০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ন ১৪২৮, ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি
`

পারদযুক্ত পণ্যের ব্যবহার বন্ধে মিনামাতা কনভেনশন অনুমোদনের আহ্বান

-

পারদযুক্ত পণ্য পর্যায়ক্রমে বন্ধ করার জন্য মিনামাতা কনভেনশন অবিলম্বে অনুমোদন করা প্রয়োজন। ডব্লিউভিএ মিলনায়তনে এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন এসডো কর্তৃক আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে বিষেষজ্ঞ ও পরিবেশবাদীরা এই আহ্বান জানান।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ প্রেক্ষিতে পারদযুক্ত পণ্যের বর্তমান অবস্থা, এগুলো পর্যায়ক্রমে বন্ধ করার কার্যকারিতা, বাজারে পারদযুক্ত পণ্যের বিকল্পের উপস্থিতি এবং মিনামাতা কনভেনশন অনুমোদনের গুরুত্ব তুলে ধরা হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি পরিবেশ, বন ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কেয়া খান বলেন ‘পারদের ক্ষতিকারক স্বাস্থ্য এবং পরিবেশগত প্রভাবের কথা চিন্তা করে বাংলাদেশ সরকার বাংলাদেশ থেকে পারদযুক্ত পণ্য পর্যায়ক্রমে বন্ধ করার প্রয়োজন ীয় পদক্ষেপ নিচ্ছে।’
মিনামাতা কনভেনশন অনুমোদনের প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়ে বেশির ভাগ বক্তা বলেন, অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশে পারদযুক্ত পণ্যের ব্যবহার পর্যায়ক্রমে বন্ধ করার একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসেবে কাজ করতে পারে। এই কনভেনশনের অনুমোদন ও বাস্তবায়নের দিকে অগ্রসর হওয়ার যে ব্যবস্থা গ্রহণের প্রয়োজন তা অনুষ্ঠানে আলোচনা করা হয়।
অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন এসডোর চেয়ারপারসন ও বাংলাদেশের সাবেক সচিব সৈয়দ মাগর্ুুব মোর্শেদ। অধ্যাপক ড. আবু জাফর মাহমুদ, সাবেক চেয়ারম্যান, রসায়ন বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; অধ্যাপক ড. আবুল হাসেম, সাবেক চেয়ারম্যান, রসায়ন বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ; এস এম আবু সৈয়দ, সহকারী পরিচালক, বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন-বিএসটিআই ; ইসমত জেরিন খান, হেড অব লিগ্যাল, দারাজ বাংলাদেশ লিমিটেড; ড. তানভীর আহমেদ, অধ্যাপক, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, বুয়েট, ড. মাহফুজার রহমান, কান্ট্রি ডিরেকটর, পিওর আর্থ বাংলাদেশ, মো: জাহাঙ্গীর আলম, সহকারী পরিচালক, শিক্ষা মন্ত্রণালয়; মো: সাইদুর রহমান খান, প্রোগ্রাম ম্যানেজার, স্বাস্থ্য অধিদফতর, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়; ড. শাহরিয়ার হোসেন, মহাসচিব, এসডো; সিদ্দীকা সুলতানা, নির্বাহী পরিচালক, এসডো এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। সরকারি ও বেসরকারি সংস্থা এবং এনজিওর কর্মকর্তা, সাংবাদিক এবং এসডোর অন্য সদস্যরাও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
এসডোর চেয়ারপারসন ও বাংলাদেশের সাবেক সচিব সৈয়দ মাগর্ুু মোর্শেদের মতে, এসডো এই বিষয়টি নিয়ে অনেক দিন ধরে কাজ করছে। বিশেষ করে রেটিফিকেশনের ক্ষেত্রে। এসডো আশাবাদী যে সরকার দ্রুতই রেটিফিকেশনের সিদ্ধান্ত নিবে।
এসডোর নির্বাহী পরিচবালক সিদ্দীকা সুলতানা তার উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন যে ‘ডঐঙ এর মতে, মানবদেহে পারদের কোনো নিরাপদ মাত্রা নেই। পারদযুক্ত পণ্যের বিকল্প বাজারে বিদ্যমান এবং ভোক্তারা এখন পারদমুক্ত পণ্যের দক্ষতা এবং শক্তি সঞ্চয় মানের জন্য পছন্দ করছে। আমরা সরকারের কাছে পণ্যে পারদের বিষাক্ততা দূর করার আহ্বান জানাই। বিজ্ঞপ্তি।



আরো সংবাদ


ব্যবসায়ীদের প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে যশোর জেলা মহিলা দলের মৌন মিছিল ১০ মাসেই চা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়ালো বাংলাদেশ ‘জরুরি প্রয়োজন ছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী কেউ দেশে না আসাই ভালো’ গ্রিন ইউনিভার্সিটিতে সশরীরে ক্লাস শুরু কক্সবাজার বিমানবন্দরে গরুর মৃত্যু নিয়ে রহস্য কাটেনি সংক্রমণে ডেল্টাকেও ছাপিয়ে যেতে পারে ওমিক্রন : দক্ষিণ আফ্রিকার বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা গাজীপুরে সাবেক মেয়র সমর্থকদের ওপর হামলা ও ভাঙ্গচুর পঞ্চসারে গুলি ও ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটনায় মামলা এইডস রোগীর কী চিকিৎসা আছে বাংলাদেশে? কলেজ ছাত্রের রগকাটা লাশ উদ্ধার

সকল