২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭ আশ্বিন ১৪২৮, ১৪ সফর ১৪৪৩ হিজরি
`

কোভিড-১৯ চিকিৎসায় সিআইএমসিএইচে যুক্ত হয়েছে আরো ৩০টি বেড

-

চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনারের নেতৃত্বে একটি টিম গত শনিবার কোভিড-১৯ চিকিৎসা সরেজমিনে পরিদর্শন করতে চট্টগ্রাম ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আসেন। পরিদর্শন শেষে সিআইএমসিএইচ ব্যবস্থাপনা কমিটির চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. কাজী দ্বীন মোহাম্মদের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি অধ্যাপক ডা: মুসলিম উদ্দিন সবুজের সঞ্চালনায় কোভিড-১৯ চিকিৎসা সংক্রান্ত মতবিনিময় সভা সিআইএমসিএইচ সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মিজানুর রহমান, জেলা প্রসাশক মমিনুর রহমান, জেলা সিভিল সার্জন ডা: শেখ ফজলে রাব্বী ও স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক ড. বদিউল আলম। অন্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো: আমির হোসাইন, সিআইএমসিএইচের উপপরিচালক ডা: আব্দুর রাজ্জাক খান।
চট্টগ্রাম ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল (সিআইএমসিএইচ) কোভিড চিকিৎসায় গৃহীত পদক্ষেপ নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মিজানুর রহমান বলেন, চট্টগ্রাম ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কোভিড চিকিৎসায় দৃশ্যমান উন্নতি সাধন করেছে। তিনি বলেন, ২০২০ সালের মে মাসেও আমরা এই হাসপাতাল পরিদর্শনে এসেছিলাম তখন মাত্র ৩০ শয্যায় কোভিড আক্রান্তদের চিকিৎসা দেয়া হতো। ক্রমান্বয়ে সিআইএমসিএইচ সেবার পরিধি বাড়িয়ে সেটাকে ৯০ শয্যায় উন্নীত করেছে। সাথে ছয়টি করোনা স্পেশালাইজড এইচডিইউ ও আইসিইউ বেড স্থাপন করায় তিনি হাসপাতাল পরিচালনা কমিটিকে বিশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। তিনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে শয্যাসংখ্যা ৯০ থেকে বাড়িয়ে ১২০ করার জন্য অনুরোধ জানালে ব্যবস্থাপনা কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী দ্বীন মোহাম্মদ তা গ্রহণ করে কার্যকরের সিদ্ধান্ত দেন। জেলা প্রশাসক কোভিড আক্রান্তদের শয্যা সংখ্যা ৩০টি বাড়িয়ে ১২০ টিতে রূপান্তরের ক্ষেত্রে নতুন অক্সিজেন ম্যানিফোল্ড স্থাপন, বায়প্যাপ মেশিন ও অক্সিজেন কনসেনট্রেটরসহ যাবতীয় সহযোগিতা করার আশ্বাস প্রদান করেন। এ ছাড়াও কোভিড-১৯ রোগ নির্ণয়ের জন্য র্যাপিড এন্টিজেন টেস্টের অনুমোদনের বিষয়ে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।
উল্লেখ্য, কোভিড-১৯ প্যানডেমিক পরিস্থিতির শুরু থেকেই চট্টগ্রাম ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল সেন্ট্রাল অক্সিজেন, বায়প্যাপ মেশিন, অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর, হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা (এইচএফএনসি) ও চিকিৎসক, নার্স ও সাপোর্টিং স্টাফের সমন্বয়ে একটি ডেডিকেটেড টিমের মাধ্যমে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করে যাচ্ছে। কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা সার্বক্ষণিক তদারকি করার জন্য রয়েছে হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা: টিপু সুলতানের নেতৃত্বে সাত সদস্যের কোভিড-১৯ ম্যানেজমেন্ট কমিটি। গতকাল হাসপাতালে কোভিড-১৯ ইউনিটে রোগী ভর্তি ছিল ৮৯ জন। খালি আছে আর মাত্র একটি বেড। এইচডিইউ ও আইসিউ ছয়টি বেডই কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী দ্বারা পরিপূর্ণ। আজকে সঙ্কটাপন্ন রোগীর সংখ্যা ২১ জন। বিজ্ঞপ্তি।



আরো সংবাদ


খেলাপিদের বিশেষ সুবিধা আরো এক বছর চায় বিজিএমইএ মুস্তাফিজদের দারুণ বোলিংয়ে রোমাঞ্চকর লড়াই জিতল রাজস্থান সাবমেরিন ইস্যু : ‘ক্রুদ্ধ’ ম্যাক্রঁ কি বেশি ঝুঁকি নিয়ে ফেললেন? গাড়িচালক মালেকের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দুদকের আফগানিস্তানে আইপিএলের সম্প্রচার নিষিদ্ধ হার এড়ালো বার্সেলোনা অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় নিজেকে নির্দোষ দাবি সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর স্বাস্থ্যের ২৮৩৯ পদে নিয়োগপ্রক্রিয়া বাতিল দুয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে : ওবায়দুল কাদের মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা শিথিল খালেদা জিয়ার মুক্তি ইস্যুতে আপস করা যাবে না: বিএনপি

সকল