০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`
বরিশালে ২ দিনের মেলা

বীমা খাতে শৃঙ্খলা মানা হচ্ছে না : অর্থমন্ত্রী

-

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, বিভিন্ন দেশের অর্থনীতিতে বীমা খাতের অবদানের সাথে তুলনা করলে আমাদের দেশের বীমা খাত ততটা শক্তিশালী হতে পারেনি। কেননা এই খাতে যেসব শৃংখলা মানা উচিত তা আমরা ইচ্ছাকৃতভাবে মানি না। গতকাল বরিশাল নগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যানে (বেলস পার্ক) আয়োজিত দু’দিনব্যাপী বীমা মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।
বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জয়নুল বারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিআইএ) প্রেসিডেন্ট শেখ কবির হোসেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব শেখ মোহাম্মদ সলীম উল্লাহ, বরিশালের জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার, আইডিআরএ’র সদস্য মাইনুল ইসলাম ও মো: দলিল উদ্দিন, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স ফোরামের (বিআইএফ) প্রেসিডেন্ট বিএম ইউসুফ আলী প্রমুখ। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে বীমা শিক্ষা চালু করার উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, একটি দেশ যখন উন্নতির দিকে এগিয়ে যায়, তখন বীমা খুব গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠে। তাই দেশে বীমা শিক্ষার প্রসারে গুরুত্ব দিতে হবে। অর্থমন্ত্রী বলেন, বীমা সম্পর্কে অনেকেরই ন্যূনতম জ্ঞান নেই। এজন্যই নিজেও ঠকে এবং অন্যদেরও ঠকায়। কিন্তু বীমা খাতে কেউ লোকসানে পড়ে না।


আইডিআরএ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জয়নুল বারী বলেন, দেশের ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে এক কোটি ৩০ লাখ বীমা গ্রাহক আছে। তবে এখনো দেশের অধিকাংশ মানুষকে বীমার আওতায় আনতে পারিনি। তিনি বলেন, দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য বীমা খাত গুরুত্বপূর্ণ। ২০৪০ সালের মধ্যে দেশকে উন্নত দেশে পরিণত করতে হলে বীমা খাতের উন্নয়ন করতে হবে। তিনি আরো বলেন, বীমা পলিসি ও বীমা সম্পর্কে সাধারণ মানুষ সচেতন করতে মেলার আয়োজন করা হয়েছে। শেখ কবির হোসেন বলেন, বীমার প্রতি মানুষের আগ্রহ বাড়ছে। বীমা পরিবার, ব্যক্তি ও সমাজের আর্থিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করে। তাই স্থাবর-অবস্থাবর সব সম্পদ বীমার আওতায় আনা উচিত। তিনি বলেন, প্রযুক্তি ব্যবহারে দেশের বীমা খাত এগিয়ে যাচ্ছে। এরই মধ্যে চার-পাঁচটা কোম্পানি ডিজিটাল পদ্ধতিতে বীমা দাবি পরিশোধ করছে। উন্নত দেশগুলোর মেগা প্রজেক্টগুলোতে অর্থায়ন করে জীবন বীমা কোম্পানিগুলো।
অনুষ্ঠানে জীবন বীমা করপোরেশন, ন্যাশনাল লাইফ ইন্সুরেন্স, পপুলার লাইফ ইন্সুরেন্স, মেঘনা লাইফ ইন্সুরেন্স ও গার্ডিয়ান লাইফ ইন্সুরেন্সের বীমা গ্রাহকের মাঝে বীমা দাবির চেক বিতরণ করা হয়। আইডিআরএ জানায়, এবারের মেলায় বীমা গ্রাহকের ১০৯ কোটি টাকার বীমা দাবির চেক পরিশোধ করা হবে।
প্রসঙ্গত, দুদিনব্যাপী প্রবেশ ফি মুক্ত এই মেলা চলবে সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স ফোরাম এবং বীমা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান মেলা আয়োজনে সহযোগিতা করেছে।

 


আরো সংবাদ


premium cement