্যাথুস ও ৩৯ রানে ধনাঞ্জয়া ছিলেন অপরাজিত।

লাঞ্চের পরপরই শুরু হয় বৃষ্টি। খেলা বন্ধ থাকে অনেকক্ষণ। বেলা আড়াইটার দিকে বৃষ্টি বন্ধ হলে শুরু হয় মাঠ পরিচর্যার কাজ। ৪টায় শুরু হয় খেলা। ফ্লাড লাইট জালিয়ে খেলা চলে ঘণ্টা দুয়েকের মতো। দিনের শেষ সেশনে বাংলাদেশের প্রাপ্তি এক উইকেট।

খালেদ আহমেদের অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের বল ব্যাকফুটে দাঁড়িয়ে ড্রাইভ করে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ফিফটি পূর্ণ করেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। ৯০ বলে। ক্যারিয়ারে এটি ধনাঞ্জয়ার দশম অর্ধশত। ইনিংসে মেরেছেন ৮টি চার।

সঙ্গীর ফিফটি দেখে তর সইলো না ম্যাথুসের। পরের ওভারে সাকিব আল হাসানের বলে ছক্কায় উড়িয়ে পঞ্চাশে পা রাখেন তিনি, ১২৫ বলে। ক্যারিয়ারে এটি ম্যাথুসের ৩৮তম ফিফটি, বাংলাদেশের বিপক্ষে দ্বিতীয়।

জমে যাওয়া এই জুটি শেষ পর্যন্ত ভাঙেন সাকিব। ৮৮তম ওভারের পঞ্চম বলটি ঝুলিয়ে দেন সাকিব। পা বাড়িয়ে ডিফেন্স করেন ধনাঞ্জয়া। কিন্তু বাঁ-হাতি স্পিন টার্ন করে বেরিয়ে যাওয়ায় ঠিকমতো খেলতে পারেননি ব্যাটে। ব্যাটের গা ঘেঁষে বল জমা পড়ে কিপার লিটন কুমার দাসের গ্লাভসে। আবেদন করেন ফিল্ডাররা। সাড়া দেননি আম্পায়ার।

সাকিব খুব একটা নিশ্চিত ছিলেন না। অনেক আলোচনার পর শেষ মুহূর্তে রিভিউ নেয় বাংলাদেশ। রিপ্লেতে দেখা যায়, বল হালকা ব্যাট স্পর্শ করেছে। উল্লাসে মাতে দল। থামে ৯ চারে ৯৫ বলে খেলা ধনাঞ্জয়ার ৫৮ রানের ইনিংস। ভাঙে ১৯১ বল স্থায়ী ১০২ রানের জুটি।

দিনের বাকিটা সময় নির্বিঘ্নে কাটিয়ে দেন ম্যাথুস ও চান্দিমাল। ৫৮ রানে ম্যাথুস ও ১০ রানে চান্দিমাল রয়েছেন অপরাজিত। বল হাতে বাংলাদেশের হয়ে সাকিব তিনটি ও ইবাদত নেন দুটি উইকেট।


আরো সংবাদ


premium cement