২৬ নভেম্বর ২০২০

২০০ মুসল্লির অংশগ্রহণে বায়তুল মোকাররমে জোহরের জামাত

-

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার অংশ হিসেবে ঘরে অবস্থানের প্রভাব পড়েছে মসজিদগুলোতেও। আজ মাত্র ২০০ জনের মতো মুসল্লির অংশগ্রহণে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে জোহরের নামাজের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। অন্যান্য সময় এই সংখ্যা তিন হাজার থেকে চার হাজার হতো। দেশের অন্যান্য মসজিদেও একেবারেই স্বল্পসংখ্যক মুসল্লির অংশগ্রহণে জোহরের জামাত হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে।
ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পরিচালক মুহাম্মদ মহীউদ্দিন মজুমদার বায়তুল মোকাররমের জোহরের জামাতে অংশ নিয়েছেন। তিনি এই প্রতিবেদককে জানান, মুসল্লি ২০০ জন হতে পারে, যা অন্যান্য সময় চার হাজারেও বেশি হতো। তিনি বলেন, আমরা মসজিদে মুসল্লিদের জন্য হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ স্বাস্থ্য সুরক্ষার ব্যবস্থা অনেক আগেই নিয়েছি। তবে এখন মুসল্লির সংখ্যা একেবারেই কমে যাওয়ায় এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আহ্বান অনুযায়ী যারা মসজিদে আসছেন বাসা থেকে অজু করে আসছেন।
পারিপার্শি¦ক অবস্থার ব্যাপারে তিনি বলেন, ফুটপাথ, আশপাশের দোকানপাট সবই বন্ধ। লোকজনের চলাচলও তেমন নেই। ছুটির মধ্যেও স্বাধীনতা দিবসের দোয়ায় অংশ নিতে নিজে বায়তুল মোকাররমে যান বলে জানান।
দোয়া ও মুনাজাত : এ দিকে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস-২০২০ উদযাপন উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে জোহর নামাজের পর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে দোয়া ও মুনাজাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে নামাজের অংশ নেয়া প্রায় দুই শ’ মুসল্লি ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কয়েকজন কর্মকর্তা অংশ নেন।
দোয়া ও মুনাজাত পরিচালনা করেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম মুফতি মাওলানা মিজানুর রহমান। মুনাজাতে ২৬ মার্চ ও মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে শাহাদাৎবরণকারী সব শহীদের রূহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মুনাজাত করা হয়।
এ ছাড়া বর্তমানে বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস যেভাবে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়েছে, তা থেকে যেন বাংলাদেশের মানুষসহ বিশ্বের মানুষ পরিত্রাণ পায় সে জন্য বিশেষভাবে দোয়া করা হয়। এ সময় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পরিচালক মুহাম্মদ মহীউদ্দিন মজুমদার, মো: আনিছুর রহমান সরকার, উপপরিচালক মো: আলমগীর হায়দারসহ বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের ইমাম, খতিব ও মুয়াজ্জিন উপস্থিত ছিলেন।


আরো সংবাদ