০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ন ১৪২৮, ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি
`

টাইগারদের সামনে লঙ্কা মিশন

মোস্তাফিজুর রহমান - ছবি : সংগৃহীত

বাছাই পর্বটা ছিল গলায় কাটা বেঁধার মতো। শেষ পর্যন্ত তা সরানো গেছে। শেষের দুটি ম্যাচ জিতে স্বস্তিতে টাইগার শিবির। বাংলাদেশ জায়গা করে নিয়েছে সুপার টুয়েলভে।

শনিবার থেকে সুপার টুয়েলভের লড়াই শুরু হলেও বাংলাদেশের মিশন শুরু হবে রোববার থেকে। প্রতিপক্ষ যেখানে সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কা। সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজায় বিকেল চারটায় শুরু হবে ম্যাচটি।

এ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে সুপার টুয়েলভে উঠে এসেছে শ্রীলঙ্কা। বাছাই পর্বে তিনটি ম্যাচই জিতেছে দ্বীপরাষ্ট্রটি। সেই তুলনায় বাংলাদেশের মূল পর্বে উঠে আসার রাস্তাটা মসৃণ ছিল না। শুরুটা হয় স্কটল্যান্ডের বিরুদ্ধে হার দিয়ে। পরের দুই ম্যাচ ছিল বাঁচা-মরার। অপেক্ষাকৃত দুর্বল দল ওমানের বিরুদ্ধেও বাংলাদেশকে জিততে হয়েছে ঘাম ঝড়িয়ে। শেষ ম্যাচে অবশ্য পাপুয়া নিউ গিনিকে সহজেই হারিয়ে বি গ্রুপ রানার্স আপ হিসেবে মূল পর্বে নাম লেখায় মাহমুদউল্লাহরা।

হেড টু হেডে এগিয়ে থাকছে শ্রীলঙ্কা। টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা এখন পর্যন্ত মুখোমুখি হয়েছে ১১ বার। এর মধ্যে বাংলাদেশের জয় চারটিতে। হার সাতটি। বিশ্বকাপে লঙ্কানদের বিরুদ্ধে জয়ের রেকর্ড নেই বাংলাদেশের। দুই দল একবার মুখোমুখি হয়েছিল ২০০৭ প্রথম বিশ্বকাপে। ওই ম্যাচে বাংলাদেশ হেরেছিল ৬৪ রানে।

চলমান বিশ্বকাপের আগে আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি ম্যাচে শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ। যেখানে হার মানে মাহমুদউল্লাহরা। ফলে মূল পর্বের ম্যাচের আগে সেই হার শঙ্কা জাগাচ্ছে হালকা করে হলেও।

তবে প্রস্তুতি ম্যাচে ছিলেন না সাকিব। পিঠের ব্যথায় বিশ্রামে ছিলেন মাহমুদউল্লাহ। এই দুজনের সঙ্গে রোববার দেখা যাবে মুস্তাফিজকে।

লঙ্কান অধিনায়ক দাসুন শানাকা এই তিনজনকে নিয়ে বিশেষ ভাবে কথা বললেন, ‘পিচ নিয়ে বেশি ভাবছি না। আইপিএলে এই উইকেট ব্যবহার হওয়ায় একটু মন্থর আছে শারজাহতে। আমরা আমাদের শক্তির জায়গা দিয়ে খেলব। তারা ভালো দল। সাকিব, ফিজ, মাহমুদউল্লাহরা আছে। বাংলাদেশের ভালো ক'জন বোলার আছে। বিশেষ করে সাকিব ও ফিজ আছে। তাদের অনেক ভালো স্পিনার আছে।’

শুরুটা ভালো চায় সবাই। বাংলাদেশের হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গোও চাইছেন তেমন। জয় দিয়ে মিশন শুরু করতে পারলে সেমির সম্ভাবনা জোড়ালো হবে। সাম্প্রতিক সময়ে বিসিবি বস নাজমুল হাসান পাপনের সমালোচনা গায়ে মাখছেন না তিনি।
কথার লড়াই প্রসঙ্গ এড়িয়ে ডমিঙ্গো বলেন, ‘আমি শুধু ক্রিকেটের দিকেই নজর দিতে চাই। দলের বাইরে কী বলা হলো, সেটা নিয়ে খুব বেশি চিন্তা করার সুযোগ নেই। কালকের ম্যাচে খেলোয়াড়েরা কীভাবে শারীরিক ও মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে পারে, সেটার দিকেই নজর দিচ্ছি আমরা।’

টি টোয়েন্টিতে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে বাংলাদেশের শেষ ম্যাচ সাড়ে তিন বছর আগে নিদাহাস ট্রফিতে। যে ম্যাচে উত্তেজনা ছড়িয়ে দারুণ জয়ে বাংলাদেশ উঠেছিল ফাইনালে। যদিও সেই ফাইনালে ভারতের কাছে হেরেছিল বাংলাদেশ। কাল শারজাহতে ফিরে আসতে পারে নিদাহাস ট্রফির সেই উত্তেজনা। শেষ হাসিটা বাংলাদেশ হাসতে পারলে তা হবে সোনায় সোহাগা। সুপার টুয়েলভ পর্বে মাহমুদউল্লাহ শিবির জ¦লে উঠুক পুরোদমে, এমন প্রত্যাশা ভক্ত-সমর্থকদের।



আরো সংবাদ