২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

বগুড়ায় কলেজছাত্র ও ঘরজামাই খুন

মাদককারবারি ও শিশুর অস্বাভাবিক মৃত্যু
-

বগুড়ায় ঈদুল আজহার ছুটির চার দিনে আদমদীঘিতে কলেজছাত্রকে কুপিয়ে হত্যা, শিবগঞ্জে পুলিশের তাড়া খেয়ে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে মাদককারবারি নিহত, সোনাতলায় ঘরজামাইকে পিটিয়ে হত্যা এবং পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।
আদমদীঘিতে কলেজছাত্র খুন : আদমদীঘি উপজেলায় আড্ডা দেয়া নিয়ে ছুরিকাঘাতে শিহাব হোসেন (১৭) নামের এক কিশোর খুন হয়েছে। সে চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। ইদের পরদিন রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার রক্তদহ বিলের বেইলি ব্রিজে এ ঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দমদমা গ্রামের বেশ কয়েকজন ছেলে রোববার সন্ধ্যায় রক্তদহ বিল সংলগ্ন বেইলি ব্রিজে আড্ডা দিতে যায়। সেখানে পার্শ্ববর্তী করজ গ্রামের যুবকদের সাথে শিহাবের তর্কবিতর্ক হয়। এ সময় শিবলু নামের এক যুবক শিহাবের পেটে ছুরিকাঘাত করে। তাকে উদ্ধারে এগিয়ে এলে শিহাবের বন্ধু প্রহর ও জাকিরকেও ছুরিকাঘাত করা হয়। স্থানীয় লোকজন ছুরিকাহত তিনজনকে নওগাঁ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক শিহাবকে মৃত ঘোষণা করেন। অপর দুইজন সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
পুলিশের তাড়া খেয়ে নদীতে ডুবে মৃত্যু : শিবগঞ্জে পুলিশের তাড়া খেয়ে করতোয়া নদীতে ঝাঁপ দিয়ে মাদককারবারি মাসুম মিয়া (৩৫) মারা গেছেন।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত রোববার সন্ধ্যার আগে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ মহাস্থান বারিদার পাড়া এলাকায় নয়ন নামে এক মাদককারবারিকে গ্রেফতার করে। এ সময় অপর মাদককারবারি মাসুমকে পুলিশ গ্রেফতার করতে গেলে তিনি দৌড় দেন। এ সময় পুলিশ তাকে ধাওয়া করলে মাসুম মিয়া করতোয়া নদীতে ঝাঁপিয়ে পড়ে নিখোঁজ হন। সোমবার দুপুরের দিকে করতোয়া নদীর ভাটিতে মাসুমের লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয় জনগণ উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যায়। শিবগঞ্জ থানার ওসি এস এম বদিউজ্জামান জানান, নিহত মাসুম মাদককারবারি ছিলেন। পুলিশ দেখে গ্রেফতার এড়াতে তিনি দৌড় দিয়ে নদীতে ঝাঁপ দেন।
ঘরজামাইকে পিটিয়ে হত্যা : সোনাতলা উপজেলায় ঠাণ্ডু মিয়া (৫২) নামের একজন ঘরজামাইকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তিনি সোনাতলা উপজেলার সুজায়েতপুর গ্রামের মৃত আছিম উদ্দিনের ছেলে। তিনি একই থানার লোহাগাড়া গ্রামের ফরিদ উদ্দিনের মেয়েকে বিয়ে করে ঘরজামাই থাকতেন।
নিহতের ভাই কালাম আজাদ জানান, টাকা পয়সা নিয়ে বিরোধের জের ধরে গত শুক্রবার রাতে ঘরজামাই ঠাণ্ডু মিয়াকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে শ্বশুরবাড়ির লোকজন। শনিবার বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ঠাণ্ডু মিয়াকে ভর্তির পর বেলা ১টার দিকে তিনি মারা যান। এ দিকে ঠাণ্ডু মিয়ার শ্বশুরবাড়ির লোকজন হাসপাতাল থেকে লাশ নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে পরিবারের লোকজন পুলিশে খবর দেয়। পরে ছিলিমপুর ফাঁড়ি পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। এ সময় ঠাণ্ডু মিয়ার শ্বশুরবাড়ির লোকজন হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়।
শিশুর মৃত্যু : বগুড়া সদরের নিশিন্দারা ইউনিয়নে পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গত শুক্রবার দশটিকা সরকার পাড়ার বিপুল সরকার এর ৩ বছর বয়সী ছেলে মোহাম্মদ আলী কোরবানির ছাগলকে পাতা খাওয়াতে গিয়ে পুকুরে ডুবে মারা যায়। প্রতিবেশী চাচা মাসুম হঠাৎ বাড়ির পাশে পুকুরে শিশুকে ভাসতে দেখে সবাইকে ডাকেন। পরে শিশু মোহাম্মদ আলীকে তুলে রফাতুল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঈদুল আজহার আগের দিন এমন আকস্মিক মৃত্যুর ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।


আরো সংবাদ