১৭ মে ২০২২, ০৩ জৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩
`

মিরসরাইয়ে ছাত্রলীগের ২ গ্রুপে সংঘর্ষ : আহত ৭

-

চট্টগ্রামের মিরসরাই বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের এক ছাত্রীকে ইভটিজিংয়ের ঘটনায় দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় সাত ছাত্রলীগ কর্মী আহত হয়েছে এবং দুটি মোটরসাইকেল পুড়িয়েছে হামলাকারীরা। সংঘর্ষ পৌর সদরে ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয়দের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়।
হামলার ঘটনায় ইমতিয়াজ ও সায়মন নামের দু’জনকে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় দুটি মোটরসাইকেল ও আটক করা হয়।
জানা গেছে, গত শনিবার সকালে মিরসরাই বিশ^বিদ্যালয় কলেজ সড়কে কলেজের এক শিক্ষার্থীকে ইভটিজিংয়ের ঘটনায় ছাত্রলীগের এক গ্রুপ অন্য গ্রুপকে ধাওয়া দেয়। এরপর গতকাল রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মিরসরাই পৌরসভা মার্কেটের সামনে কলেজ ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শাহনেওয়াজ নিশাদ ও তার সহপাঠীদের ওপর হামলা হয়। হামলায় নিশাদ, রাজিব, সাকিব ও সজিব নামের চার ছাত্রলীগ নেতাকর্মী আহত হয়। এরপর ওই দিন বেলা সাড়ে ১২টার দিকে মিরসরাই পৌর বাজারের ফুট ওভার ব্রিজের নিচে আহত ছাত্রলীগ নেতা নিশাদের গ্রুপের নেতাকর্মীরা হামলা চালায় মিরসরাই পৌরসভা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের ওপর। এসময় উপজেলা সড়কে হাসান নামে এক ছাত্রলীগ কর্মীকে মারধর করার সময় হাসানের মা নিজের সন্তানকে বাঁচাতে পেছন পেছন দৌড়াতে দেখা যায়। সর্বশেষ ওই দিন বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে আবার কলেজ ছাত্রলীগ নেতা নওশাদের কর্মীরা পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ তালবাড়িয়া গ্রামে হামলা চালায় ছাত্রলীগ কর্মী রিয়াদের বাড়িতে। এ সময় তারা ঘরের দরজা জানালা ভাঙচুর করে এবং রিয়াদকে না পেয়ে তার এবং তার বড় ভাই সালমানের মোটর বাইকে আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে দেয়। হামলার ঘটনায় আহত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) ভর্তি করা হয়েছে। হামলার ঘটনায় আহত ছাত্রলীগ নেতা শাহনেওয়াজ নিশাদ অভিযোগ করেন, ‘গত শনিবার সকালে আমার কলেজের এক শিক্ষার্থী প্রাইভেট পড়তে আসলে কয়েকজন বখাটে তাকে ইভটিজিং করে। এ সময় আমরা বখাটেদের ধাওয়া করলে ঘটনার সূত্রপাত হয়। এ ঘটনার জেরে রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মিরসরাই উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জাফর ইকবালের অনুগতরা অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে অতর্কিতভাবে তাদের ওপর হামলা চালায়।’
অবশ্য এমন অভিযোগ অস্বীকার করে মিরসরাই উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জাফর ইকবাল বলেন, ‘আমি পারিবারিক কাজে নারায়ণগঞ্জে আছি। যে ঘটনা ঘটেছে এটি একটি ইভটিজিংয়ের ঘটনা। ঘটনার সাথে অহেতুক আমাকে জড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। উল্টো মোবাইল ফোনে ফোন করে আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে।’
মিরসরাই বিশ^বিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ নুরুল আবছার বলেন, ‘কলেজ বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। শিক্ষার্থী প্রাইভেট পড়তে আসতে পারে। তবে ক্যাম্পাসে এ ধরনের ঘটনা ঘটেনি। ক্যাম্পাসের বাইরে ঘটতে পারে। তবে আমাকে কেউ এ বিষয়ে জানায়নি।’ এ বিষয়ে মিরসরাই থানার সেকেন্ড অফিসার (উপপরিদর্শক) রাজিব পোদ্দার জানান, ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মারামারির ঘটনায় কয়েকজন আহত হয়েছে। ঘটনার পরপর পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। থানায় অভিযোগ দিলে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরো সংবাদ


premium cement