২৮ মার্চ ২০২০

কোরিয়ায় স্যামসাংয়ের কারখানা বন্ধ

-

করোনাভাইরাসের প্রভাবে সবচেয়ে কম ক্ষতি হয়েছে স্যামসাংয়ের। কারণ আগেই চীনের বেশির ভাগ কারখানা বন্ধ করে সেগুলো ভিয়েতনামে সরিয়ে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। সম্প্রতি নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণে সৃষ্ট রোগ কভিড-১৯ আক্রান্ত কর্মী শনাক্ত হওয়ায় দক্ষিণ কোরিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের শহর গুমিতে একটি মোবাইল ডিভাইস উৎপাদন কারখানা বন্ধ ঘোষণা করেছে স্যামসাং। গত শনিবার প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে ওই কারখানা বন্ধের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। কোভিড-১৯ আক্রান্ত ওই ব্যক্তির সংস্পর্শে যারা এসেছেন তাদেরকে কোয়ারেন্টাইন করে রেখেছে স্যামসাং। এ ছাড়া ওই কর্মীদের শরীরে ভাইরাসটি ঢুকেছে কি না তা পরীক্ষা করার ব্যবস্থা নিয়েছে স্যামসাং। গুমি শহরের ওই কারখানায় শুধু হাই অ্যান্ড ফোন তৈরি করা হয়। এই ফোন শুধু দক্ষিণ কোরিয়ায়ই বিক্রি করে স্যামসাং।
চীন থেকে মোবাইল ডিভাইস উৎপাদন কার্যক্রম শতভাগ স্থানান্তর করেছে স্যামসাং। দেশটিতে নিজেদের সর্বশেষ স্মার্টফোন উৎপাদন কারখানার কার্যক্রম গত বছর বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল।
এখন স্যামসাংয়ের বেশির ভাগ স্মার্টফোন উৎপাদিত হচ্ছে ভারত ও ভিয়েতনামে স্থাপিত নিজস্ব কারখানায়। স্যামসাং মোট যতসংখ্যক স্মার্টফোন উৎপাদন করে, তাতে গুমির কারখানার অবদান খুবই সামান্য। মূলত স্থানীয় বাজারের চাহিদা মেটাতে গুমির কারখানায় হাই-অ্যান্ড ফোন উৎপাদন করে আসছে স্যামসাং। গুমি দক্ষিণ কোরিয়ার দেইগু নামের শহরের কাছাকাছি। বলা হচ্ছে, দক্ষিণ কোরিয়ায় এ পর্যন্ত যতসংখ্যক মানুষ কভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছে, তার বেশির ভাগই দেইগুর একটি চার্চের আশপাশের এলাকার।


আরো সংবাদ

সকল