১৪ এপ্রিল ২০২১
`
হাইকোর্টের জামিন জালিয়াতি

যুবলীগ নেতাসহ আরো ১৬ জন কারাগারে

-

হাইকোর্টের ভুয়া জামিননামা তৈরির ঘটনা প্রমাণিত হওয়ায় বগুড়ায় যুবলীগ নেতা ও পৌর কাউন্সিলর আমিনুল ইসলামসহ আরো ১৬ জনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। এ নিয়ে একই আদালত গত দু’দিনে ৩০ আসামিকে কারাগারে পাঠান।
বগুড়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আসমা মাহমুদ এ বিষয়ে পৃথক দু’টি আদেশ দেন। প্রধান আসামি আমিনুল ইসলাম বগুড়া সদর উপজেলা যুবলীগের সহসভাপতি ও বগুড়া পৌরসভার ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের দ্বিতীয় বার নির্বাচিত কাউন্সিলর এবং বগুড়া জেলা মোটরমালিক গ্রুপের সাবেক সাধারণ সম্পাদক। আসামি পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নাফ জানান, গত ৯ ফেব্রুয়ারি বগুড়া জেলা মোটরমালিক গ্রুপের কার্যালয় দখল নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় মোটরমালিক গ্রুপের সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মশিউল আলম দিপন বাদি হয়ে চাঁদাবাজি, মারধর ও বিস্ফোরকদ্রব্য আইনে বগুড়া সদর থানায় যুবলীগ নেতা আমিনুল ইসলামসহ ৩৩ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা করেন। মামলা দায়েরের পর ১৪ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিমকোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকী ও বিচারপতি এম হাফিজুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চের জামিন আদেশ নিজেরা তৈরি করে ৩০ জনের জামিন হয়েছে বলে বগুড়া সদর থানায় তা জমা দেন। এরপর বিষয়টি ফাঁস হয়ে যায়। পরে ২৪ ফেব্রুয়ারি ওই আদালত অভিযুক্ত ৩০ জনকে ৭ কার্যদিবসের মধ্যে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন পুলিশকে । এই নির্দেশের পর গত বুধবার ৩০ জনের মধ্যে ১৪ জন আসামি বগুড়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আসমা মাহমুদের আদালতে স্বেচ্ছায় হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে আবেদন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠিয়ে দেয় কোর্ট পুলিশ। একই মামলার প্রধান আসামি আমিনুল ইসলামসহ অপর ১৬ জন আসামি গতকল বৃহস্পতিবার একই আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করলে আদালত নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান।



আরো সংবাদ