২৬ নভেম্বর ২০২০

তীরে এসে তরি ডুবল হায়দরাবাদের

তীরে এসে তরি ডুবল হায়দরাবাদের - ছবি : সংগৃহীত

হাতের মুঠোয় ছিল ম্যাচটি। হঠাৎই এক ঝড়। তাতেই লণ্ডভণ্ড হায়দরাবাদ। গুটিয়ে গেল নিমিষেই। তীরে এসে তরি ডুবল ওয়ার্নারের হায়দরাবাদের। আইপিএলে শুক্রবার রাতে টানা চার ম্যাচ জিতে প্লে অফের লড়াইয়ে ফিরল কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব।

জয়ের জন্য হায়দরাবাদের দরকার ছিল ১২৭ রান। ১০০ রানে চার উইকেট পড়লেও এই ম্যাচে হেরে যাবে হায়দরাবাদ, তা ছিল কল্পনাতীত। ১১০ রানে পঞ্চম উইকেটের পতন। বাকি পাঁচ উইকেটে পড়ল মাত্র চার রানে। ১৯.৫ ওভারে হায়দরাবাদ অলআউট ১১৪ রানে। ১২ রানে জিতল পাঞ্জাব। অধিনায়ক লোকেশ রাহুল স্পেশাল থ্যাঙ্কস দিতেই পারেন দুই বোলার জর্ডান ও আরশদ্বীপ সিংকে।

হায়দরাবাদের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৫ রান করেন ওয়ার্নার। বিজয় শঙ্কার করেন ২৬। বেয়ারস্টো (১৯) ও মণীষ পান্ডে (১৫) নিজেদের খোলস ছেড়ে বের হয়ে আসতে পারেননি। দায়িত্ব ছিল লোয়ার-মিডল অর্ডারের। সে পরীক্ষায় ব্যর্থ তারা। আব্দুল সামাদ থেকে খলীল আহমেদ, কেউ ছুতে পারলেন না দুই অঙ্কের রান। শেষের চার ব্যাটসম্যান তো রানের খাতা খুলতেই পারেননি।

৪ ওভারে ১৭ রানে তিন উইকেট নেয়া পাঞ্জাব পেসার ক্রিস জর্ডান জিতে নেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। আরশদ্বীপ সিং ৩.৫ ওভারে ২৩ রানে নেন তিন উইকেট।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে ২০ ওভারে সাত উইকেটে ১২৬ রান করে পাঞ্জাব। সর্বোচ্চ ৩২ রানে অপরাজিত থাকেন নিকোলাস পুরান। গেইল এদিন নির্বিষ, করেন ২০ বলে ২০ রান। ওপেনার রাহুল করেন ২৭ বলে ২৭।

দারুণ এই জয়ে পয়েন্ট তালিকায় পঞ্চম স্থানে উঠে এসেছে পাঞ্জাব। ১১ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট প্রীতির দলটির। সমান ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে হায়দরাবাদের অবস্থান সপ্তম।


আরো সংবাদ