০৫ ডিসেম্বর ২০২০

সরকারি স্কুলে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তিতে পরীক্ষা নিতে চান প্রতিষ্ঠান প্রধানরা

মাউশির সাথে বৈঠক
-

প্রাথমিক থেকে শুরু করে উচ্চমাধ্যমিক পর্যন্ত সব পরীক্ষা বাতিল হলেও নতুন বছরে শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রে পরীক্ষা নেয়ার পক্ষেই প্রতিষ্ঠান প্রধানরা। রাজধানীর সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের অনেকেই জানিয়েছে তারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে তিনটি ক্লাস্টারে ৯টি ধাপে পরীক্ষা নেয়ার প্রতি জোর দিচ্ছেন। যদি কোনোভাবে পরীক্ষা নেয়া সম্ভব না হয়, তাহলে লটারির মাধ্যমে প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণীতে শিক্ষার্থী ভর্তি করারও দ্বিতীয় প্রস্তাব দিয়েছেন তারা। করোনা পরিস্থিতিতে মাধ্যমিক স্কুলে শিক্ষার্থী ভর্তিসংক্রান্ত বিষয়ে গতকাল মঙ্গলবার এক ভার্চুয়াল সভায় এ প্রস্তাব দেন প্রতিষ্ঠান প্রধানরা। সভায় সভাপতিত্ব করেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুক।
সভা সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের মতো এবারো পরীক্ষা নিয়ে ভর্তি করানোর পক্ষে জোর দিয়েছেন রাজধানীর সরকারি মাধ্যমিকের স্কুলের প্রধান শিক্ষকরা। রাজধানীর ৪১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তিনটি ক্লাস্টারে তিন দিন পরীক্ষা নেয়া হলেও এবার প্রতিটি ক্লাস্টার তিন দিনে ভাগ করে মোট ৯ দিন পরীক্ষা নেয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন তারা। অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষা আয়োজন করা হলেও তাতে সবার পক্ষে অংশগ্রহণ করা সম্ভব হবে না। এ কারণে পর্যায়ক্রমে অল্পসংখ্যক করে সশরীরে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন স্কুলের প্রধানরা।
সূত্র আরো জানায়, কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান প্রথম শ্রেণি থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তি করানোর বিষয়ে প্রস্তাব দিয়েছেন। তবে লটারি পদ্ধতি অবলম্বন করলে অনেক মেধাবী শিক্ষার্থী সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবে বলে সভায় মন্তব্য করেন মাউশির মহাপরিচালক। তাই কোনোভাবে পরীক্ষা নেয়া সম্ভব না হলে লটারির মাধ্যমে ভর্তি করতে হবে বলে জানান তিনি।
আজিমপুর গভ: গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো: আবু বকর সিদ্দীক জানান, করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার প্রতি মত দিয়েছেন প্রতিষ্ঠান প্রধানরা। স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ পরীক্ষা নেয়া সম্ভব। তিনি বলেন, কয়েক বছর ধরে দ্বিতীয় থেকে অষ্টম শ্রেণীর ভর্তির ক্ষেত্রে বাংলা, ইংরেজি এবং অঙ্ক বিষয়ের পরীক্ষার ফলাফলের মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হচ্ছে। এতে করে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা সম্ভব হয়। এ কারণে পরীক্ষা পদ্ধতিতে মতামত দেয়া হয়েছে।
মাউশির সহকারী পরিচালক (বিদ্যালয়-১) মো: আমিনুল ইসলাম টুকু জানান, চলতি মাসে সরকারি বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি নীতিমালা জারি করা হয়েছে। তবে কোন পদ্ধতিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে সে বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। সে কারণে মঙ্গলবার প্রতিষ্ঠান প্রধানদের নিয়ে বৈঠক করা হয়েছে। সেখানে এ সংক্রান্ত নানা প্রস্তাব এসেছে।
তিনি বলেন, প্রতি বছর রাজধানীর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধম থেকে অষ্টম শ্রেণীতে ভর্তির জন্য ১০ হাজারের বেশি শূন্য আসনে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়ে থাকে। এসব আসনে ভর্তির জন্য প্রায় এক লাখের মতো আবেদন জমা হয়। এ কারণে ভর্তির সময় শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের বড় সমাগম হয়। এবার করোনা পরিস্থিতিতে ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে এক ধরনের জটিলতা তৈরি হয়েছে। সেই চ্যালেঞ্জ সামনে নিয়ে সংশ্লিষ্ট সবার মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।
ভর্তি নীতিমালা ২০২০ অনুযায়ী, এবারো আগের মতো রাজধানীর ৪১টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে তিনটি ক্লাস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। তবে আগে প্রতিটি ক্লাস্টারে একটি বিদ্যালয়ে আবেদন করার সুযোগ দেয়া হলেও এবার প্রতিটিতে পাঁচটি করে মোট ১৫টি বিদ্যালয়ে অনলাইনের মাধ্যমে ভর্তি আবেদন করার সুযোগ দেয়া হয়েছে। সব বিদ্যালয়ে পাঁচ শতাংশ আসন খালি রেখে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। এসব আসনে বদলি হয়ে আসা সরকারি কর্মকর্তাদের সন্তানদের ভর্তি করানো হবে। ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণীতে লটারি আয়োজন করা হলেও দ্বিতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত পূর্ণমান ৫০ নম্বরে বাংলা, ইংরেজি ও অঙ্ক পরীক্ষা নেয়া হয়। ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণীর ভর্তিতে এই তিন বিষয়ে পূর্ণমান ১০০ নম্বরের ভর্তি পরীক্ষা নেয়া হয়ে থাকে।

 


আরো সংবাদ